সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যা বেড়েছে ঢাকার সড়কে

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদুল আজহার পর দেশব্যাপী শুরু হওয়া কঠোর বিধিনিষেধের পঞ্চম দিন আজ মঙ্গলবার। আজ রাজধানীতে ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল বেড়েছে। গত কয়েক দিনের মতো আজও প্রধান সড়কগুলোতে অনেক রিকশা চলাচল করতে দেখা গেছে। এ ছাড়া বাইরে লোকজনের চলাচলও আজ বেড়েছে।

বিধিনিষেধ কার্যকরে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে পুলিশের তল্লাশিচৌকি স্থাপন করা হয়েছে। সকাল থেকে অন্তত ১০টি তল্লাশিচৌকি ঘুরে দেখা যায়, ২টি ছাড়া বাকিগুলোতে তেমন তৎপরতা নেই।

কোনো কোনো স্থানে তল্লাশিচৌকি থাকলেও সেখানে পুলিশ দেখা যায়নি। আবার কোনোটিতে পুলিশ থাকলেও যানবাহন তল্লাশিতে তাদের তৎপরতা দেখা যায়নি।

করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা নিয়ন্ত্রণে ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সরকার। এর আগে ১ থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত দেশে বিধিনিষেধ বহাল ছিল। ঈদের কারণে আট দিন বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছিল।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম থেকে জানানো হয়েছে, আজ সকাল ১০টার পর থেকে প্রায় প্রতিটি এলাকাতেই যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি পেয়েছে। সড়কে ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যা বেশি। ঈদের পর কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে আজই প্রথম এত বেশি যানবাহন সড়কে চলাচল করছে।

রাজধানীতে আজ সকাল আটটা থেকে প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা বৃষ্টি হয়। বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার বাসিন্দা মইনুল হোসেন জানান, তিনি বৃষ্টির মধ্যে সকাল সাড়ে আটটার দিকে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে অফিসের উদ্দেশে বের হন। এ সময় রাস্তা প্রায় ফাঁকা ছিল।

পুলিশের তল্লাশিচৌকির কারণে ঢাকার কোনো কোনো স্থানের সড়কে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। সকাল ১০টার দিকে র‍্যাডিসন ব্লু হোটেলের সামনে বিমানবন্দর সড়কের একাংশে ব্যক্তিগত গাড়ির দীর্ঘ সারি দেখা যায়।

রাসেল আহমেদ নামের এক ব্যক্তি জানান, তিনি সকালে অফিসের নিজস্ব যানবাহনে করে গন্তব্যে যাচ্ছিলেন। পথে শ্যামলীর শিশুমেলার সামনের সড়কে যানবাহনের দীর্ঘ সারির মধ্যে পড়েন। সেখানে তল্লাশিচৌকি থাকলেও কোনো যানবাহন তল্লাশি করা হচ্ছিল না। ব্যারিকেডের কারণে সড়ক সরু হয়ে যাওয়ায় যানবাহনের জটলা তৈরি হয়।

জাহাঙ্গীরগেটের কাছে স্থাপিত তল্লাশিচৌকিতে বেলা ১১টার দিকে পুলিশকে বেশ তৎপর থাকতে দেখা যায়। সেখানে ২০ মিনিটের মতো অবস্থান করে দেখা যায়, যতগুলো গাড়ি থামানো হয়েছে, তার সব কটি ব্যক্তিগত গাড়ি। প্রতিটি গাড়ির চালক-যাত্রীকে বাসা থেকে বের হওয়ার কারণ জানতে চাওয়া হয়। যাঁরা অফিসগামী বলেন, তাঁদের পরিচয়পত্র পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া গাড়ির কাগজপত্রও পরীক্ষা করা হয়। তবে এই সময়ের মধ্যে কোনো গাড়ি আটকে রাখা হয়নি বা জরিমানা করা হয়নি। এ সময় এই সড়ক দিয়ে বাধাবিঘ্ন ছাড়াই রিকশা চলাচল করছিল।

দুপুর পৌনে ১২টা পর্যন্ত বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ী, মহাখালী বাসস্ট্যান্ড, মানিক মিয়া অ্যাভিনিউ, মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড, বিজয় সরণি, বিজয় সরণি থেকে তেজগাঁওয়ের দিকে ফ্লাইওভারের কাছের তল্লাশিচৌকি ঘুরে দেখা যায়, সেখানে পুলিশ নেই। সার্ক ফোয়ারার সামনে তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি।