সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

স্ত্রীর লাশের পাশে বসে ছিলেন, দরজা খোলেন পুলিশ এলে

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : বুড়িচংয়ে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে। এলাকাবাসী বলছেন, হত্যাকাণ্ডের পর ওই ব্যক্তি ভেতর থেকে দরজা লাগিয়ে ঘরের ভেতরে লাশের পাশে বসে ছিলেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে ও ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে।

গৃহবধূর নাম শাহিনুর আক্তার (৩৮)। তাঁর স্বামীর নাম জাহাঙ্গীর আলম (৪৫)। তাঁরা বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের সাদকপুর গ্রামের বাসিন্দা। জাহাঙ্গীর আলম বরুড়া উপজেলায় আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্য হিসেবে কর্মরত।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ১৮ বছর আগে জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে একই উপজেলার খাড়াতাইয়া গ্রামের ছফর আলীর মেয়ে শাহিনুর আক্তারের বিয়ে হয়। নানা বিষয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ চলছিল। গত বৃহস্পতিবার কর্মস্থল বরুড়া থেকে বাড়ি ফেরেন জাহাঙ্গীর। এরপর পারিবারিক খরচপাতি নিয়ে দুজনের মধ্যে কলহ শুরু হয়। এর ধারাবাহিকতায় রোববার মধ্যরাতে তাঁদের মধ্যে আবার ঝগড়া হয়। সোমবার ভোররাতে ঘুমের মধ্যে শাহিনুরকে পেটান জাহাঙ্গীর। এ সময় শাহিনুর চিত্কার দেন। একপর্যায়ে অচেতন হয়ে পড়েন। এরপর ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি।

শাহিনুরের চিত্কার শুনে বাড়ির লোকজন জড়ো হন। ঘরের দরজা খোলার জন্য বলেন। তবে জাহাঙ্গীর দরজা খোলেননি। তিনি স্ত্রীর লাশের পাশে বসে ছিলেন। বাড়ির লোকদের পুলিশকে খবর দিতে বলেন জাহাঙ্গীর। খবর পেয়ে পুলিশ সকাল ছয়টায় ওই বাড়িতে যায়। এরপর জাহাঙ্গীর ঘরের দরজা খুলে দেন। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। জাহাঙ্গীরকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। ঘটনার বিষয়ে জানতে এই দম্পতির দুই ছেলেকেও থানায় আনা হয়।

বুড়িচং থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাকসুদ আলম বলেন, স্ত্রীকে হত্যার পর বিছানায় লাশের পাশে বসে ছিলেন জাহাঙ্গীর। তাঁকে আসামি করে হত্যা মামলা করেছেন শাহিনুরের বাবা ছফর আলী। ঘটনাটি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।