বৃহস্পতিবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আল্লাহ যাদের রিজিক সম্প্রসারিত করেন

news-image

মাহমুদ আহমদ : হালাল উপার্জন এবং হালাল ভক্ষণের মাঝে যে প্রশান্তি তা অন্য কিছুতে পাওয়া সম্ভব নয়। আমরা অর্থ-সম্পদ উপার্জনের জন্য বৈধ-অবৈধ কতইনা চেষ্টা-প্রচেষ্টা করি। যার আছে সে আরো চাই, চাওয়ার আমাদের শেষ নেই।

বিশ্বজগতের সকলের রিজিকের ব্যবস্থার মালিক হলেন সৃষ্টিকর্তা। তিনি যাকে চান প্রভূত রিজিক দান করেন। আমাদের কাজ হল তার নির্দেশ অনুযায়ী পরিশ্রম করে হালাল উপার্জন করা।

যেভাবে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ ইরশাদ করেন: ‘তুমি বল, নিশ্চয় আমার রব যার জন্য চান রিজিক সম্প্রসারিত করে দেন এবং সংকুচিতও করে দেন কিন্তু অধিকাংশ, লোক তা জানে না।’ (সুরা সাবা : আয়াত ৩৬)

রিজিকে বরকতের মালিকও আল্লাহ, আমাদের কাজ হল হালাল উপার্জনের জন্য চেষ্টা-প্রচেষ্টা করা আর আল্লাহর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করা।

হজরত মাকহুল (রহ.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি এ বাক্যগুলো সাতবার বলবে আল্লাহতায়ালা তার সত্তরটি অভাব দূর করবেন। (তন্মধ্যে) সবচেয়ে হাল্কা বিপদ হলো মানুষের অভাব।

দোয়াটি হলো-‘লা হাউলা ওয়ালা কুওয়্যাতা ইল্লাবিল্লাহ- লা মালজায়া মিনাল্লাহি ইল্লা ইলাইহি।’

অর্থ: আল্লাহর সাহায্য ছাড়া গুনাহ থেকে বিরত থাকা এবং নেক আমলে মশগুল হওয়া সম্ভব না। আল্লাহতায়ালার কাছ থেকে পালিয়ে যাওয়ার কোনো জায়গা নেই। তার কাছেই আশ্রয় গ্রহণ করতে হবে।

আমাদেরকে সব সময় আল্লাহর ওপর ভরসা রাখতে হবে। আমরা যদি আল্লাহর ওপর পূর্ণ ভরসা করে কোন কাজে লেগে যাই আর দোয়া করতে থাকি তাহলে দেখবেন কোথা থেকে রিজিক আসছে তা আমরা কল্পনাও করতে পারব না।

হজরত আবদুল্লাহ ইবন মাসঊদ (রা.) কর্তৃক বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি অভাবে পতিত হয়, অত:পর তা সে মানুষের কাছে সোপর্দ করে তার অভাব মোচন করা হয় না। পক্ষান্তরে যে অভাবে পতিত হয়ে এর প্রতিকারে আল্লাহর ওপর নির্ভরশীল হয় তবে অনিতবিলম্বে আল্লাহ তাকে তড়িৎ বা ধীর রিজিক দেবেন।’ (তিরমিজি )

আমাদের অভাব মোচনের জন্য চাই জাগতিকতাকে প্রাধান্য না দিয়ে আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা রাখা এবং আল্লাহর নির্দেশ মত চলে জীবন পরিচালনা করা।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) কর্তৃক বর্ণিত: রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আল্লাহতায়ালা বলেন, হে আদম সন্তান, আমার ইবাদতের জন্য তুমি ঝামেলামুক্ত হও, আমি তোমার অন্তরকে প্রাচুর্য দিয়ে ভরে দেব এবং তোমার দারিদ্র ঘুচিয়ে দেব। আর যদি তা না কর, তবে তোমার হাত ব্যস্ততায় ভরে দেব এবং তোমার অভাব দূর করব না।’ (তিরমিজি)

অন্যান্য ইবাদতের পাশাপাশি আমাদেরকে সর্বদা ইস্তেগফারে রত থেকে সময় অতিবাহিত করতে হবে। আমরা যদি পবিত্র হৃদয় নিয়ে ইস্তেগফার করি তাহলে আল্লাহতায়ালা আমাদেরকে ক্ষমা করবেন এবং আমাদের রিজিকে প্রভূত বরকত দিবেন।

হাদিসে এসেছে, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) কর্তৃক বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি নিয়মিত ইস্তেগফার করবে আল্লাহ তার সব সংকট থেকে উত্তরণের পথ বের করে দেবেন, সব দুশ্চিন্তা মিটিয়ে দেবেন এবং অকল্পনীয় উৎস থেকে তার রিজিকের সংস্থান করে দেবেন।’ (আবু দাউদ)

আসলে আমাদের মাঝে যখন অভাব দেখা দেয় তখন আল্লাহর দিকে ঝুকি কিন্তু অভাব দূর হওয়া মাত্রই আল্লাহকে ভুলে যাই আর কৃপণতা দেখাই।

হজরত আনাস ইবনে মালেক (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)কে বলতে শুনেছি তিনি ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি কামনা করে তার রিজিক প্রশস্ত করে দেয়া হোক এবং তার আয়ু দীর্ঘ করা হোক সে যেন তার আত্মীয়দের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখে।’ (বোখারি ও মুসলিম)

আসুন, রিজিক বৃদ্ধির জন্য অধিকহারে ইস্তেগফার করি এবং আত্মীয়দের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখি। দয়াময় আল্লাহ আমাদের ক্ষমা করুন আর আমাদের রিজিকে প্রভূত বরকত দিন, আমিন।

লেখক: ইসলামি গবেষক ও কলামিস্ট

এ জাতীয় আরও খবর

রংপুর নগরীতে ইউনানী ওষুধ ফ্যাক্টরিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, ৫ হাজার টাকা জরিমানা

জাতিসংঘে দাঁড়িয়ে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা চাইলেন বাইডেন

সাঁজোয়া কোরের ‘কর্নেল কমান্ড্যান্ট’ হিসেবে অভিষিক্ত হলেন সেনাবাহিনী প্রধান

চলতি বছরের শেষে ফাইভ-জি চালু হবে: সজীব ওয়াজেদ জয়

জিয়ার কবরে খালেদা গেলে রাজনীতিতে ঝড় বয়ে যেত: ডা. জাফরুল্লাহ

বিয়ে করতে যাচ্ছেন সিদ্ধার্থ-কিয়ারা!

জায়েদ খানের অভিযোগে সাইবার ক্রাইমে ইউটিউবারদের তলব

হিন্দু ধর্মের অসম্মান করায় বিতর্কে আলিয়ার বিজ্ঞাপন

সেপ্টেম্বরে হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গুরোগী ছয় হাজার ছাড়ালো

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৪৩ প্রার্থীর জয় নির্বাচনকে ম্লান করেছে

দেনা পরিশোধে ইভ্যালির সঙ্গে কথা বলতে হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

এমডি নিয়োগের ক্ষমতা, প্রতিনিধি চায় আইডিআরএ