মঙ্গলবার, ৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মালয়েশিয়ায় ১০২ বাংলাদেশি অভিবাসী আটক

news-image

তাদের কাছে যে কেবল বৈধ কাগজপত্র ছিল না তাই নয়, তারা যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধিও মেনে চলতেন না । মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের ডেংকিলে ৩০৯ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করেছে দেশটির ইমিগ্রেশন পুলিশ। আটককৃতদের মধ্যে ১০২ জন বাংলাদেশি অভিবাসীও রয়েছেন। সোমবার (২১ জুন) রাত সাড়ে ১২টা থেকে আড়াইটার মাঝে তাদের আটক করা হয়।

মালয়েশিয়ান গণমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, বৈধ কাগজপত্র না থাকার কারণেই ১৯৫৯/৬৩ এর ইমিগ্রেশন আইন এবং ইমিগ্রেশন রেগুলেশন ১৯৬৩ এর আওতায় তাদের আটক করা হয়েছে।

আটককৃতদের মধ্যে ১০২ জন বাংলাদেশি ছাড়াও ১৯৩ জন ইন্দোনেশিয়া, আটজন মিয়ানমার (রোহিঙ্গা), চারজন ভিয়েতনাম, দুইজন ভারতের নাগরিক রয়েছেন। মোট ৩০৯ জনের মধ্যে ২৮০ জন পুরুষ এবং ২৯ জন নারী। তাদের সবার বয়সই ২০ থেকে ৫০ এর মধ্যে। নারীদের মধ্যে সবাই ইন্দোনেশিয়ান।

অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক সেরি ইন্দেরা খায়রুল দাযাইমি দাউদ জানান, স্থানীয় জনগণের কাছ থেকে অভিবাসন বিভাগ তথ্য পায় যে সেখানে আন্দোলন নিয়ন্ত্রণ আদেশের (এমসিও) স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি (এসওপি) লঙ্ঘন করা কিছু ব্যক্তি ছিলেন। পরে তার নেতৃত্বে অভিবাসন বিভাগ, জেনারেল মুভমেন্ট টিম (পিজিএ), জাতীয় নিবন্ধকরণ বিভাগ (জেপিএন), জাতীয় প্রতিরক্ষা বাহিনী এবং শ্রম বিভাগের ১৮৯ কর্মকর্তার স্বমন্বয়ে অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযান শেষে ৭১৫ জন অভিবাসীকে আটকের পর কাগজপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ৩০৯ জন অভিবাসীকে আটক করে নিয়ে যায় ইমিগ্রেশন পুলিশ।

তাদের কাছে যে কেবল বৈধ কাগজপত্র ছিল না তাই নয়, তারা যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধিও মেনে চলতেন না।

এ বিষয়ে দাউদ বলেন, “আমি অভিযানে এসে দেখতে পাই তাদের বসতি ঘন জনবহুল, নোংরা এবং তাতে সঠিক নিষ্কাশননের ব্যবস্থা নেই। তারা এও স্বীকার করেছেন যে একটি ঘরে প্রায় চার থেকে সাত জন লোক বাস করতো”।

তিনি কথা বলেন ইন্দোনেশিয়ান নারীরা কিভাবে অনুপ্রবেশ করে তা নিয়েও। তিনি জানান, “ইন্দোনেশিয়ান নারীরা সামাজিক পরিদর্শন পাস ব্যবহার করে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করে এবং নির্ধারিত সময়ের বাইরে এই দেশে বসবাস অব্যাহত রাখে। এছাড়াও, তারা তাদের স্বামীদের সাথে বসবাস করেন যারা দেশে অবৈধভাবে কাজ করেন।”

তিনি জানান, সিমুনি ক্যাম্পে প্রথমে আটককৃতদের করোনাভাইরাস পরীক্ষার পর তাদেরকে সেমেনিয়াহ ডিটেনশন সেন্টারে পাঠিয়ে দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ৬ জুন মালয়েশিয়ার সাইবারজায়ার একটি ভবন নির্মাণ স্থাপনা থেকে ৬২ বাংলাদেশিসহ ১৫৬ জন অভিবাসীকে আটক করা হয়।