রবিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পদ্মা সেতুর মালামাল চুরির সময় গ্রেফতার ৪

news-image

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুর জাজিরায় পদ্মা সেতুর মালামাল চুরির ঘটনায় চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে মামলা রুজুর মাত্র তিন ঘণ্টার মধ্যে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেছে পুলিশ। এই স্বল্প সময়ের মধ্যে আসামি গ্রেফতার, মামলার আলামত উদ্ধারসহ সকল কাজ সম্পন্ন করা হয়।

বাংলাদেশ পুলিশ সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে এবং ডিজিটালাইজেশনের কারণে এমন অসম্ভব কাজ সম্ভব হয়েছে বলে মামলা তদন্ত পুলিশ কর্মকর্তার দাবি। শরীয়তপুর পুলিশ সুপারের নির্দেশে জাজিরাতে এখন দ্রুত সময়ে সকল মামলার চার্জশিট আদালতে প্রেরণ করা হয় বলে জানান জাজিরা থানার ওসি মোঃ মাহবুবুর রহমান।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, অভিযানকালে জাজিরা থানার বড়কান্দি ইউনিয়নের উত্তর ডবল দিয়া দৌলদিয়া তাহের মাদবরের সড়কের মাথায় গার্ডার ব্রিজ সংলগ্ন জাজিরা মাঝিরঘাট সড়কের উপর অবস্থানকালে একটি ব্যাটারি চালিত ভ্যান গাড়িতে পদ্মা সেতুর কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন সাইজের লোহার রড ১০০ কেজি যাহার মূল্য ৪০০০ টাকা, ৬০ কেজি বিভিন্ন সাইজের লোহার রড মূল্য অনুমান ২৪০০ টাকা, অনুমান ৪০ কেজি লোহার কাচি মূল্য ১৬০০ টাকা, একটি লোহার সেন্টারিং সিট ওজন আনুমানিক ১৫ কেজি মূল্য ৬৫০ টাকা, পদ্মা সেতু শ্রমিকদের ব্যবহৃত সবুজ রঙের একটি হেলমেট জব্দ করা হয়। এসময় জসিম মুন্সি, বিল্লাল গাজী, রঞ্জু মিয়াকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে ভাঙারি ব্যবসায়ী মোহাম্মদ নূরুল ইসলাম মাদবরকে পুলিশ গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করে।

গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, জাজিরা পৌরসভার দক্ষিণ ভেবিয়া কাজিরহাট ভাঙ্গারি দোকানদার, ভাঙ্গা হৃদয় কান্দার নুরুল ইসলাম মাদবর এর দোকানে ওই মালমাল বিক্রির জন্য নিয়ে যাচ্ছিলেন। তারা আরও স্বীকার করেন ইতিপূর্বে কয়েকবার পদ্মা সেতুর লোহার রড চুরি করেছেন।

জাজিরা থানার এসআই অপু বড়ুয়া সকাল সাড়ে ৯ টায় লিখিত অভিযোগ করেন। তার অভিযোগের ভিত্তিতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মফিজুর রহমান তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে দুপুর সাড়ে ১২ টায় আদালতে প্রেরণ করে।

জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মাহবুবুর রহমা জানান, শরীয়তপুর পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুজ্জামান স্যারের নির্দেশে সকল মামলা দ্রুত সময়ে আদালতে চার্জশিট দেওয়ার চেষ্ট করা হয়। এ মামলাটি আমরা দ্রুত সময় গ্রেফতার করে তিন ঘণ্টার মধ্যেই সকল প্রচেষ্টা শেষ করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেছি।