বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

টানা বৃষ্টিতে পাহাড় ধসের আশঙ্কা

news-image

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি :চট্টগ্রামে টানা বর্ষণের কারণে নগরীতে পাহাড় ধসের শঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে পাহাড়ধ্বস ঠেকাতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে বসবাসকারীদের সরাতে রবিবার জেলা প্রশাসন প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিয়েছে। প্রস্তুত করা হয়েছে আশ্রয়কেন্দ্র, ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে সচেতনতা বাড়াতে করা হচ্ছে মাইকিং।

আবহাওয়া অফিস বলছে, রবিবার বিকেল ৩টা পর্যন্ত ৭৯ দশমিক ৪০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রের্কড করেছে পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস। এ বৃষ্টিতে নগরের নিম্নাঞ্চল ছাড়াও অধিকাংশ সড়কে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়।

জানা যায়, চট্টগ্রামে অতি ঝুঁকিপূর্ণ ১৭টি পাহাড়ে বসবাস করছে পাঁচ হাজারের বেশি মানুষ। বর্ষা আসলেই এসব পাহাড় নিয়ে বাড়ে শঙ্কা। তাই সকাল থেকেই জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মামনুন আহমেদ অনীক, মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, মাসুমা জান্নাত ও মোজাম্মেল হক চৌধুরী ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড় থেকে সরে যেতে মাইকিং, দুর্গতদের প্রয়োজনীয় সহায়তা এবং জনসচেতনতায় কাজ করছেন।
জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মামনুন আহমেদ অনীক বলেন, চান্দগাঁও সার্কেলের অধীন মিয়ার পাহাড় এলাকায় মাইকিং করা হয়। তাছাড়া স্বেচ্ছাসেবীগণ দুর্গতদের নিরাপদ স্থানে সরাতে কাজ করেছেন। আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে মতিঝর্ণা এলাকায় রশিদিয়া মাদ্রাসা, লালখান বাজার এলাকায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং শহীদ নগর সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চবিদ্যালয়কে। একশত আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুতির কাজ চলছে।

পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মহানগর সূত্রে জানা যায়, ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে অবৈধভাবে বাস করা পাহাড়ের মধ্যে আছে, বায়েজিদ-ফৌজদার হাট লিংক রোড সংলগ্ন পাহাড়ে ৪০০টি পরিবার, ফয়েজলেক আবাসিক এলাকা সংলগ্ন পাহাড়ে ৯টি পরিবার, পরিবেশ অধিদপ্তর সংলগ্ন রেলওয়ের মালিকানাধীন পাহাড়ে ১০টি পরিবার, আকবরশাহ আবাসিক এলাকা সংলগ্ন পাহাড়ে ২৮টি পরিবার, লেকসিটি আবাসিক এলাকা সংলগ্ন পাহাড়ে ২২টি পরিবার, পূর্ব ফিরোজ শাহ ১নং ঝিল সংলগ্ন পাহাড়ে ২৮টি পরিবার, মধুশাহ্ পাহাড়ে ৩৪টি পরিবার, পলিটকেনিক কলেজ সংলগ্ন পাহাড়ে ৪৩টি পরিবার, কৈবল্যধামস্থ বিশ্ব কলোনীর পাহাড়ে ২৮টি পরিবার, একে খান এণ্ড কোং পাহাড়ে ২৬টি পরিবার, হারুন খান পাহাড়ে ৩৩টি পরিবার, ফরেস্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউট সংলগ্ন পাহাড়ে ৩৩৪টি পরিবার, মতিঝর্ণা ও বাটালিহিল সংলগ্ন পাহাড়ে ১৬২টি পরিবার, লালখান বাজার মাদ্রাসা সংলগ্ন পাহাড়ে ১১টি পরিবার, এম আর সিদ্দীকির পরিবার পাহাড়ে ৮টি পরিবার, মিয়ার পাহাড়ে ৩২টি পরিবার, ভেড়া ফকিরের পাহাড়ে ১১টি পরিবার এবং আমিন কলোনি সংলগ্ন ট্যাংকির পাহাড়ে ১৬টি পরিবার।