বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পাঁচ ছবির লোকসানের আশঙ্কা

news-image

বিনোদন ডেস্ক : গত বছরের দুই ঈদেই বন্ধ ছিল সিনেমা হল। চলতি বছর খোলা থাকলেও ছবি মুক্তির অনুকূল পরিবেশ ছিল না। এ কারণে ‘মিশন এক্সট্রিম’, ‘মিশন এক্সট্রিম ২’, ‘শান’, ‘বিদ্রোহী’, ‘বিক্ষোভ’, ‘অন্তরাত্মা’ ছবিগুলো ঈদের জন্য প্রস্তুত থাকা সত্ত্বেও মুক্তি পায়নি। এ কারণে ছবিগুলো থেকে বিনিয়োগ উঠে আসা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে প্রযোজকদের।

ছবির প্রযোজকেরা জানিয়েছেন, এই ছবিগুলোতে বিনিয়োগ করা হয়েছে প্রায় ২০ কোটি টাকা। বর্তমানে সিনেমা হলের সংখ্যা এবং করোনা সংক্রমণের কারণে দর্শকের উপস্থিতি বিবেচনায় ঈদ ছাড়া এসব ছবি থেকে পুঁজি উঠে আসা অসম্ভব। কিন্তু গত তিন ঈদেই ছবিগুলো মুক্তি দেওয়া যায়নি। এমনকি পরিস্থিতির উন্নতি না হলে আগামী ঈদুল আজহায়ও ছবিগুলো মুক্তির অনিশ্চয়তা কাটছে না।

দীর্ঘদিন ছবিগুলো আটকে থাকার কারণে ছবির গল্পও অপ্রাসঙ্গিক হয়ে যেতে পারে। এসব প্রযোজক নতুন ছবিতেও বিনিয়োগ করতে পারছেন না। ‘মিশন এক্সট্রিম’ ও ‘মিশন এক্সট্রিম ২’ ছবি দুটির বাজেট প্রায় সাত কোটি টাকা। ছবি দুটির প্রযোজক ও পরিচালকদের একজন সানি ছানোয়ার বলেন, ‘দুটি ছবির বাজেটই বড় অঙ্কের। ঈদের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু দুই বছর ধরে ঈদে মুক্তি আটকে যাওয়ায় অনেক বড় ক্ষতি হয়ে গেল। গত বছর ঈদুল আজহায় ছবিটি মুক্তি দিতে পারিনি। তখন থেকেই চিন্তায় পড়ে গেছি। এ ছাড়া এই ছবি দুটিতে স্বল্প মেয়াদে বিনিয়োগ করেছিলেন কয়েকজন। তাঁরা চেয়েছিলেন ছবি মুক্তির পর বিনিয়োগ উঠলে আরেক ছবিতে বিনিয়োগ করবেন। কিন্তু এমন জটিল পরিস্থিতিতে তাঁরা নতুনভাবে সিনেমায় বিনিয়োগে আগ্রহী নন।’

তবে বিকল্প চিন্তাও করছেন এই প্রযোজক। তিনি বলেন, ‘বিকল্প চিন্তা করছি। এখন বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে সিনেমা মুক্তির সুযোগ তৈরি হয়েছে। আন্তর্জাতিকভাবেও ছবি দুটি পরিবেশন করার ইচ্ছা আছে। আন্তর্জাতিক পরিবেশনার প্রক্রিয়া নিয়ে অ্যানালাইসিস করছি।’

এম এ রাহিম পরিচালিত ‘শান’ ছবির বাজেট তিন কোটি টাকার ওপরে। ছবির প্রযোজক আজাদ খান বলেন, ‘দুই বছর ধরে ঈদে ছবিটি মুক্তি দেওয়া গেল না। ঈদ ছাড়া এই ছবি মুক্তি দিলে পুঁজিও উঠে আসবে না। সিনেমার দর্শক ও হলের সংখ্যা বিবেচনা করলে ঈদে মুক্তি দিলেও বিনিয়োগ উঠবে কি না, সন্দেহ আছে। তারপরও আগামী ঈদের জন্য অপেক্ষা করছি।’

শাহীন সুমনের ‘বিদ্রোহী’ ও শামীম আহমেদের ‘বিক্ষোভ’ ছবির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়া সূত্রে জানা গেছে, ছবি দুটিতে বিনিয়োগ করা হয়েছে প্রায় সাড়ে ছয় কোটি টাকা। ছবি দুটির প্রযোজক সেলিম খান বলেন, ‘ঈদ ছাড়া মুক্তি দিলে ছবি দুটি থেকে কোটি টাকাও ওঠাতে পারব না। দিন দিন বাংলাদেশের সিনেমার অবস্থা খারাপ হচ্ছে। প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যাও কমছে।’

গত ঈদুল ফিতরে মুক্তির জন্য তৈরি করা হয় চলচ্চিত্র ‘অন্তরাত্মা’। ছবির পরিচালক ওয়াজেদ আলী জানান, ছবিটির বাজেট প্রায় দুই কোটি টাকা। কিন্তু করোনা সংক্রমণের কারণে ঈদে ছবিটির মুক্তি আটকে যায়। তিনি বলেন, ‘ঈদে মুক্তির জন্যই ছবিটি নির্মাণ করেছি। করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ঈদে মুক্তি দিতে পারিনি। ঈদুল আজহার জন্য এখন অপেক্ষা করতে হবে। ছবিটিতে শাকিব খান আছেন। তাই এই খারাপ পরিস্থিতির মধ্যেও কিছুটা ভরসা পাচ্ছি।’