রবিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী ছোট বড় ব্যবসায়ী উদ্যোক্তাদের অগ্রাধিকার

news-image

অনলাইন ডেস্ক : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আজ জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট পেশ করতে যাচ্ছেন। বর্তমান সরকারের আমলে অর্থমন্ত্রী হিসাবে এটি তার তৃতীয় বাজেট। দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী, ছোট-বড় ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তাদের বিবেচনায় বাজেট সাজিয়েছেন তিনি। করোনা মোকাবিলা ও এর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধার, নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি, বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ানোসহ বাজেটের নানা বিষয়ে বুধবার যুগান্তরের লিখিত প্রশ্নের জবাব দেন অর্থমন্ত্রী। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মিজান চৌধুরী

আ হ ম মুস্তফা কামাল : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ দূরদৃষ্টিতে করোনা মহামারিজনিত সংকটময় পরিস্থিতির ভয়াবহতা অনুধাবন করে সম্ভাব্য অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় চারটি প্রধান কৌশল অবলম্বনের নির্দেশনা দিয়েছিলেন। সেই অনুযায়ী বাজেট পরিকল্পনায় আমরা সরকারি ব্যয়ের ক্ষেত্রে কর্মসৃজনকে প্রাধান্য দিয়েছি এবং বিলাসী ব্যয়ে নিরুৎসাহিত করেছি। দ্বিতীয়ত, ব্যাংকব্যবস্থার মাধ্যমে স্বল্প সুদে কয়েকটি ঋণ সুবিধা প্রবর্তন করেছি, যাতে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড পুনরুজ্জীবিত হয় এবং দেশে-বিদেশে উদ্যোক্তাদের প্রতিযোগিতার সক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। তৃতীয়ত, হতদরিদ্র, কর্মহীন হয়ে পড়া নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠী এবং অপ্রাতিষ্ঠানিক কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত জনগণকে সুরক্ষা দিতে সরকারের সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতা বৃদ্ধি করছি। চতুর্থত, বাংলাদেশ ব্যাংক বাজারে মুদ্রা সরবরাহ বৃদ্ধি করছে যেন প্রয়োজনীয় ঋণপ্রবাহ ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি পায়।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার ভিত্তিতে এ পর্যন্ত ১ লাখ ২৮ হাজার ৪৪১ কোটি টাকার ২৩টি প্রণোদনা প্যাকেজ চালুর ব্যবস্থা করেছি, যা জিডিপির প্রায় ৪.৬ শতাংশ। এই কর্মকাণ্ড করোনার দ্বিতীয় পর্যায়েও চলমান রেখেছি। প্রয়োজনে আরও কর্মসূচি নেব। ঋণ প্যাকেজগুলো যেহেতু পুনঃআবর্তনশীল তহবিল, এখান থেকে পুনরায় নতুন শিল্প ও সেবা খাতে আরও ঋণ দেওয়া সম্ভব হবে। অন্যান্য বরাদ্দ প্রয়োজনে আরও বাড়ানো হবে।

আ হ ম মুস্তফা কামাল : গেল ২০২০ সালটি আমাদের জাতীয় জীবনে ছিল এক বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ বছর। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন করছি, যা এ বছর ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলমান থাকবে। কারণ এ বছর, ২০২১ খ্রিষ্টাব্দে আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান যুগপৎভাবে চলছে। এই বিশেষ বছর, আমরা সবাই আত্মপ্রত্যয়ী ছিলাম। এ বছর আমরা আমাদের অর্থনীতিতে দেশের সেরা প্রবৃদ্ধিটি জাতিকে উপহার দেব। এক্ষেত্রে আমাদের ঈপ্সিত লক্ষ্যমাত্রাটি ছিল শতকরা ৮.২ ভাগ। সে অনুযায়ী আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনা অনুযায়ী গতানুগতিক বাজেটের বাইরে গিয়ে বাজেট দিয়েছি, যা শুধু আকারে বড় নয়, গুণগত মানেও অন্যান্য বছরের তুলনায় ভিন্ন। এ বাজেটে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় প্রণোদনা প্যাকেজসহ করণীয় সব বিষয় এর মধ্যে এনেছি। এতে আমাদের অর্থনৈতিক সংস্কার কার্যক্রমগুলো সংযুক্ত করেছি। অর্থনীতির পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যেই আমরা মনে করি সংস্কার করা প্রয়োজন ছিল, তা অনেকাংশেই এসেছে। আমি বিশ্বাস করি, সামনের দিনগুলোয় মানুষের জীবন-জীবিকা রক্ষার্থে আমাদের অর্থনীতির সব এলাকায় গৃহীত সংস্কার কার্যক্রম ও প্রদত্ত নীতি-সহায়তা সব একে একে বাস্তবায়ন করে চলেছি। প্রবাস আয়ে ২% প্রণোদনা, তৈরি পোশাকের সব খাতে নগদ প্রণোদনা সহায়তা, খেলাপি ঋণ হ্রাস, ফিন্যান্সিয়াল টুলসের পরিমাণ বৃদ্ধিকরণ, ব্যাংক, আর্থিক, রাজস্ব খাত সংস্কারের অংশ হিসাবে একাধিক বিদ্যমান আইন সংশোধন ও নতুন আইন প্রণয়ন, ৯ শতাংশের নিচে সুদহার নামিয়ে আনা, সঞ্চয়পত্র ডিজিটালাইজেশন, আর্থিক খাতের জন্য উচ্চ আদালতে পৃথক বেঞ্চ গঠন, রাজস্ব খাতের অটোমেশন ইত্যাদি অনেক পদক্ষেপেই ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নতি ঘটছে। পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতে বিনিয়োগ বাড়ছে। ফলে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচ্ছে, মানুষের জীবিকা রক্ষা পাচ্ছে বলেই আমার বিশ্বাস।

আ হ ম মুস্তফা কামাল : গত কয়েক বছরে আমাদের অর্থনৈতিকে এলাকায় আমরা যেমন উন্নতি করতে পেরেছি, তা প্রবৃদ্ধির দিকে তাকালে বুঝতে পারব। ব্রিটেনের স্পেকটেটর ইনডেক্স অনুযায়ী, ২০০৯-২০১৯ সাল পর্যন্ত আমাদের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৮৮%, যা পৃথিবীতে সর্বোচ্চ। ২০১৫-১৬, ২০১৬-১৭ ও ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশের উপরে ছিল এবং ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৮.২ শতাংশ দাঁড়ায়। করোনার মধ্যেও ৫.২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি, যা ছিল এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি, যেখানে অনেক দেশেই অর্থনীতি সংকুচিত হয়েছে। মুদ্রাস্ফীতি ছিল ৫ শতাংশের ঘরে সহনীয় পর্যায়ে। ব্যাংক ঋণের সুদের হার ৭.৪ শতাংশে নেমে এসেছে। ২০০৫-০৬ অর্থবছরে আমাদের মাথাপিছু আয় ছিল ৫৪৩ মার্কিন ডলার, বর্তমানে যা ২ হাজার ২২৭ ডলারে উন্নীত হয়েছে। এছাড়া জিডিপির আকার ৪ লাখ ৮২ হাজার ৩৩৭ কোটি থেকে ৩০ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ ৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অতিক্রম করেছে, যা দিয়ে আমরা ৯ মাসের আমদানি ব্যয় মেটাতে পারব। রেমিট্যান্স প্রবাহে ৪০%, রপ্তানিতে ৮.৭% এবং রাজস্ব আহরণে ১২.৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন আমাদের অর্থনীতির সক্ষমতার বহিঃপ্রকাশ।

এমন অর্থনৈতিক অবস্থান বিবেচনায় নিয়ে আমরা বাজেটটি দেশের সব প্রান্তিক জনগোষ্ঠী, ছোট-বড় সব ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তার বিবেচনায় নিয়ে সাজিয়েছি। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রভাব বিবেচনায় আগামী বাজেটে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার থাকবে-স্বাস্থ্য খাত; কোভিড-১৯ মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজসমূহের বাস্তবায়ন; কৃষি যান্ত্রিকীকরণ, সেচ ও বীজে প্রণোদনা, কৃষি পুনর্বাসন ও সারে ভর্তুকি প্রদান; সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের আওতা সম্প্রসারণ; গৃহহীন দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য গৃহনির্মাণ এবং নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে বিনা/স্বল্পমূল্যে খাদ্য বিতরণ কর্মসূচি।

আ হ ম মুস্তফা কামাল : কর-জিডিপি অনুপাত বাংলাদেশে তুলনামূলক কিছুটা কম। কিন্তু কর-জিডিপি অনুপাতে পেছনে থাকার একটা বড় কারণ যেটা অনেকেই বলেন না যে, বাংলাদেশের মতো এত বিশাল পরিমাণ রাজস্ব ছাড় অন্য কোনো প্রতিবেশী দেশে দেওয়া হয় না। আমাদের সব মেগা, ফাস্ট ট্র্যাক ও অধিকাংশ বড় প্রকল্পের জন্য ক্রয়কৃত পণ্যে বিপুল পরিমাণ কাস্টমস ডিউটি ও ভ্যাট মওকুফ করা হয়। সরকারি হিসাবের এক অ্যাকাউন্ট থেকে আরেক অ্যাকাউন্টে বুক ট্রান্সফার না করার দরুন অনাদায়ী ট্যাক্সের হিসাবও নেওয়া হয় না। এছাড়া দেশীয় অনেক শিল্প রক্ষার্থেও বড় অঙ্কের রাজস্ব ছাড় দেওয়া হয়। আমাদের এসব অনাদায়ী রাজস্ব আদায় করলে আমাদের রাজস্ব-জিডিপি অনুপাত প্রকৃত হিসাবে এখন ১৪-১৫ শতাংশ হতো। সবার এটাও মনে রাখা উচিত ২০০৬-০৭ সালে রাজস্ব-জিডিপি অনুপাত ছিল ৮.৭ শতাংশ। সেখান থেকে আমরা করোনার আগের বছর পর্যন্ত ১০.১ শতাংশে উন্নীত করতে পেরেছিলাম। ২০০৯ সাল থেকে শুরু করে করোনার আগের ১০টি অর্থবছর আমাদের রাজস্ব আদায়ে বার্ষিক গড় প্রবৃদ্ধি ছিল ১৪.৬ শতাংশ। যেখানে ২০০৬-০৭ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি ছিল মাত্র ৮.৬ শতাংশ। এ বছর আমাদের রাজস্ব আহরণের প্রবৃদ্ধি প্রায় ১৩ শতাংশ। আমাদের রাজস্ব খাতের অবস্থা ভালো না হলে এ অর্জন কোথা থেকে এসেছে।

তারপরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা দেশের কর-জিডিপি হার বাড়ানোর লক্ষ্যে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বাড়ানোর দিকে বিশেষ নজর দিয়েছি। সে লক্ষ্যে কর প্রশাসনে স্বচ্ছতা বৃদ্ধি ও গতিশীলতা আনয়নের জন্য আমরা শুল্ক ও কর রাজস্ব খাতে বিভিন্ন সংস্কারমূলক কার্যক্রম গ্রহণ করেছি। ২০১৯ সালের জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন করেছি। ভ্যাট ব্যবস্থার অটোমেশনে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। অনলাইন ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন ও অনলাইন ভ্যাট রিটার্ন দাখিল ব্যবস্থা চালুর পর সর্বশেষ গত ২০২০ সালের ১৬ জুলাই থেকে পাইলট ভিত্তিতে ইলেকট্রনিক পেমেন্ট বা ই-পেমেন্ট ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। ভ্যাট ফাঁকি রোধে এবং ভ্যাট আহরণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে ৫ লাখ ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস বা ইএফডি মেশিন স্থাপনের টার্গেট নিয়ে সরকার কাজ করছে। এছাড়া অচিরেই মহান জাতীয় সংসদে নতুন কাস্টমস আইন পাশ হবে। এটি বাস্তবায়ন হলে কাস্টমস প্রসেস সহজীকরণ হবে, ফলে কাস্টমস শুল্ক আহরণে গতি সঞ্চার হবে। ২০২১ সালের মধ্যে কাস্টমস বন্ডেড ব্যবস্থাপনাকে অটোমেশনের আওতায় আনয়নের জন্য প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। সব আমদানি-রপ্তানি ব্যবস্থা স্ক্যানিং মেশিনের আওতায় আনার জন্য সরকার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। আয়কর রিটার্ন দাখিল প্রক্রিয়াকে আপগ্রেড করার কাজ চলছে। আগামী বছরগুলোতে আয়কর দাতার সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য এনবিআর জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা এবং দেশব্যাপী আয়কর মেলার আয়োজন করছে। এসব সংস্কার কার্যক্রম সফলভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমাদের কর-জিডিপি অনুপাত আরও বাড়বে বলে আমি আশাবাদী।

আ হ ম মুস্তফা কামাল : ২০১৯-২০ অর্থবছরে বিনিয়োগ-জিডিপি অনুপাত ছিল ৩১.৭৫ শতাংশ, যা অর্থ বিভাগ থেকে চলতি অর্থবছরে প্রাক্কলন করা হয়েছে প্রায় ৩২.৩ শতাংশ। ৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা শেষে সরকার বিনিয়োগ-জিডিপি অনুপাতের লক্ষ্যমাত্রা ৩৬.৯৯ শতাংশ হবে বলে আশা করছি। সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সময় আপনি যদি পারফরম্যান্সের দিকে নজর দেন তবে আমাদের সরকারি বিনিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা ৭.৮% ছাড়িয়েছি এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৮.১২% অর্জন করেছি। সামগ্রিক বিনিয়োগ-জিডিপি অনুপাত পাঁচ বছরে ২৯.৭% থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ৩১.৭৫%, যা ৭ম পরিকল্পনার টার্মিনাল বছরে কোভিড-১৯ মহামারি সত্ত্বেও লক্ষণীয় অর্জন। আমরা প্রত্যাশা করছি যে, আমাদের শতাধিক বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং ২৮টি হাইটেক পার্কগুলো সম্পন্ন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বেসরকারি খাতের বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়বে।

আমাদের অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক এলাকাগুলোর প্রায় সবটাই মূল অর্থনীতির স্রোতধারায় নিয়ে আসতে পেরেছি। এর পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নের আওতায় কোভিড-১৯ মহামারিজনিত কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সব অর্থনীতির এলাকায় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ক্রমেই আমাদের অর্থনীতির অবস্থা আগের প্রবৃদ্ধির ধারায় ফিরে আসছে। সরকার সর্বদাই ব্যবসাবান্ধব এবং বেসরকারি ক্ষেত্রের সমর্থক। আমরা দেশি-বিদেশি প্রত্যক্ষ বিনিয়োগের জন্য বেসরকারি বিনিয়োগগুলো টানতে প্রয়োজনীয় এবং ধারাবাহিক নীতি গ্রহণ করছি। আমাদের সামগ্রিক কৌশলগুলো হলো-বিচক্ষণ সামষ্টিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা, স্থিতিশীল মূল্যবৃদ্ধির হার নিশ্চিতকরণ, স্থিতিশীল এবং প্রতিযোগিতামূলক বিনিময় হার বজায় রাখা, বেসরকারি খাতকে পর্যাপ্ত ঋণ প্রবাহ নিশ্চিতকরণ, প্রয়োজনীয় অবকাঠামোর উন্নয়ন যেমন দক্ষ জনসাধারণ তৈরি, বিনিয়োগের মাধ্যমে বিদ্যুৎ, পরিবহণ ও যোগাযোগ উন্নয়ন এবং ব্যবসায় সহজীকরণ। অতীতের অভিজ্ঞতা এবং বেসরকারি খাতের জন্য বর্তমান আমাদের নীতিগত সহায়তার ভিত্তিতে, আমি নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির বিষয়ে যথেষ্ট আশাবাদী।