সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পূর্বাঞ্চলের সবচেয়ে বড় ধানের মোকাম আশুগঞ্জে জমে উঠেছে বেচাকেনা

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ পূর্বাঞ্চলের সবচেয়ে বড় ধানের মোকাম জমে উঠেছে নতুন ধানের আমদানিতে। গত এক মাস ধরে হাটে নতুন মৌসুমের ধান উঠছে। বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে৩০/৩৫ হাজার মণ ধান বেচাকেনা হচ্ছে গড়ে এই হাটে। কাঁক ডাকা ভোরের আলো ফুটতেই ভেঙে যায় মেঘনাপাড়ের নিস্তব্ধতা। বেপারীদের হাকডাকে যেন প্রাণ ফিরে পায় বিওসি ঘাট।গত এক মাস ধরে হাটে নতুন মৌসুমের ধান উঠছে। পর্যাপ্ত ধান উঠার ফলে বাজারে চালের দামও এখন স্থিতিশীল।
ধানের হাট সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিদিন ভোরে হাওরাঞ্চল থেকে নৌকায় করে বেপারীরা ধান নিয়ে আসেন। এরপর সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চলে বেচাকেনা। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চালকল মালিকরাই এই হাটের মূল ক্রেতা। এ জেলায় চালকল রয়েছে তিন শতাধিক। এর মধ্যে আশুগঞ্জ উপজেলাতেই আছে অন্তত আড়াইশ চালকল। প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষের আনাগোনা হয় বিওসি ঘাটের এই ধানের মোকামে। শতবছর আগ থেকে বিওসি ঘাটে ধানের হাট বসছে। প্রথম দিকে হাটের আকার ছোট ছিল। তখন শুধুমাত্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আশপাশ এলাকার ধান হাটে বিক্রি হতো। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে হাটের পরিধিও বেড়েছে। এখন কিশোরগঞ্জ, ময়মনসিংহ, নেত্রকোণা, সুনামগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার হাওরাঞ্চলে উৎপাদিত ধান মেঘনাপাড়ের এই হাটে বেচাকেনা হয়।
হাটে ধান বিক্রি করতে আসা ইউসুফ মিয়া বলেন, নতুন হীরা ধান প্রতিমণ বিক্রি হচ্ছে ৮৩০ থেকে ৮৫০ টাকায়, বিআর-২৯ বিক্রি হচ্ছে ১০৪০ থেকে ১০৭০ টাকা এবং বিআর-২৯ ধানের দাম ৯২০ থেকে ৯৫০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। যদিও ধানের এই দামকে স্বাভাবিকের তুলনায় কিছুটা বেশি বলে মনে করছেন চালকল মালিকরা। তাদের মতে, প্রত্যেক জাতের ধানের দাম মণপ্রতি আরও ১০০ টাকা করে কমলে হাটে বেচাকেনা দ্বিগুণ হবে।
চাল ব্যবসায়ী বজলু মিয়া জানান, তিনি একটি চালকল ভাড়া নিয়ে চালের ব্যবসা করেন। হাট থেকে ধান কিনে চালকলে নিয়ে গিয়ে চাল তৈরি করে বাজারে সরবরাহ করেন। ভারতীয় চালের তুলনায় দেশি চালের দাম কিছুটা কম। ফলে দেশি চালের চাহিদা বেশি। তাই ধানের হাটের বেচাকেনাও ভালো।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আশুগঞ্জ উপজেলা চালকল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হেলাল সিকদার বলেন, ‘নতুন ধান আসার পর আমাদের সবগুলো বন্ধ চালকল আবার চালু করা হয়েছে। বাজারে দেশি চালের চাহিদাই বেশি।