শনিবার, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রাকৃতিকভাবে রক্তে কোলেস্টেরল কমানোর উপায়

news-image

অনলাইন ডেস্ক : আজকাল কমবেশি সবাই প্যাকেজজাত এবং ভাজাপোড়া খাবারের প্রতি ঝুঁকে পড়ছে। এ কারণে অধিকাংশই উচ্চ কোলেস্টেরলের সমস্যায় ভুগছেন। ফলাফল হৃদ্‌রোগ এবং এ সংক্রান্ত রোগ বেড়ে যাওয়া।

তাই নিয়মিত খাদ্যতালিকায় কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা প্রয়োজন এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট- মাংস, দুগ্ধজাত খাবার, চকোলেট, ভাজা খাবার, প্রক্রিয়াজাত খাবার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

এগুলোর পরিবর্তে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে এমন প্রাকৃতিক খাবার গ্রহণ করতে হবে। নিচের খাবারগুলো প্রাকৃতিকভাবে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে-

শস্যজাতীয় খাবার: এগুলো ফাইবার এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদানে সমৃদ্ধ; যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং হার্ট সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। তবে সাদা এবং পরিশোধিত শস্যজাতীয় খাবারে পুষ্টির মান কম এবং স্বাস্থ্য ও হার্টের জন্য ক্ষতিকর।

কম চর্বিজাতীয় খাবার: চর্বিহীন মাংস, চামড়াহীন মুরগি, মাছ, কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত খাবার এবং ডিম প্রোটিনের ভালো উৎস। কিছু মাছ ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ যা রক্তের চর্বির পরিমাণ কমিয়ে দেয়। আখরোট এবং সয়া বীজ, ডিম এগুলো কোলেস্টেরলের উপর প্রভাব ফেলে না।

ফল-শাকসবজি: এগুলোতে উচ্চমাত্রায় আঁশ থাকে। কিছু আঁশ কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। বিভিন্ন রকমের ডাল, মিষ্টি আলু, ঢ্যাঁড়স, ব্রোকলি, আপেল, স্ট্রবেরি এগুলো আঁশ সমৃদ্ধ খাবার।

বাদাম: বাদাম আনস্যাচুরেটেড চর্বির ভালো উৎস এবং এটি স্যাচুরেটেড চর্বির পরিমাণ কমায়। এই দুইয়ের মিশ্রণ কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে।

ওটস: শস্যজাতীয় এই খাবার বেটা গ্লুটেন- ৩জি নামে এক ধরনের ফাইবার রয়েছে। দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় এই খাবার রাখলে কোলেস্টরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

স্বাস্থ্যকর তেল: অলিভ অয়েল এবং মাস্টার্ড অয়েল স্বাস্থ্যকর এতে আনস্যাচুরেটেড চর্বি রয়েছে এবং এটি কোলেস্টরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। নারকেল এবং পাম অয়েল উচ্চমাত্রায় স্যাচুরেটেড ফ্যাট সমৃদ্ধ। কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণের জন্য অস্বাস্থ্যকর চর্বি খাওয়া কমাতে হবে। বাটার, চিজ স্যাচুরেটেড এবং পরিশোধিত তেল কম পরিমাণে খেতে হবে।

উচ্চমাত্রায় ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর