মঙ্গলবার, ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রাণঘাতী অস্ত্র যখন গামছা

news-image

অনলাইন ডেস্ক : দুবাইয়ে কাঠমিস্ত্রি হিসেবে কাজ করতেন ৩৫ বছর বয়সী সুভাষ চন্দ্র সুত্রধর। গত বছরের নভেম্বরের শেষের দিকে দেশে ফিরে তিনি লকডাউনে আটকে পড়েন। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে অবশেষে ৮ মে তার দুবাই যাওয়ার টিকেট নিশ্চিত হয়। সেই উদ্দেশ্যে তিনি ৫ মে সন্ধ্যায় গ্রামের বাড়ি বগুড়ার মোকামতলা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হন। সেদিন গভীর রাতে রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় পূর্বাচলমুখী ফ্লাইওভারে তার রক্তাক্ত মৃতদেহ পাওয়া যায়। তদন্তে বেরিয়ে এসেছে, ‘গামছা পার্টি’র সদস্যদের হাতে খুন হন তিনি। সঙ্গে থাকা টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে তাকে হত্যা করা হয়।

খিলক্ষেত থানার এ মামলাটির ছায়াতদন্ত করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ডিবি গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, কুড়িল-বিশ্বরোড ফ্লাইওভার ও পূর্বাচল ৩০০ ফুট এক্সপ্রেসওয়ে এলাকা কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ। সেখানে নানা ধরনের নির্মাণকাজ চলছে। এ কারণে আলোকবাতি, সিসি ক্যামেরা ইত্যাদির অভাব আছে। সেইসঙ্গে ওই এলাকায় রাস্তা প্রশস্ত ও ফাঁকা হওয়ায় অপরাধীরা নির্বিঘ্নে পালিয়ে যেতে পারে। এই সুযোগটাই নিয়েছে ছিনতাইকারীরা।

ডিবি সূত্র জানায়, গভীর রাতে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় অনেক যাত্রী বিভিন্ন গন্তব্যে যাওয়ার জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশা, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার বা মালবাহী পিকআপে ওঠেন। এর মধ্যে কিছু থাকে ছদ্মবেশী ছিনতাইকারীদের বাহন। গণপরিবহন স্বল্পতার সুযোগ নিয়ে চক্রের একজন গাড়িচালক সেজে বসে থাকে। তার তিন-চারজন সহযোগী থাকে যাত্রীর ভূমিকায়। উপযুক্ত টার্গেট খুঁজে পেলে তাকে গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার নামে গাড়িতে তোলা হয়। এরপর চলন্ত গাড়িতে প্রথমে তার শরীরের সংবেদনশীল স্থানে আঘাত করা হয়। সেইসঙ্গে চলে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি। একপর্যায়ে সঙ্গে থাকা গামছা দিয়ে হতভাগ্য ব্যক্তির শ্বাসরোধ করা হয়। ছিনিয়ে নেওয়া হয় তার টাকা, স্বর্ণালঙ্কার ও মোবাইল ফোন। আর ভুক্তভোগী বাধা দিলে তাকে হত্যা করে লাশ ফেলে দেওয়া হয়। এর আগে কুড়িল ফ্লাইওভার থেকে এমন একাধিক লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পূর্বাচলগামী ৩০০ ফুট রাস্তা, পাশের খাল ও মগবাজার ফ্লাইওভারের ওপর এবং নিচেও এরকম লাশ পাওয়া গেছে। দীর্ঘদিন ধরেই এসব চক্র মানুষের সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়ে আসছে। তবে তাদের সঙ্গে কোনো অস্ত্র বা সন্দেহজনক কিছু না থাকায় বেশিরভাগ সময় নিরাপদে চেকপোস্ট পেরিয়ে যায়। অথচ অতি সাধারণ গামছাকেই তারা প্রাণঘাতী অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে।

তদন্ত সংশ্নিষ্টরা জানান, ২০১৩ সাল থেকে দুবাইয়ে কাজ করে আসছিলেন সুভাষ। মাঝে ২০১৮ সালের শেষের দিকে একবার দেশে আসেন। সর্বশেষ এসেছিলেন মূলত বিয়ে করার উদ্দেশ্যে। বিয়ের পর আর নির্ধারিত সময়ে ফিরতে পারেননি লকডাউনের জন্য। সর্বশেষ যখন বিদেশ যাওয়ার সুযোগ হলো, স্বজনদের বিদায় জানিয়ে রওনা হয়েছিলেন। কিন্তু কে জানত এটাই হবে তার অন্তিমযাত্রা।