শুক্রবার, ১৪ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রংপুর মেডিকেল : চিকিৎসাসেবা না পেয়ে হাসপাতাল ছেড়ে বাড়ি ফিরছেন রোগীরা

news-image

রংপুর ব্যুরো : করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় চলমান দ্বিতীয় দফার লকডাউন পরিস্থিতিতে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতিনিয়তই কমছে রোগীর সংখ্যা। এর ফলে বেশির ভাগ ওয়ার্ড ফাঁকা অবস্থায় রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, বেশির ভাগ রোগী ঠিকমতো চিকিৎসাসেবা না পাচ্ছে না। এতে করে হাসপাতাল ছেড়ে বাড়ি ফিরছেন চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা। আবার কেউ হাসপাতাল ছাড়ছেন করোনা আতঙ্কে।সরেজমিনে হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় অধিকাংশ ওয়ার্ডই ফাঁকা। দিন গড়িয়ে সন্ধ্যা হলেই হাসপাতালে নামছে ভুতুড়ে পরিবেশ। অথচ করোনা পরিস্থিতি ও লকডাউনের আগে হাসপাতালে সবসময় বিভিন্ন ওয়ার্ড ও মেঝেতে শয্যাশায়ী রোগীদের দেখা গিয়েছিল। রোগী আর স্বজনদের উপচে পড়া ভিড় ছিল।

হাসপাতালে প্রবেশের পথেই চোখে পড়ে অ্যাম্বুলেন্সে করে এক রোগীকে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন তার স্বজনরা। একটু কাছে গিয়ে রোগীর সুস্থতার কথা জানতে চাইলে চিকিৎসাসেবা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন জীবন মিয়া নামের এক ব্যক্তি। তিনিন জানান, তার বাড়ি লালমনিরহাটের তিস্তা মোস্তফী এলাকায়। চারদিন আগে তার বৃদ্ধ বাবা আহাদ আলীকে অসুস্থ অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। ঠিকমত চিকিৎসা না পাওয়ার কারণে বাবাকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন।তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হাসপাতালে যদি ঠিকমতো চিকিৎসা দেয়া না হয়। রোগীর যদি কোনো উন্নতি না হয়, তাহলে হাসপাতালে থেকে কী লাভ? এখানে নামমাত্র চিকিৎসা চলছে।বেশির ভাগ ওষুধ বাহিরে থেকে কিনতে নিতে হচ্ছে। করোনার কারণে চিকিৎসকরা ঠিকমতো রোগী দেখছেন না। বড় চিকিৎসকরা হাসপাতালে নেই। নার্স ও ইন্টার্ন চিকিৎসকরা করোনা আতঙ্কে রোগী দেখেন না।

হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে কথা হয় লালমনিরহাটের কালিগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার এলাকার নিয়াজ আহমেদের সাথে। তিনি বলেন, দালালের কারণে হাসপাতালে রোগীর চিকিৎসার খরচ বেশি। কথায় কথায় বিভিন্ন পরীক্ষা করতে দেওয়া হয়। সবই কিছু হাসপাতালের বাহির থেকে করা লাগে। এখানে প্রয়োজনের সময়ে ওষুধ নেই, চিকিৎসক নেই। মানুষ সরকারি হাসপাতালে তাহলে কেন আসবে?সরেজমিনে হাসপাতালের বহির্বিভাগে গিয়ে দেখা গেছে, নিত্যদিনের ভিড় নেই। কমে গেছে রোগী। অধিকাংশ ওয়ার্ড ফাঁকা। অথচ ১০০০ শয্যা বিশিষ্ট এ হাসপাতালে সবসময়ই দ্বিগুণ রোগী ভর্তি থাকতেন। কিন্তু সম্প্রতি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর রোগীর সংখ্যা কমে প্রায় অর্ধেকে নেমেছে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, বর্তমানে শুধু গুরুতর অসুস্থ রোগী হাসপাতালে আসায় চাপ অনেক কমে গেছে। মূলত করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতি এবং কঠোর লকডাউন পরিস্থিতিতে দুর্ভোগের আশঙ্কা থেকে গুরুত্বপূর্ণ নয়, এমন রোগীদের হাসপাতালে আসা কমে গেছে। এছাড়া করোনার সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে আগের মতো রোগীর সঙ্গে আত্মীয়-স্বজনদের ভিড় নেই।
রোগীর স্বজনরা জানান, হাসপাতালে বিভিন্ন ধরনের রোগী আসছে। কেউ চিকিৎসা পাচ্ছেন, আবার কেউ কেউ ঠিকমতো সেবা পাচ্ছেন না। রোগী ও চিকিৎসক সবার মধ্যে করোনা ভীতি রয়েছে। করোনা আতঙ্কে কেউ কেউ হাসপাতাল ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। আবার অনেকেই চিকিৎসাসেবা না পেয়ে বাধ্য হয়েই হাসপাতাল ছেড়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন।গাইবান্ধার সাদুল্লাহপুর থেকে চিকিৎসা নিতে এসেছেন নুর জাহান বেগম। তিনি বলেন, গত পরশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। এখানে চিকিৎসাব্যবস্থা এতটাই খারাপ, আগে জানলে বাসায় থাকতাম। ঠিকমতো চিকিৎসক খোঁজখবর নিচ্ছেন না। মাঝেমধ্যে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা আসছেন। কিন্তু তারা ছাড়পত্র দিয়ে বাড়ি চলে যেতে উৎসাহিত করছেন।

মেডিসিন বিভাগের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের রোগী সালামের স্ত্রী মিনারা বেগম বলেন, গত ১৫ এপ্রিল রাতে হঠাৎ অসুস্থ হন আমার স্বামী। পরে কালিগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করালে সেখানে তার শরীরের অবনতি হলে রংপুরে নিয়ে আসি। কিন্তু এখানে আসার পর চিকিৎসাব্যবস্থার বেহাল দশায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছি। রোগীর জ্ঞান ফেরেনি, সেই রোগীকে বাড়ি নিয়ে যেতে বলেন চিকিৎসকরা। কিন্তু উপায় না পেয়ে হাতেপায়ে ধরে এখনো হাসপাতালে রয়েছি।হাসপাতালের নিউরোলজি, হেমাটোলজি, ফিজিক্যাল মেডিসিন, লিভার হেপাটোলজি, চর্ম ও যৌন রোগ, মানসিক এবং রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগের রোগীদের জন্য ৭ নম্বর ওয়ার্ড নির্ধারিত। ৩৯ বেডের বিপরীতে বর্তমানে রোগী কয়েকজন। একই অবস্থা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ও নেফ্রোলজি (কিডনি) ওয়ার্ডসহ অন্যান্য ওয়ার্ডের।

সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের স্টাফ নার্স এবং ওয়ার্ড ইনচার্জরা জানান, রোগীদের সঙ্গে আমরাও করোনা আতঙ্কে রয়েছি। কারণ সেবিকারও ঠিকমতো নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেই। কঠোর বিধিনিষেধের কারণে রোগীর চাপ কমেছে। যেখানে সবসময় দ্বিগুণ রোগী ভর্তি থাকত। চিকিৎসা দিতে হিমশিম লেগে যেত। এখন রোগী অনেক কম। গত বছরও করোনা মহামারির শুরুর দিকে এমন অবস্থা হয়েছিল।

রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. রেজাউল হক বলেন, চিকিৎসা পাচ্ছেন না, এমন অভিযোগ তো কেউ করেনি। তবে করোনার সংক্রমণ ঝুঁকিরোধে চিকিৎসক ও ইন্টার্নরা সমন্বয় করে কাজ করছেন। একসঙ্গে তাদের সবাই হাসপাতালে উপস্থিত থাকলে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এছাড়া বিধিনিষেধের কারণে আগের মতো কম গুরুত্বপূর্ণ রোগীরা হাসাপাতালে ভর্তি হচ্ছেন না। এ কারণে রোগীর চাপ কমে গেছে।

এ জাতীয় আরও খবর

উপহারের ৩০ হাজার টিকা চেয়েছে চীনা দূতাবাস

ঈদ ফিরতি যাত্রা নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সুপারিশ

ঈদের দিন ঘরেই কেটেছে রাজনীতিকদের

সালমানের সিনেমা দেখতে দর্শকের চাপে সার্ভার ডাউন

বাইডেনের সঙ্গে ফোনালাপ : আক্রমণ বাড়ানোর ঘোষণা নেতানিয়াহুর

ঈদের ছুটিতে অতিথির জন্য তেহারি

তিন দিন ধরে পানি নেই, হুমায়ুন রোডের সরকারি ভবনে ঈদ পণ্ড!

দূরপাল্লার যানবাহন চালুর দাবি শাজাহান খানের

ডিএনসিসি হাসপাতালে ২ রোগীর শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট

দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ২৬ জনের মৃত্যু

ঈদ পরবর্তী শহরমুখী জনস্রোত উদ্বেগের কারণ হতে পারে : কাদের

দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বান রাষ্ট্রপতির