বৃহস্পতিবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কম খরচে বেশী লাভ, খুশি রংপুরের চরাঞ্চলের বাদাম চাষিরা

news-image

রংপুর ব্যুরো : রংপুরের গংগাচড়া, পীরগাছা ও কাউনিয়া উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত তিস্তার চরাঞ্চল জুড়ে এবার বাদামের ব্যাপক চাষ হয়েছে। কম খরচে বেশী লাভ হয় বলে এবার চরের চাষীরা বাদামের দিকে ঝুঁকেছে। লাভবান হয়ে চাষীরাও খুশি।জানা গেছে, রংপুরের এই তিন উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত তিস্তা নদীতে মাইলের পর মাইল চর পড়েছে। প্রায় শতাধিক চরে বন্যার পর চরের মাটিতে পলি জমায় মাটি র্উবর হওয়ায় অতিরিক্তি সার, সেচ, কীটনাশক দিতে হয় না। ফলে বীজ রোপণে তিন মাসের মধ্যেই বাদাম তোলা হচ্ছে। চরজুড়ে এখন বাদাম তোলার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন চাষিরা। উৎপাদিত বাদামের মান ভালো হওয়ায় প্রতি বছরই দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা এসে এখান থেকে বাদাম কিনে নিয়ে যায়।

সরেজমিনে গংগাচড়া উপজেলার চর চিলাখাল, মানুষ খাওয়ার চর, নেল্টার চর, মহিপুর, লক্ষীটারি, চর ইছলী, চালাপাক চর, মর্ণেয়া, গজঘন্টার চর, নোহালী, কোন্দকোন্দর চর, কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ চর চতুরা, নাজিরাদহ, গড্ডিমারী, চর হরিশ্বর, প্রাণনাথ চর, গোপিডাঙার চর, বুড়িরহাট, টেপামধুপুর চর ও পীরগাছা উপজেলার ছাওলা, হাশিম, তাম্বুলপুরসহ বিভিন্ন চরে এবার বাদামের চাষ হয়েছে।রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এ বছর রংপুর জেলায় ৩৯০ হক্টের জমিতে বাদাম চাষ করা হয়েছে, গত বছর ছিল ২৫০ হক্টের জমিতে চাষ হয়েছিল। জেলায় এখন স্থানীয় জাতরে বভিনি নামে বাদামের চাষ হচ্ছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সহায়তায় জেলায় বাদাম চাষ সম্প্রসারণের জন্য কৃষকদের মাঝে বীজ, সার, কীটনাশকসহ নানা ধরনের উপকরণ দেয়া হয়েছে।

কাউনিয়ার প্রাণনাথ চরের চাষী আতিয়ার রহমান বলেন, গতবার চরের ৩ একর জমিতে বাদাম চাষ করতে সব মিলে খরচ হয়েছে ৪৮ হাজার টাকা। বিক্রি করেছি ২ লাখ টাকা। আশা করছি এবার ৩ লাখ টাকা বিক্রি করতে পারব। কারণ এবার বাদামের বাজার বেশ চড়া। টেপামধুপুর চরের আলেফ উদ্দিন ও মমিন মিয়া বলেন, তারা গত বছর শখের বসে বাপ দাদার ২ একর জমিতে বাদাম চাষ করে বেশ লাভবান হয়েছেন। এবার ৫ একর জমিতে বাদামের চাষ করেছেন। বাদাম চাষে খুব একটা খরচ হয় না। অল্পতে বেশি লাভ। গত বছরের তুলনায় এ বছর বাদাম ভালো আছে। লাভও বেশি হবে বলে আশা করছি।

বাদাম চাষিরা জানান, প্রতি বছর অক্টোবর থেকে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বাদামের বীজ লাগানো হয়। জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত সময় জমি থেকে এই বাদাম তোলার কাজ শুরু হয়। বাদামের বীজ লাগানোর আগে চাষ দিয়ে মাটি সামান্য নরম করে নিতে হয়। আর মাঝে মধ্যে জমির আগাছা পরিস্কার করতে হয়। তারপর সারি করে লাগানো হয় বাদাম বীজ। তিস্তা নদীর চরের মাটি উর্বর হওয়ায় অতিরিক্ত সার, কীটনাশক ও সেচ দিতে হয় না। তিন মাসের মধ্যই বাদাম ঘরে তোলেন চাষিরা । তাই অল্প পরিশ্রমে অধিক লাভে খুশি বাদাম চাষিরা।

এব্যাপারে রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন জানান ,সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক বাদাম চাষিকে ১০ কেজি করে বীজ দেয়া হয়েছে। আর প্রণোদনা হিসাবে ১০০ জনকে কৃষক কেডিএপি ১০ কেজি, ৫ কেজি সার, বারী ৮ বীজ ১০ কেজি করে দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বাদাম জমি থেকে তোলার সঙ্গে সঙ্গে বাজারজাত না করে শুকিয়ে গুদামজাত করে পরে বাজারজাত করা হলে চাষীরা অধিক লাভবান হবেন।

 

এ জাতীয় আরও খবর

করোনায় আরও ৯৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৪০১৪

রংপুর বিভাগে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ আক্রান্ত সাড়ে ১৭ হাজার, মৃত্যু- ৩শ’ ৩৬

বাংলাদেশে করোনার টিকা কার্যক্রম চলমান রাখতে কাজ করছি : ভারতীয় হাইকমিশনার

উপসর্গ ছাড়াই অকেজো হয়ে যাচ্ছে ৭০ শতাংশ ফুসফুস

মুমিনুলও ফিরে গেলেন

রংপুর মেডিকেল : চিকিৎসাসেবা না পেয়ে হাসপাতাল ছেড়ে বাড়ি ফিরছেন রোগীরা

পাঁচ দিনের রিমান্ডে হেফাজতের সহকারী মহাসচিব কাসেমী

যুক্তরাষ্ট্রের ‘ডু নট ট্রাভেল’ তালিকায় বাংলাদেশসহ ১৫০ দেশ

বেনজেমার জোড়া গোলে শীর্ষস্থানে রিয়াল

মুকুট কেড়ে নেওয়ার ঘটনায় ‘মিসেস ওয়ার্ল্ড’ খেতাব বর্জন করলেন

ভ্যাকসিনের জন্য ভাটা পড়বে না বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কে : দোরাইস্বামী

নানা ঔষধি গুণাগুণ এলাচের