সোমবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

স্বাধীনতায় যার যা অবদান তার যথাযথ সম্মান দিতে হবে : মির্জা ফখরুল

news-image

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, স্বাধীনতায় যার যা অবদান তাঁর যথাযথ সম্মান দিতে হবে। জিয়াউর রহমানের অবদানকে যারা অস্বীকার করতে চায় তারা স্বাধীনতাকে অস্বীকার করতে চায়।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিয়ে আজ শনিবার আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় মির্জা ফখরুল আরও বলেন, তরুণ প্রজন্মের কাছে বাংলাদেশের প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরতে হবে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের ৫০ বছর পূর্তিতে বছরব্যাপী তা উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি। এ উপলক্ষে সম্পাদক ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রসঙ্গক্রমে উঠে আসে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব কেড়ে নেওয়া প্রসঙ্গে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘যে প্রচেষ্টা করা হচ্ছে, আমরা মনে করি মুক্তিযুদ্ধকে, মুক্তিযোদ্ধাদের অপমানিত করার জন্য এই পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। আমরা বিশ্বাস করি যে সর্বশেষ সরকার এই ধরনের আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে না।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘যে ব্যক্তির ঘোষণার মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার যুদ্ধ শুরু হয়েছিল, তাঁকেও তাঁর সম্মান-মর্যাদাতে অবশ্যই অধিষ্ঠিত করতে হবে। এটা যারা করতে চান না, তারা স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন না। এখানে যেটা নোট করা দরকার, এই খেতাবটা তাঁকে দিয়েছিল কিন্তু স্বাধীনতা উত্তরকালীন যে সরকার ছিল শেখ মুজিবুর রহমানের সরকার, সেই সরকারই কিন্তু তাঁকে দিয়েছিল। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূরণ হচ্ছে যে বছরে, সেই বছরে সেটাকে তুলে নেওয়ার যে অপচেষ্টা এটা জনগণ কোনোদিন মেনে নেবে না।’

বিএনপি স্বাধীনতার সুর্বণজয়ন্তী উদযাপনে কী কী কর্মসূচি নিয়েছে তা উল্লেখের পাশাপাশি ৭ মার্চ পালনের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নেরও জবাব দেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ‘আমরা শুধু ৭ মার্চ না, আমরা ২ মার্চ পালন করছি। আমরা ৩ মার্চ পালন করছি। ২ মার্চ কেন করছি, কারণ সেদিন স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলন করেছিলেন আ স ম আবদুর রব ও তখনকার ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ। ৩ তারিখে কী? স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করেছিলেন শাহজাহান সিরাজ। ৭ মার্চের ভাষণ, শেখ মুজিবুর রহমান, অবশ্যই ইতিহাস। অবশ্যই তাঁর সম্মান, তাঁর মর্যাদা তাঁকে দিতে হবে। কিন্তু তার অর্থ এই নয়, ৭ মার্চ যখন পালন করবেন, তখন এই কথা বলবেন যে ৭ মার্চের ডাকেই আপনার হয়ে গেছিল কিনা, সেটা আপনার আলোচনার মধ্যেই আসবে, ইতিহাস থেকেই আসবে, প্রকৃত ইতিহাস থেকে তারা তুলে ধরতে চায়।’

স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও জাতি আজ বিভক্ত মন্তব্য করে এ জন্য আওয়ামী লীগকে দায়ী করেন মির্জা ফখরুল। বছরব্যাপী সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব শুরু হবে ১ মার্চ থেকে এবং এ উৎসবে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হবে বলে জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।