সোমবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শেখ মুজিবুর রহমানকে অবশ্যই সম্মান দিতে হবে : ফখরুল

news-image

অনলাইন ডেস্ক : বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, কোনো একক ব্যক্তি, গোষ্ঠী কিংবা পরিবারের জন্য দেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধ করেনি। দেশের আপামর জনগণের মুক্তির জন্য মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধে যার যে অবদান তা গুরুত্ব দিয়ে জাতির সামনে তুলে ধরা হবে।

আজ শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর গুলশানের হোটেলে লেকসোরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব অস্বীকার করার কিছু নেই। কিন্তু জিয়াউর রহমানের ঘোষণার গুরুত্বও স্বীকার করতে হবে। স্বাধীনতা কোনো গোষ্ঠী, দল বা ব্যক্তির সম্পত্তি নয়, এটি জনগণের সম্পত্তি বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি আরো জানান, ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ মুক্তিযুদ্ধে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। পাশাপাশি ২ মার্চ স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন দিবস, ৩ মার্চ স্বাধীনতার ইশতেহার ঘোষণাসহ মুক্তিযুদ্ধে সময় যে বা যারা ভূমিকা রেখেছিলেন তাদের সবাইকে স্মরণ করবে বিএনপি।

তিনি বলেন, ঠিক একইভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ অবশ্যই ইতিহাস। অবশ্যই তার সম্মান, তার মর্যাদা তাকে দিতে হবে। তার অর্থ এই নয় যে, ৭ই মার্চ আপনি যখন পালন করবেন তখন এই কথা বলবেন, ৭ই মার্চ তার ডাকে স্বাধীনতা হয়ে গিয়েছিল। সেটা তো আলোচনার মধ্যে আসবে, ইতিহাস থেকে আসবে, ইতিহাসের সমস্ত বই থেকে আসবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, জিয়াউর রহমান যা অর্জন করেছেন তা যুদ্ধ করে অর্জন করেছেন। এটি কারো দয়ার দান নয়। জিয়ার অবদানকে খাটো করার অর্থ হলো মুক্তিযুদ্ধকে অস্বীকার করা। ঠিক একইভাবে যে ভাষণ শেখ মুজিবুর রহমানের অবশ্যই ইতিহাস। অবশ্যই তার সন্মান, তার মর্যাদা তাকে দিতে হবে। তার অর্থ এই নয় যে, ৭ মার্চ আপনি যখন পালন করবেন তখন এই কথা বলবেন ৭ই মার্চের ডাকে হয়ে গিয়েছিলো কিনা সেটা তো আলোচনার মধ্যে আসবে, ইতিহাস থেকে আসবে, ইতিহাসের সমস্ত বই থেকে আসবে।

মিডিয়া কমিটির আহ্বায়ক ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব শ্যামা ওবায়েদের পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্‌র চন্দ্র রায়, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, মিডিয়া কমিটির সদস্য মীর হেলাল উদ্দিন, আতিকুর রহমার রুমন, শায়রুল কবির খান, ফারজানা শারমিন পুতুল, ইয়াসির খান, মাহমুদা হাবিবা, শফিকুল ইসলাম, হুমায়ুন কবির, মীর সোলায়মান, নুরুল ইসলাম সাজু, বাবুল তালুকদার প্রমূখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র : কালের কণ্ঠ