সোমবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফসলি জমির মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়, জমিগুলো হারাচ্ছে উর্বরতা 

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন স্হানে ফসলি জমি থেকে মাটি কেটে ইট ভাটায় মজুদ করার ধূম পড়েছে। এতে করে একদিকে যেমন জমির সমতল ভূমির উঁচূ-নিচু গর্ত সৃষ্টি হচ্ছে, ঠিক অন্যদিকে ফসল ফলানোর জন্য জমির উর্বরতা হ্রাস পাচ্ছে। বিস্তৃীণ ফসলি জমির মাঝ খান থেকে এই কাজে অত্যাধুনিক ভেকু মেশিন দিয়ে জমির মাটি কাটার কর্মযজ্ঞ চলছে অনবরত ।
এর ফলে যেই জমির উপরিভাগে ধান রোপিত হত সে জমি এখন বিশাল আকার গর্তে পরিনত হয়েছে। এতে করে ওই জমিগুলো যেমন উর্বরতা হারাচ্ছে তেমনি ধ্বংশ হচ্ছে এসব ফসলি জমি। দেশের আইন অনুযায়ী ইটভাটার জন্য কৃষি জমি থেকে মাটি সংগ্রহ নিষিদ্ধ হলেও তার কোন তোয়াক্কা করছে না বেশীরভাগ ইটভাটার মালিকরা। পরিবেশ অধিদপ্তর আইনলঙ্গনকারী ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বললেও বাস্তবে ফসলি জমি ধ্বংশের মহোৎসব হর হামাশায় চোখে পড়ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলায় ১৮৯টি ইটভাটা রয়েছে। এর মধ্যে ৮১টি ইটভাটা পরিবেশ আইন মেনে চললেও বাকি ভাটাগুলোর কোনটির ছাড়পত্র নেই। আবার কোনটি ইট পোড়ানো আইন অনুযায়ী নিষিদ্ধ এলাকায় পড়েছে। জেলা সদর, সরাইল, আশুগঞ্জ, নাসিরনগর, বিজয়নগরসহ নয়টি উপজেলাতেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে এসব ভাটাগুলো। ভাটা মালিকরা নানা কৌশলে কৃষকদের কাজ থেকে প্রতি কানি উপরিভাগের এক ফুট মাটি ৩০/৩৫ হাজার টাকা ধরে কিনে নিচ্ছে। আবার কিছু কিছু ইট ভাটার মালিক ফসলি জমির মাঝখান দিয়ে সড়ক বানিয়ে ট্রাক্টর চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে ফসলি জমিগুলো এখন হুমকির মুখে। কেননা তারা ভাটামালিকদের বিভিন্ন পরোচনায় আকৃষ্ট হয়ে সোনালি ফসল ফলানো জমিগুলো থেকে মাটি বিক্রি করে থাকে।
কথা হয় কৃষক ছিদ্দিক মিয়ার সাথে তিনি  বলেন, জমিগুলোর মারাত্নক ক্ষতি হচ্ছে। বিশেষ করে জমির ফসলে লাল ছিটার সমস্যা হচ্ছে। এ ছাড়া ইট ভাটা থেকে নির্গত ধোঁয়ায় ফসল ছাড়াও বিভিন্ন ফলদ বৃক্ষের ক্ষতি হচ্ছে।
কৃষক কুদ্দুস ভূইয়া বলেন, কৃষকদের বাঁধা উপেক্ষা করে ইট ভাটার মালিকরা জমির উপর দিয়ে অবাধে মাটি নিচ্ছে। এতে করে ধুলা বালিতে আশপাশের শত শত একর ফসলি জমি ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে এক সময় খাদ্য সংকট দেখা দিতে পারে।
জেলা কৃষি সম্প্রারণ অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক রবিউল আলম মজুমদার বলেন, জমির টপসেল কেটে ফেলার কারনে জমি অনুবর্র হয়ে পড়ে। পাশাপাশি ভাটা থেকে নি:সৃত কার্বনের কারনে ফসল ও আশপাশে থাকা গাছপালারও ক্ষতি হয়।
জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক মো: নরুল আমিন  বলেন, যেসব ইটভাটা নিষিদ্ধ এলাকায় রয়েছে সে ভাটাগুলো ভেঙ্গে দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। খাবার উৎপাদনের জন্য কৃষি ভূমি দরকার। সেজন্য তা সংরক্ষণ করতে হবে। আর কৃষি সংরক্ষণ করতে পরিবেশ অধিদপ্তর কাজ করে যাচ্ছে। ২০২০ সালে পরিবেশ আইনে ৮৬ টি ইটভাটাকে প্রায় এক কোটি ২০ লাখ টাকা এবং কৃষি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে ফেলার দায়ে গত এক মাসে ২১টি ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা ৭৭লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আদায় করা হয়েছে।