শনিবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মার্চের মধ্যে ঢাবির হল খুলে দিতে শিক্ষার্থীর ৭২ ঘণ্টার আলটিমেটাম

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদন : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল খোলার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষার্থীরা। সোমবার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করা হয়। সমাবেশ থেকে হল খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ৭২ ঘন্টার আলটিমেটাম দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

এদিকে এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য মঙ্গলবার সকালে বসছে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমি কাউন্সিলের বিশেষ সভা।

সোমবার বিকালে করোনার কারণে বন্ধ থাকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো মার্চ থেকে সাবার জন্য খুলে দেওয়ার দাবিতে রাজু ভাস্কর্যে পাদদেশে জড়ো হয় সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় আন্দোলনকারীরা ‘এক দফা এক দাবি, হল খুলবে ফেব্রুয়ারি’, ‘হল সব খুলতে হবে, নইলে তালা ভাঙতে হবে’, ‘ভিসি স্যার টিকা দিন, হলের তালা খুলে দিন’ প্রভৃতি স্লোগান দেন।

সমাবেশ থেকে আন্দোলনকারীদের মুখপাত্র জুনাইদ হুসেইন খান বলেন, সেশনজট যাতে আর দীর্ঘায়িত না হয়, সেজন্য মার্চ থেকেই হল খুলে দিতে হবে। আমরা মার্চ থেকে হলে উঠতে চাই। করোনার কোনো আতঙ্ক আমাদের এখন নেই। প্রশাসন বসে একটি সিদ্ধান্ত নিক। আমরা ২৪ বা ৪৮ ঘন্টার আলটিমেটাম দিচ্ছি না, কারণ প্রশাসনিক অনেক বিষয় আছে। ৭২ ঘন্টার আলটিমেটাম দিচ্ছি, এর মধ্যে মার্চে হল খোলার বিষয়ে লিখিতভাবে নোটিশ দিতে হবে।

সমাবেশ শেষে এই দাবিতে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে।

শিক্ষার্থীদের হলে প্রবেশ

এদিকে হল খুলে দেওয়ার দাবিতে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে যে আন্দোলন শুরু হয়েছে; তার প্রভাব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়েছে। সোমবার সকালে হল খুলে দেওয়ার দাবিতে ঢাবির শহীদুল্লাহ হলে শিক্ষার্থীরা জড়ো হন। দুপুরের দিকে ২০-৩০ শিক্ষার্থী ওই হলের এক্সটেনশন শহীদ আতাউর রহমান ভবনের ২১১১ নম্বর রুমে গিয়ে ওঠেন।

দুপুরে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী যুগান্তরকে জানান, দেশের সব কিছু স্বাভাবিক থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও সরকার উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই আবাসিক হলগুলো বন্ধ রেখেছেন। তাই আজ থেকে আমরা হলেই থাকব।

তবে বিকালে সরেজমিনে শহীদুল্লাহ হলে গেলে ওই শিক্ষার্থীদের পাওয়া যায়নি।

হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার যুগান্তরকে বলেন, শিক্ষার্থীরা তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিতে এসেছিলো । সেগুলো নিয়ে তারা সবাই চলে গেছে। বর্তমানে হলে কেউ অবস্থান করছে না। আর কেউ তালাও ভাঙ্গেনি। তালা ভেঙ্গে হলে ঢুকার বিষয়টি সম্পূর্ণ গুজব বলেও জানান তিনি।

অমর একুশের হলের সামনে অবস্থান

এদিকে হল খুলে দেওয়ার দাবিতে অমর একুশে হলের সামনে অবস্থান নেয় অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী। তখন তারা শিক্ষার্থীদের সংখ্যা একশত হলে তারা হলে ঢোকার সিদ্ধান্তের কথা জানালেও পরবর্তীতে তারা সেখান থেকে সরে যায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অমর একুশে হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. ইশতিয়াক এম সৈয়দ যুগান্তরকে বলেন, শিক্ষার্থীরা হলে ঢুকেছিল, এখন বের হয়ে গেছে। ওরা যদি হলে প্রবেশ করে, সেক্ষেত্রে পরিস্থিতি বুঝে উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আমাদের হল তো বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে না। অন্য হলে যা হবে, এখানেও তাই হবে।

হল খোলা ও পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার

এদিকে শিক্ষার্থীদের দাবি ও সার্বিক বিষয় নিয়ে সোমবার বিকেল পাঁচটায় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো আখতারুজ্জামান বলেন, আগামীকাল (মঙ্গলবার) সাড়ে দশটায় একাডেমিক কাউন্সিলের মিটিং রয়েছে। আজ হওয়া জাতীয় সিদ্ধান্ত, প্যানডেমিক সিচুয়েশন (মহামারি পরিস্থিতি), শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনেশেনর আওতায় আনাসহ শিক্ষার্থীদের সবগুলো বিষয় নিয়ে আগামীকালের একাডেমিক কাউন্সিলে আলোচনা করা হবে। সেখানেই সকল বিষয় সমন্বিত করে আমরা সিদ্ধান্ত নিব।

হল খোলা নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবির বিষয়ে ঢাকা উপাচার্য বলেন, প্যানডেমিকের (মহামারির) সময়ে কোন বিষয়ে একক সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব নয় বরং সমন্বিত সিদ্ধান্তের দিকে আমাদের এগোতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীরা দায়িত্বশীল। তারা এ বিষয়ে দায়িত্বশীল আচরণ করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস৷

এ জাতীয় আরও খবর