শনিবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রভাত ফেরিতে হামলা মাফিয়া রাষ্ট্রেই সম্ভব : ফখরুল

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়ে ফেরার পথে বগুড়া-৬ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ধাওয়া দেওয়ার ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি।

তারা বলেছে, ‘বিএনপির প্রভাত ফেরিতে আওয়ামী লীগ হামলা চালিয়ে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে তা একমাত্র মাফিয়া রাষ্ট্রেই সম্ভব’।

দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘এ ঘটনায় প্রমাণ হয়েছে রাষ্ট্রক্ষমতা যারা পরিচালনা করছেন, তারা সন্ত্রাসের ভাবধারায় অনুপ্রাণিত। জেলায় জেলায় রাজনৈতিক সংগঠন না গড়ে, সন্ত্রাসীদের গ্যাং তৈরি করে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করানো হয়েছে।’

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে আমাদের বগুড়া প্রতিনিধি জানান, সকালে নেতাকর্মীদের নিয়ে বগুড়া শহরের শহীদ খোকন পার্কে শ্রদ্ধা জানান বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক জিএম সিরাজ। পরে তিনি নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে দলীয় কার্যালয়ে ফেরার পথে শহীদ খোকন পার্কের গেটে পৌঁছালে শহীদ মিনার চত্বরে অবস্থানরত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাকে ‘রাজাকার’ আখ্যায়িত করে স্লোগান দেওয়া শুরু করে। একপর্যায়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এমপি সিরাজকে ধাওয়া দেয়। এ সময় তিনি নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে দ্রুত শহীদ মিনারের পাশে সদর পুলিশ ফাঁড়িতে আশ্রয় নেন।

ফাঁড়ির প্রধান ফটক বন্ধ করে দিয়ে এমপি সিরাজসহ নেতাকর্মীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে পুলিশ। ছাত্রলীগের শতাধিক নেতাকর্মী পুলিশ ফাঁড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে সিরাজ বিরোধী স্লোগান দেন। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সেখান থেকে ফিরে গেলে পুলিশ সিরাজসহ বিএনপির নেতাকর্মীদের নবাববাড়ি সড়কে দলীয় কার্যালয়ে নিরাপদে পৌঁছে দেয়। পরে বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। সেখানে পুলিশ বেষ্টনী মধ্যে বিএনপির নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ করেন। পাশাপাশি ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা সাতমাথা টেম্পল রোডে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন।

বগুড়া সদর পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) খোরশেদ আলম জানান, ‘পুলিশ ফাঁড়ি থেকে এমপিসহ নেতাকর্মীদের তাদের কার্যালয়ে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদেরও পুলিশ ফাঁড়ির সামনে থেকে ফিরিয়ে দেয়। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।’

এ ঘটনায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘বগুড়ায় জিএম সিরাজের ওপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনাকে ন্যক্কারজনক। বগুড়া বিএনপির প্রভাত ফেরিতে আওয়ামী লীগ হামলা চালিয়ে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে তা একমাত্র মাফিয়া রাষ্ট্রেই সম্ভব।’

বিবৃতিতে তিনি এই সন্ত্রাসী ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে দোষীদের গ্রেপ্তার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। একই সঙ্গে আহতদের আশু সুস্থতা কামনা করেন।

একই বিবৃতিতে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় সাংবাদিক বোরহান উদ্দীন মুজাক্কিরের মৃত্যুর ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি, লুটপাট ও দখলে আওয়ামী ভোটারবিহীন সরকারের পাপের বোঝা এখন এত বেশি হয়ে গেছে যে, নিজেদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার ও হানাহানিতে লিপ্ত হয়ে পড়ছে। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে সংঘটিত আওয়ামী লীগের দুই প্রভাবশালী নেতার সমর্থকদের মধ্যে নারকীয় সংঘর্ষ সেটিরই পৈশাচিক বহিঃপ্রকাশ।

এ জাতীয় আরও খবর