বৃহস্পতিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সেতুমন্ত্রীর কাছে ‘দুঃখ প্রকাশ’, নোয়াখালীবাসীর কাছে ‘ক্ষমা’ চাইলেন একরামুল

news-image

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের পরিবারকে ‘রাজাকার’ বলায় দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমা চেয়েছেন নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনের সাংসদ মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী। গতকাল মঙ্গলবার তিনি গণমাধ্যমের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন ও নোয়াখালীবাসীর কাছে ক্ষমা চান।

এ বিষয়ে একরামুল জানান, তার মাকে নিয়ে গালাগাল করায়, অশ্লীল ভাষা ব্যবহার করায় তিনি অভিমান করে ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ করে বলেছিলেন তিনি তার ভাইকে সামলাতে পারেন না। তাই তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘আমি এ জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছি। বিষয়টি নিয়ে আমি আর ঘাঁটাঘাঁটি করতে চাই না।’

মূলত একটি বেসরকারি টেলিভিশনের আলোচনা অনুষ্ঠানে দুঃখ প্রকাশ ও ক্ষমা চাওয়ার বিষয়ে সাংসদ একরামুলের দৃষ্টি অকর্ষণ করা হলে তিনি এসব কথা জানান। ওই অনুষ্ঠানে তিনি সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা সম্পর্কে বলতে গিয়ে তার চিকিৎসা প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করেছিলেন।

একরামুলের এই কথার পরিপ্রেক্ষিতে তারই চিকিৎসা নেওয়া দরকার বলে মনে করেন আবদুল কাদের মির্জা। একটি গণমাধ্যমে তিনি এ ব্যাপারে বলেন, ‘উনি (একরাম চৌধুরী) আমাকে চিকিৎসা নিতে বলেছেন। দেশবাসী উনার লাইভটা তো দেখেছে, এখন উনার চিকিৎসা নেওয়া দরকার না আমার চিকিৎসা নেওয়া দরকার? উনি প্রথমে লাইভে এসে বললেন, ওবায়দুল কাদের রাজাকার পরিবারের সন্তান। আবার ওই বক্তব্য প্রত্যাহার করে বললেন, ওবায়দুল কাদের মুক্তিযোদ্ধা, আবদুল কাদের মির্জার পরিবার রাজাকার পরিবার। আমাদের পরিবার দুইটা নাকি? এখন আপনার বিবেচনা করেন, কার চিকিৎসা করা দরকার।’

গত বৃহস্পতিবার রাতে ফেসবুকে লাইভে এসে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে হুমকি দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর আসনের সাংসদ একরামুল করিম চৌধুরী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে তিনি ওবায়দুল কাদরেকে ‘রাজাকার পরিবারের সদস্য’ বলেও মন্তব্য করেন।

এদিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে ফেসবুক লাইভে আসেন একরামুল করিম চৌধুরী। লাইভে তিনি বলেন, ‘দেশের মানুষ, আসসালামু আলাইকুম। আমি কথা বললে তো আর মির্জা কাদেরকে নিয়ে কথা বলবো না। আমি কথা বলবো ওবায়দুল কাদেরের বিরুদ্ধে। একটা রাজাকার ফ্যামিলির লোক এ পর্যায়ে এসেছে, তার ভাইকে শাসন করতে পারেন না। এগুলো নিয়ে আমি আগামী কয়েকদিনের মধ্যে কথা বলবো। আমার যদি জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি না আসে তাহলে আমি এটা নিয়ে শুরু করবো।’

পরে একরাম ভিডিওটি সরিয়ে নেন। কিন্তু তার আগেই ফেসবুকে ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায়।