শুক্রবার, ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

টিকা সংরক্ষণে পরিকল্পনা সরকারের

news-image

নিউজ ডেস্ক : ভারতের সেরাম থেকে আনা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেশে কীভাবে সংরক্ষণ করা হবে সে পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেছেন, এসব টিকা কেন্দ্রীয় ওষুধাগার (সিএমএসডি), মহাখালীতে অবস্থিত সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির প্রধান কার্যালয় এবং তেজগাঁওয়ে সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির নিজস্ব সংরক্ষণাগারে রাখা হবে।

মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আসেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ভারত থেকে আসা টিকার ব্যবস্থাপনা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। মন্ত্রী জানান, আগামী বুধ বা বৃহস্পতিবার ভারতের উপহার দেওয়া সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন কোভিশিল্ড দেশে পৌঁছাবে।

অধ্যাপক খুরশীদ আলম জানান, সরকারের কেনা তিন কোটি ডোজ টিকার প্রথম চালান হাতে পাওয়ার পর সব জেলায় একইসঙ্গে টিকাদান কার্যক্রম শুরু করার পরিকল্পনা নিয়েছেন তারা। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে স্বাস্থ্যকর্মীদের কিছু টিকা দিয়ে পর্যবেক্ষণ করা হবে। এক সপ্তাহ পর সব জেলায় শুরু করা হবে। এটাই আমাদের পরিকল্পনা।

অধ্যাপক খুরশীদ আলম বলেন, টিকা প্রয়োগের বিস্তারিত পরিকল্পনা করতে মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে একটি সভা হওয়ার কথা রয়েছে, সেখানেই সব চূড়ান্ত হবে।

ভারতের উপহারের ২০ লাখ ডোজ টিকা কখন কাকে দেওয়া হবে জানতে চাইলে খুরশীদ আলম বলেন, এখনও এ বিষয়ে নির্দেশনা পাইনি। মন্ত্রণালয় আমাদের যেভাবে জানাবে, সেভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে গত ১১ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে ‘কোভিড-১৯ টিকা প্রয়োগ পরিকল্পনা’ সম্পর্কে টিকা বিতরণ কমিটির সদস্য ডা. শামসুল হক জানান, এসব টিকা সংরক্ষণে ‘ওয়াক ইন কুল’ (ছোট ঘরের মধ্যে নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় সংরক্ষণ) আছে দেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ২৯টিতে। বাকি ১৮ জেলায় ওয়াক ইন কুল তৈরি করা হচ্ছে। অনেক বেশি টিকা আসার আগে এসব জেলায় ওয়াক ইন কুল তৈরি হয়ে যাবে বলে জাজানান তিনি। একইসঙ্গে এসব জেলায় আইএলআর (হিমায়িত বাক্সের মধ্যে সংরক্ষণ) রয়েছে। এছাড়া দেশের ৪৮৩টি ইপিআই সেন্টারে এই আইএলআর রয়েছে, সেখানেও টিকা রাখা হবে বলে জানান তিনি।

ডা. শামসুল হক জানান, ইতিমধ্যে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সংরক্ষণের জন্য আলাদা স্থান নির্ধারণ পূর্বক সেগুলো যথাযথভাবে সংরক্ষণের জন্য দেশের সব জেলা ও সিটি করপোরেশনের ইপিআই স্টোরগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ভবিষ্যতের কথা বিবেচনা করে জাতীয় পর্যায়ে কোল্ড চেইন ধারণক্ষমতা বাড়ানোর জন্য বিএডিসি ও অন্যান্য জায়াগা থেকে কোল্ডরুম ভাড়া নেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ১১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছিল, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিটিউট থেকে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের মাধ্যমে যে তিন কোটি ডোজ টিকা কেনা হবে, সেটি দেশে আসছে ২১ থেকে ২৫ জানুয়ারির ভেতরে। আর ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহ থেকে টিকা দেওয়া শুরু হবে। সেজন্য আগামী ২৬ জানুয়ারি থেকেই অনলাইনে নিবন্ধন শুরু হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকদের ১ম ও সহকারি শিক্ষকদের ২য় শ্রেণীর মর্যাদা দাবি

‘খাদ্য-পুষ্টিতে দেশের শক্তিশালী অবস্থানের পেছনে কৃষি খাত’

‘প্রয়োজনে জমি অধিগ্রহণ করে প্রতিটি ওয়ার্ডে খেলার মাঠ’

ভারতের প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ দাবি

চীন ও দ.আফ্রিকায় কয়েক হাজার নকল ভ্যাকসিন উদ্ধার

বেশি সময় ঘরে থাকার পরও জন্মহার কমছে যুক্তরাষ্ট্রে

শিশুকে ১০ বছরের বেশি সাজা দেয়া যাবে না: হাইকোর্ট

আইপিএলেও কৃষক আন্দোলনের ভয়!

নয় মাস ধরে ঘরে : সাত শিশুর একজন মানসিক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে

দেশে সংবাদ পাঠে প্রথম ট্রান্সজেন্ডার নারী

প্রিয় নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা! রাস্তায় নেমে সমর্থকদের বিক্ষোভ

ইসরায়েলের ‘যুদ্ধাপরাধ’ তদন্তের বিপক্ষে যুক্তরাষ্ট্র, জানালেন কমলা