মঙ্গলবার, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পৃথিবীর দীর্ঘজীবী ১০ প্রাণী

news-image

অনলাইন ডেস্ক : পৃথিবী মানুষ ছাড়াও অসংখ্য প্রাণীর আবাসস্থল। সব প্রাণীর গড় আয়ু এক নয়। অনেক প্রাণী রোগ, শোক, জরা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, শিকারিদের ফাঁদ অথবা জলবায়ুগত পরিবর্তনের কারণে গড় আয়ুতে পৌঁছানোর আগেই মারা যায়। কিছু প্রাণীবিরূপ সব পরিস্থিতি মোকাবিলা করে দীর্ঘকাল টিকে থাকতে পারে।

টুয়াটারা

খটমট নামের টুয়াটারাকে সহজ বাংলায় গিরগিটি হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। এদের শরীরের গঠন প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবিলা করার জন্য উপযুক্ত। কিছুটা সবুজ, কিছুটা ধূসর গায়ের রঙের এই সরীসৃপের পাগুলো ভীষণ শক্ত, হাতের থাবা রেজরের মতো ধারালো হয়ে থাকে, পিঠে সুচালো স্পাইকের সঙ্গে মোটা একটা লেজও থাকে। এদের আরও একটি জনপ্রিয় পরিচয়, এরা গায়ের রং বদল করে। বয়স্ক টুয়াটারা বছরে একবার আর তরুণরা বছরে তিন থেকে চারবার গায়ের রং পরিবর্তন করে থাকে। পুরুষ টুয়াটারাদের একটা ত্রিকোণাকার ঝুঁটির মতো অংশ থাকে, যা দিয়ে এরা অন্য লিঙ্গের টুয়াটারাকে আকর্ষণ করে। সর্বভুক টুয়াটারা খাবার বলতে নির্ভর করে গোবরে পোকা থেকে শুরু করে, ঝিঁঝি পোকার মতো কীটপতঙ্গের ওপর। এ ছাড়া এদের খাদ্যতালিকায় আছে টিকটিকি, ডিম, ব্যাঙ ও মাকড়সার মতো প্রাণী। অনেকে আবার নিজের প্রজাতির প্রাণীদেরও খেয়ে ফেলে।

ডিম পাড়ার সময় হলে কুকুর, শিয়াল বা বিড়ালের মতো প্রাণীদের থেকে বাঁচতে এরা গাছের গুঁড়ি বা পাথরের নিচে আশ্রয় নিয়ে থাকে। শীতকাল এদের বিশ্রাম নেওয়ার সময়। এ কারণে শীতকালে এদের বাইরে খুব একটা দেখা যায় না। সাধারণত গ্রীষ্মকালের মাঝামাঝি সময়ে বংশবিস্তার করে টুয়াটারা। ১০-২০ বছর বয়সী টুয়াটারাকে প্রাপ্তবয়স্ক ধরা হয়। ছেলেরা প্রতি বছর প্রজননে অংশগ্রহণ করতে পারলেও মেয়েরা প্রতি দুই বা পাঁচ বছরে একবার প্রজননে অংশ নেয়। মেয়ে টুয়াটারা গড়ে ১-১৯টি ডিম পাড়ে এবং সেই ডিমে ১২-১৫ মাস পর্যন্ত তা দেয়। এরা ২৫ ডিগ্রি তাপমাত্রার ওপরে বাঁচতে না পারলেও পাঁচ ডিগ্রির নিচে বাঁচতে পারে। জন্মের পর মায়েরা এদের আগলে রাখে না বরং এদের জন্মের পর থেকেই নিজের খেয়াল নিজেকে রাখতে হয়। নিউজিল্যান্ডের এই সরীসৃপ বেঁচে থাকে প্রায় ১০০ বছর।

জিওডাক

জিওডাক গর্তে বসবাসকারী সব থেকে লম্বা প্রজাতির ঝিনুক। একে আমরা মাডডাক অথবা কিং ক্ল্যাম নামেও চিহ্নিত করি। এরা কানাডার সমুদ্র আর আমেরিকার উত্তর পশ্চিম দিকে বাস করে থাকে। খোলসের বাইরের বর্ধিত অংশকে ঘাড় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। শরীরের মাংসল অংশটুকু থাকে ঝিনুকের খোলসের ভেতরে। খেতে সুস্বাদু বলে বাজারে এসব ঝিনুকের চড়া দাম হয়ে থাকে। কিন্তু এরা বালু, কাদা আর গর্তের গভীরে বাস করে বলে এদের খুঁড়ে বের করা অনেক সময় কঠিন হয়ে যায়। এদের লম্বা শরীরের তুলনায় খোলস ছোট হয়ে থাকে। এই প্রাণীর প্রজনন প্রক্রিয়া খুব মজার। অনেকগুলো নারী ও পুরুষ জিওডাক এক জায়গায় হয়ে তাদের ডিম্বাণু ও শুক্রাণু পানিতে ছেড়ে দেয়। এদের মধ্যে খুব অল্পসংখ্যক ডিম পরিণত হয়ে উঠতে পারে। একজন নারী জিওডাক জীবনকালে পাঁচ বিলিয়ন ডিম উৎপন্ন করে থাকে। ১৫ বছর বয়সে পৌঁছালে তবে এদের প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে গণ্য করা হয়। এরা মাছের লার্ভা, ফাইটোপ্ল্যাংকটন এসব খেয়ে বেঁচে থাকে। আর সমুদ্রে বাস করা স্টারফিশ, ভোঁদড়, ডগফিশ জিওডাক শিকার করে। এসবের সঙ্গে লড়াই করে জিওডাকরা বেঁচে থাকতে পারে প্রায় ১৬০ বছর।

গ্যালাপ্যাগোস কচ্ছপ

স্থলে বসবাসকারী গ্যালাপ্যাগোস কচ্ছপ দীর্ঘজীবী হিসেবে সুপরিচিত। এরা শুষ্ক ও নাতিশীতোষ্ণ জায়গায় বাস করে। এদের কচ্ছপ জগতের দৈত্য বলা হয়। এরা দিনের ১৬ ঘণ্টা ঘুমিয়ে কাটাতে পারে। বাকি সময় এরা হয় খাবারের সন্ধান করে অথবা রোদে বসে কাটিয়ে দেয়। এদের শরীরের ওপরের অংশে বাদামি অথবা ধূসর রঙের হাড়ের মতো শক্ত খোলস থাকে, যার নাম ইয়ারাপেস আর নিচের অংশকে বলা হয় প্ল্যাস্ট্রন। এদের পাগুলো হয় শুষ্ক, আঁশযুক্ত, খাটো ও মোটা। সামনের পায়ে পাঁচটি আর পেছনের পায়ে চারটি করে নখ থাকে। এদের চোয়াল খুব শক্ত হলেও মুখে কোনো দাঁত থাকে না। এরা নানা জাতের ঘাস, লতাপাতা, তরমুজ, কমলা, জাম খেয়ে বেঁচে থাকে। তবে আশ্চর্যজনক হলেও সত্য এরা না খেয়ে অথবা পানি পান না করে এক বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। এরা প্রজননক্ষম হয় ৪০ বছর বয়সে। ডিম পাড়ার জন্য মেয়ে কচ্ছপরা শুষ্ক ও বালুযুক্ত এলাকা খোঁজে। একেকটি কচ্ছপ একেবারে ২-১৬টি পর্যন্ত ডিম পাড়তে পারে এবং সেগুলো ফুটে বাচ্চা বের হতে সময় লাগে ৪-৮ মাস। তবে ডিম ফুটে বাচ্চা বের হওয়ার পরেই মায়েরা তাদের ছেড়ে দেয়। বনাঞ্চলে কচ্ছপরা সবচেয়ে বেশি ভয় পায় কুকুর, বিড়াল, শূকর ও কালো ইঁদুরের মতো প্রাণীদের। কেননা এরা কচ্ছপের ডিম এবং বাচ্চা কচ্ছপদের আক্রমণ করে। এই শীতল রক্তের প্রাণীরা বেঁচে থাকতে পারে ১৭৫ বছর পর্যন্ত। আশপাশে বিপদ দেখলেই এরা নিজের মাথা, হাত ও পায়ের শক্ত খোলসের মধ্যে ঢুকিয়ে ফেলতে পারে, এটিই এদের আত্মরক্ষার কৌশল।

সামুদ্রিক আর্চিন

সমুদ্রের উষ্ণ অঞ্চলে বাস করা এই প্রাণী দেখতে কাঁটাযুক্ত বলের মতো। আর এই কাঁটাগুলো আসলে এদের শিরদাঁড়া। এসব শিরদাঁড়া দিয়েই এরা সমুদ্রের তলদেশে চলাফেরা করে। এরা যদিও দীর্ঘজীবী প্রাণীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিন্তু এদের আলাদা করে কোনো বুদ্ধিমত্তা বা চেহারা নেই। চিহ্নিত করতে পারার মধ্যে এদের শুধু একটি অস্বাভাবিক মুখ আর পায়ুপথ আছে। এদের মুখকে অ্যারিস্টটলের ল্যান্টার্ন বলা হয়। এরা সামুদ্রিক ঘাস, লতাপাতা, মৃত প্রাণী, শৈবাল খেয়ে বেঁচে থাকে। এদের মেরুদণ্ড থাকা সত্ত্বেও অনেক শত্রুর মোকাবিলা করতে হয়। কাঁকড়া, লবস্টার, সামুদ্রিক মাছ এদের জন্য সবচেয়ে বড় ঝুঁকির কারণ। এরা ২০০ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে এবং বসন্তকালে বংশবিস্তার করে।

রউঘে রকফিশ

রউঘে রকফিশ এদের বিশাল মুখের জন্য বেশ জনপ্রিয়। এই বিশাল মুখ এদের শিকার করতে এবং শ্বাস-প্রশ্বাসে সাহায্য করে। এদের গায়ের রং গোলাপি, রোদে পোড়া বাদামির সংমিশ্রণে হয়ে থাকে। অনেক সময় এদের গায়ে গাঢ় বাদামি ছোপ দেখা যায়। এ ছাড়া এদের চোখ ও পাখনা আছে, সেই সঙ্গে চোখের নিচে কিছু কাঁটাও আছে। এরা সমুদ্রের নিচে, পাথুরে এলাকায় বাস করে। এদের খাদ্যতালিকায় প্রাথমিকভাবে চিংড়ি থাকলে এরা নানা জাতের মাছ, কাঁকড়াসহ অন্যান্য জলজ প্রাণীও খেয়ে থাকে। ফেব্রুয়ারি থেকে জুন এবং অক্টোবর থেকে জানুয়ারি হচ্ছে এদের বংশবিস্তারের সময়। লিঙ্গভেদে এই প্রাণীর গড়নে কোনো পার্থক্য হয় না। এরা ২০৫ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে।

কই ফিশ

কই মাছের প্রাণ নিয়ে নানা প্রবাদকে সত্য করতেই দীর্ঘজীবী প্রাণীর তালিকায় স্থান করে নিয়েছে কই মাছ। রংচঙে এই মাছ সাধারণ পোনা থেকেই জন্ম নেয় এবং পূর্ব এশিয়া এই মাছের আবাস স্থল। সঠিক যতœ পেলে এরা তিন ফুট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। এদের রঙে ভিন্নতা থাকতে পারে কিন্তু সেটার জন্য পরিকল্পিত প্রজনন ঘটাতে হয়। পর্যাপ্ত খাবার ও অক্সিজেনযুক্ত পরিষ্কার পানির আঁধারে এরা বেঁচে থাকে। এদের রং ও আয়তন দুটোই নির্ভর করে এরা কোন পরিবেশে বড় হচ্ছে তার ওপর। এরা সাদা, কালো, নীল, লাল, এমনকি হলুদ রঙেরও হতে পারে। এরা ২০০ বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে। জাপানিরা বিশ্বাস করে কই মাছ ভালোবাসা, সফলতা, সম্পদ এবং সৌভাগ্যের প্রতীক। এরা নানা জাতের মাছ, ডিম, তরমুজ, লেটুস পাতা আর মটরশুঁটি খেতে পারে। এমনকি এরা যে খাবার দিচ্ছে তাকে চিনে রাখার ক্ষমতাও ধারণ করে। তবে এই ক্ষমতা অর্জন করতে তাদের সময় লাগে। শিকারি পাখি, ভোঁদর ও সাপ কই মাছের অস্তিত্বের জন্য হুমকিস্বরূপ। এরা শিকারি থেকে বাঁচতে রং বদলাতে পারে। বসন্ত ও গ্রীষ্মকালে এরা বংশবিস্তার করে। এ সময় মেয়ে কই মাছ হাজার হাজার ডিম উৎপন্ন করে এবং পুরুষ কইয়ের শুক্রাণুর সঙ্গে পানিতে মিলিত হয়। তবে কেবল অর্ধেকসংখ্যক ডিম পরিণত হতে পারে।

ধনুকাকৃতির তিমি

অন্যান্য তিমি মাছের মতো এরা খাবার সন্ধানে অন্য জায়গায় চলে যায় না। বরং জীবনের পুরোটা সময়েই এই তিমি উত্তর মেরুর পানিতেই থাকে। এরা ২০০ বছরের বেশি সময় বেঁচে থাকে। এর ধনুকের মতো শরীরে নিচের চোয়াল, পেট আর লেজের দিকে সাদা দাগ থাকে। এদের খুলিও তিন কোনা হয়। এদের বলিষ্ঠ শরীর দিয়ে এরা সাত ইঞ্চি পুরু বরফের স্তর ভেদ করে পানির ওপরে লাফিয়ে উঠতে পারে। এরা জুপ্ল্যাংকটন আর ছোট মাছ খেয়ে বেঁচে থাকে। প্রতিদিন এরা দুই টন খাবার খেতে পারে। বসন্ত ও গ্রীষ্মের শুরুতে এরা বংশবিস্তার করে। নিজেদের মধ্যে যোগাযোগের জন্য এরা নিচু কম্পাঙ্কের শব্দ তৈরি করে। প্রতি তিন চার বছরে এরা একবার করে বংশবিস্তার করে এবং এদের গর্ভধারণের সময়কাল ১৩-১৪ মাস। তিমি মায়েরা এদের সন্তানদের ৯-১২ মাস পর্যন্ত আগলে রাখে। যদিও এই মাছের তেল ও মাংসের জন্য মানুষরা এই তিমি শিকার করে। মানুষের পাশাপাশি এই তিমি অন্য শিকারি তিমির কবলে পড়েও প্রাণ হারায়।

সামুদ্রিক কুয়াহগ

সামুদ্রিক এই প্রাণী বেঁচে থাকতে পারে ৪০০ বছর পর্যন্ত। এরা উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরের তলদেশে বাস করে। সাধারণত ২৫ থেকে ১৩০০ ফুট গভীরে পর্যন্ত এদের পাওয়া যায়। এদের শরীরের সঙ্গে দুটো নল থাকে যেগুলো এরা কাদার বাইরে বের করে রাখে। এসব নলের একটা দিয়ে তারা পানির পুষ্টি গ্রহণ করে, আরেকটা দিয়ে পানি বাইরে বের করে দেয়। এর ডিম্বাকৃতির খোলসের ওপরের কালো দাগ দেখে এদের বয়স অনুমান করা যায়। এরা আণুবীক্ষণিক শ্যাওলা খেয়ে বেঁচে থাকে। কাঁকড়া, জলজ প্রাণী থেকে বাঁচতে এরা সমুদ্রের তলদেশে বালুর মধ্যে গর্তে বসবাস করে। গ্রীষ্মকালে এরা বংশবিস্তার করে এবং পাঁচ থেকে আট বছর বয়স হলে এদের প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে ধরা হয়।

গ্রিনল্যান্ড শার্ক

গ্রিনল্যান্ড হাঙর বেঁচে থাকে ২০০ বছর পর্যন্ত। এদের বড় হওয়ার ধীর গতিকেই এর দীর্ঘজীবী হওয়ার কারণ হিসেবে ধরা হয়। এরা প্রতি বছর মাত্র কয়েক সেন্টিমিটার করে বড় হয় এবং উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরের শীতল পানিতে বাস করে। ১৫০ বছর বয়স হওয়ার আগে এরা বংশবিস্তার করে না। মানুষের সঙ্গে এদের সম্পর্ক বহু পুরনো। এদের গায়ের রঙে ভিন্নতা থাকতে পারে। কোনো কোনো হাঙরের গায়ের রং মাখনের মতো ধূসর হলেও কোনোটার রং কালো বাদামির মিশেলে হতে পারে এবং এর সঙ্গে গায়ে সাদা ছোপও থাকতে পারে। এদের ছোট, ভোঁতা শুঁড়, ছোট ছোট চোখ এবং পাখনা আছে। অন্যান্য হাঙরের মতো এদেরও দুপাটিতে ৪৮-৫২টি ধারালো দাঁত আছে। এরা সামুদ্রিক ছোট হাঙর, ইল, রেডফিশের পাশাপাশি কুকুর, তিমি, সিল মাছ আর পোলার বিয়ারের মৃতদেহ খেয়ে বেঁচে থাকে।

গ্লাস স্পঞ্জ

গ্লাস স্পঞ্জ মোটামুটি পৃথিবীর সব মহাসাগরেই বাস করে কিন্তু উত্তর প্যাসিফিক আর অ্যান্টার্কটিকায় এদের বেশি দেখা যায়। এদের কোষে কাচের মতো যে উপাদান দেখা যায় সেগুলো সিলিকা দিয়ে তৈরি। এরা এদের পরিবেশ থেকে ব্যাকটেরিয়া আর প্ল্যাংকটোন খেয়ে বেঁচে থাকে। কাপের আকৃতির এই স্পঞ্জের শরীরের ঠিক মাঝখানে একটা শূন্যস্থান থাকে। এরা চিংড়ি প্রজাতির কোনো প্রাণীকে এদের শরীরের ভেতরে আজীবনের জন্য বন্দি করে ফেলে অনেক ধরনের শিকারি এবং রাসায়নিক পদার্থ থেকে নিজেদের বাঁচিয়ে রাখে। এরা ১০ হাজার বছরের বেশি সময় বেঁচে থাকতে পারে।

এ জাতীয় আরও খবর

করোনায় প্রাণ গেল আরো ৭ জনের, শনাক্ত ৫১৫

গার্মেন্টকর্মী, বস্তিবাসীদের ডাক্তারি সেবায় ডিজিটাল ডাক্তার বুথ

কক্সবাজারের স্থানীয় নারীদের জন্য ‘সেইফ স্পেস’ চালু করল আইওএম

আমি দুষ্টের দমন শিষ্টের লালনে বিশ্বাস করি: মেয়র তাপস

মায়ের চিকিৎসা করাতে গাড়ি বিক্রি করে দিলেন ক্রিকেটার শাহাদাত

সিংগাইরে সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

ঢাকা-জলপাইগুড়ি ট্রেন উদ্বোধন করবেন হাসিনা-মোদি

বাংলাদেশ বর্তমানে চীন, কাতার, ভারত ও মালয়েশিয়ার কাতারে পৌঁছে গেছে : অর্থমন্ত্রী

চট্টগ্রাম মেডিকেলে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, কক্ষ ভাঙচুর

আট বছরের মধ্যে ইরানের গ্যাস রপ্তানি দ্বিগুণ

‘পুলিশ টাকা দাবি করলে জানাবেন’

২৬ মার্চ ঢাকা-জলপাইগুড়ি ট্রেন উদ্বোধন