শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

হিজড়াদের সম্পর্কে ইসলামে বিধিবিধান

news-image

ইজাজুল হক : তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে স্বীকৃত হিজড়ারা মানব সমাজের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। পারিবারিক আবহে শতভাগ সামাজিক প্রক্রিয়ায় জীবনযাপন করার অধিকার তাদের রয়েছে। সমাজ থেকে তাদের অচ্ছুৎ করে রাখা ইসলাম অনুমোদন করে না। হিজড়ারা এক ধরনের প্রতিবন্ধী। অন্য দশজন প্রতিবন্ধীর মতো রাষ্ট্রের সব সুযোগ-সুবিধা তাদেরও প্রাপ্য। ইসলামি আইনশাস্ত্রে হিজড়াবিষয়ক মাসায়েল সুস্পষ্টভাবে বিবৃত হয়েছে। প্রয়োজনীয় কয়েকটি মাসয়ালা এখানে তুলে ধরছি।

এক. যে ব্যক্তির দেহে পুরুষ-স্ত্রী উভয় লিঙ্গই বিদ্যমান থাকে কিংবা কোনো লিঙ্গই থাকে না, শুধু পেশাবের জন্য বিশেষ কোনো ছিদ্র বা স্থান থাকে, তাকে শরিয়তের পরিভাষায় হিজড়া বা খুনসা বলা হয়। (আল-বাহরুর রায়িক ৮/৫৩৮)

দুই. শরিয়তের বিধিবিধানের ক্ষেত্রে তার শারীরিক গঠন ধর্তব্য। তার দেহে পুরুষের আলামত প্রাধান্য পেলে তাকে পুরুষ এবং নারীর আলামত প্রাধান্য পেলে তাকে নারী বিবেচনা করা হবে। আর যদি কোনো পক্ষের আলামতকে প্রাধান্য দেওয়া না যায়, তাহলে তাকে ফিকহের ভাষায় খুনসায়ে মুশকিল তথা জটিল হিজড়া বলা হয়। (আল-মুগনি লি ইবনে কুদামা ৭/২০৮)

তিন. হিজড়ার পুরুষ হওয়ার আলামত হলো দাড়ি গজানো, নারীর সঙ্গে সহবাস করার সক্ষমতা থাকা ইত্যাদি। আর নারী হওয়ার আলামত হলো, নারীদের মতো বর্ধমান স্তন হওয়া, ঋতুস্রাব হওয়া, গর্ভধারণের ক্ষমতা থাকা, পুরুষের সঙ্গে সহবাস করার সক্ষমতা থাকা ইত্যাদি। (বাদায়িউস সানায়ি ৭/৩২৭)

চার. উপর্যুক্ত আলামতগুলো বালেগ হওয়ার পরই প্রকাশ পায়। এর আগেই যদি হিজড়া চিহ্নিত করার প্রয়োজন হয়, তাহলে পেশাবের রাস্তা অনুযায়ী নারী-পুরুষ বিবেচনা করা হবে। যদি পুরুষের মতো লিঙ্গ দিয়ে পেশাব করে তাহলে পুরুষ। আর যদি নারীর মতো লিঙ্গ দিয়ে পেশাব করে তাহলে নারী। আর যদি দুটি দিয়েই পেশাব করে, তাহলে পেশাব আগে যে অঙ্গ দিয়ে বের হয়, সে অঙ্গ হিসেবে নারী-পুরুষ নির্ধারিত হবে। তবে যদি উভয় লিঙ্গ দিয়ে একই সময়ে বের হয়, তাহলে সে খুনসায়ে মুশকিলের হুকুমে চলে যাবে। (বাদায়িউস সানায়ি ৭/৩২৭)

পাঁচ. উপর্যুক্ত আলামত অনুপাতে পুরুষ হলে পুরুষের এবং নারী হলে নারীর যাবতীয় হুকুম তার ওপর আরোপিত হবে। এ বিষয়ে আলাদা করে বিস্তারিত বলার কিছু নেই। তবে হিজড়া যদি খুনসায়ে মুশকিল হয় এবং পুরুষ বা নারী নির্ধারণ করা না যায়, তাহলে তার জন্য শরিয়তের আলাদা হুকুম রয়েছে।

ছয়. এ ধরনের হিজড়াকে অপ্রাপ্ত বয়সেই খতনা করাতে হবে। প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে গেলে নারী-পুরুষ কেউ-ই তাকে খতনা করাতে পারবে না। কারণ সে পুরুষ না নারী তা অমীমাংসিত। পুরুষ হলে নারীর জন্য এবং নারী হলে পুরুষের জন্য তার লজ্জাস্থান দেখা জায়েজ নয়। (আল-বাহরুর রায়িক ৮/৫৩৯)

সাত. এ ধরনের জটিল হিজড়া মারা গেলে তাকে গোসল দেওয়া যাবে না। পুরুষরাও দিতে পারবে না, নারীরাও দিতে পারবে না। তাই তাকে তায়াম্মুম করিয়ে দিতে হবে। মাহরাম থাকলে তার হাত দিয়েই তায়াম্মুম করাবে। আর গাইরে মাহরাম হলে হাতে কাপড় পেঁচিয়ে তায়াম্মুম করাবে; খালি হাতে স্পর্শ করবে না। (বাদায়িউস সানায়ি ৭/৩২৮)

আট. জামাতে নামাজের ক্ষেত্রে খুনসায়ে মুশকিল পুরুষের পেছনে এবং মহিলাদের আগের কাতারে দাঁড়াবে। আর জানাজার ক্ষেত্রে একাধিক লাশের নামাজ একসঙ্গে পড়ানো হলে প্রথমে পুরুষের, তারপর হিজড়ার, তারপর নারীদের লাশ রাখা হবে। (বাদায়িউস সানায়ি ৭/৩২৮)

নয়. এ ধরনের হিজড়া রেশম তথা সিল্কের কাপড় পরতে পারবে না। স্বর্ণালংকারও পরিধান করা তাদের জন্য বৈধ নয়। তারা হজে গেলে ইহরামের সময় নারীদের মতোই পোশাক পরিধান করবে এবং নামাজের ক্ষেত্রে ওড়না ব্যবহার করবে। তাদের কাফন-দাফন নারীদের মতোই করা হবে। পাঁচ কাপড়ে কাফন পরানো হবে। (রদ্দুল মুহতার ৬/৭২৯ ও ২/২০৪)

দশ. তারা নামাজের বৈঠক নারীদের মতোই করবে। কোনো নারী বা পুরুষের সঙ্গে একান্তে দেখা-সাক্ষাৎ করতে পারবে না। নারীদের মতোই মাহরাম ছাড়া তিন দিনের বেশি দূরত্বের সফর করতে পারবে না। যুদ্ধে বন্দি হলে তাদের হত্যা করা যাবে না। (আল-বাহরুর রায়িক ৮/৫৪১ ও ৫৪৯)

এগারো. হিজড়ারা মিরাস তথা উত্তরাধিকার লাভ করবে। অমীমাংসিত হিজড়ার ক্ষেত্রে হুকুম হলো, তাকে ছেলে এবং মেয়ে দুভাবেই হিসাব করা হবে। যে ক্ষেত্রে মিরাসের পরিমাণ কম হবে, সেই অংশ সে লাভ করবে। (আল-বাহরুর রায়িক ৮/৫৪৩)