শুক্রবার, ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বাজেটে বৈষম্যের শিকার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

news-image

অনলাইন ডেস্ক : শিক্ষার্থী সংখ্যায় দেশের সবচেয়ে বড় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এখন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি)। এর পরেই অবস্থান করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)। এই দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংখ্যা যথাক্রমে ৩৮২৯১ ও ৩৮১৭২ জন।

গত ৬ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রকাশিত কমিশনের ২০১৯ সালের বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

এর আগে গত ২৭ ডিসেম্বর ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ’র নেতৃত্বে এক প্রতিনিধি দল কমিশনের ৪৬তম বার্ষিক প্রতিবেদন ২০১৯ রাষ্ট্রপতি মাে. আবদুল হামিদের কাছে পেশ করেন।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, শিক্ষার্থী সংখ্যায় সমান অবস্থা থাকলেও বার্ষিক বাজেটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে অনেক পিছিয়ে আছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। ২০১৯ সালে বিশ্ববিদ্যালয়টির বাজেট যেখানে ৭৬৪ কোটি ৬৫ লাখ টাকা সেখানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাজেট ৪২৪ কোটি ১৫ লাখ টাকা। যা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট বাজেটের অর্ধেকের কিছু বেশি।

ফলে শিক্ষার্থী প্রতি গড় বার্ষিক পৌনঃপুনিক ব্যয়েও নাজেহাল দশা বিশ্ববিদ্যালয়টির। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষার্থীর পেছনের বার্ষিক ব্যয় যেখানে দুই লাখ টাকারও বেশি সেখানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাথাপিছু বার্ষিক মাত্র ১ লাখ ৭ হাজার টাকা। যদিও শিক্ষার্থী প্রতি ৪ লাখ ৬৭ হাজার টাকা ব্যয় করে এই তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়।

মূল বাজেট বরাদ্দ কম থাকায় এর প্রভাব পড়ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা খাতেও। প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১৯ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা অনুদান ছিল ৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা যেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা অনুদান ছিল ৯ কোটি টাকারও বেশি। এই তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা অনুদান ছিল ৬ কোটি টাকা।

প্রতিবেদনে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর মোট অনুপাতেও একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গড় প্রতি ১৬ শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষক রয়েছেন। সেখানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অনুপাতটি ৩৩ঃ১।

সমান শিক্ষার্থী নিয়ে সব পরিসংখ্যানে এমন পিছিয়ে থাকায় হতাশা প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তামিম আল নূর বলেন, একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য উপযুক্ত বাজেট ও পর্যাপ্ত শিক্ষক থাকা অপরিহার্য। যা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে আমরা পাচ্ছি না। ফলে এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমরা সেরা আউটপুটটা পাচ্ছি না। এটা আমাদের জন্য হতাশাজনক এবং জাতির জন্য এটা যে দীর্ঘমেয়াদে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে তা অনস্বীকার্য। আশা করবো কর্তৃপক্ষ দ্রুতই এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নিবেন।

বার্ষিক বাজেটের এমন চিত্র রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক শিক্ষা কার্যক্রম নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে বলে মনে করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সালেহ হাসান নকিব।

তিনি বলেন, এটা শুধু ২০১৯ সালের চিত্র নয়, লক্ষ্য করলে দেখা যাবে বেশ কয়েক বছর ধরেই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংখ্যা দেশের সবগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। তারপরও বাজেট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে অনেক কম। এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের একটা বড় ব্যর্থতা আছে। তারা হয়তো ঠিকভাবে দেনদরবার করতে পাচ্ছে না। ফলে একাডেমিক ও গবেষণার দিক থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের যে সম্ভাবনা সেটিও অনেকাংশে ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। বর্তমানে যে অবস্থানে আছে এর চেয়ে অনেক বেশি ভালো করার সামর্থ্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আছে। সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

এ জাতীয় আরও খবর

‘প্রয়োজনে জমি অধিগ্রহণ করে প্রতিটি ওয়ার্ডে খেলার মাঠ’

ভারতের প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ দাবি

চীন ও দ.আফ্রিকায় কয়েক হাজার নকল ভ্যাকসিন উদ্ধার

বেশি সময় ঘরে থাকার পরও জন্মহার কমছে যুক্তরাষ্ট্রে

শিশুকে ১০ বছরের বেশি সাজা দেয়া যাবে না: হাইকোর্ট

আইপিএলেও কৃষক আন্দোলনের ভয়!

নয় মাস ধরে ঘরে : সাত শিশুর একজন মানসিক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে

দেশে সংবাদ পাঠে প্রথম ট্রান্সজেন্ডার নারী

প্রিয় নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা! রাস্তায় নেমে সমর্থকদের বিক্ষোভ

ইসরায়েলের ‘যুদ্ধাপরাধ’ তদন্তের বিপক্ষে যুক্তরাষ্ট্র, জানালেন কমলা

টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে বিদেশ গেলেও কি বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন?

নারীর নিরাপত্তায় জাতীয় কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান