বৃহস্পতিবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রথম পাঁচ মাসে বাজেট বাস্তবায়ন ২০ শতাংশেরও কম

news-image

নিজস্ব প্রেতিবেদক : চলমান করোনার অভিঘাতের মধ্যেই চলতি অর্থবছরের (২০২০-২১) জন্য ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছিলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। গত বছরের নভেম্বর শেষে দেখা গেছে, অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে ২০ শতাংশেরও কম বাজেট বাস্তবায়ন হয়েছে। যার পরিমাণ ১ লাখ ৬ হাজার ৫৯৩ কোটি টাকা। খবর: বণিক বার্তা

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত বছরের মার্চে দেশে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই সব ধরনের উন্নয়নকাজে স্থবিরতা ছিল। এ কারণে চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে উন্নয়ন খাতে ব্যয় তুলনামূলক কম হয়েছে; যার প্রভাব পড়েছে বাজেট বাস্তবায়ন হারে।

সরকারের বাজেটের বড় অংশই ব্যয় হয় উন্নয়নকাজে। এজন্য প্রতি অর্থবছর বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) মাধ্যমে ব্যয়ের একটি লক্ষ্য ঠিক করা থাকে। চলতি অর্থবছর এডিপি বরাদ্দ ছিল ২ লাখ ১৪ হাজার ৬১১ কোটি টাকা। কিন্তু এক্ষেত্রেও বাস্তবায়ন হার ভালো নয় এবার। গত নভেম্বর পর্যন্ত এডিপি থেকে ব্যয় হয়েছে ৩৮ হাজার ৪৭৮ কোটি টাকা। সে হিসেবে অর্থবছরের পাঁচ মাসে এডিপি বরাদ্দের মাত্র ১৭ দশমিক ৯৩ শতাংশ অর্থ ব্যয় করতে পেরেছে সরকার। যদিও গত অর্থবছরের একই সময়ে এডিপির ১৯ দশমিক ২৪ শতাংশ অর্থ ব্যয় হয়েছিল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে অর্থ বিভাগের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে বলেন, বৈশ্বিক মহামারীর কারণে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা বিরাজ করছে। তাই রাজস্ব আহরণও তুলনামূলক কম। বিপরীতে এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের ব্যয় বেড়ে গেছে। তাই সরকার ব্যয় নিয়ন্ত্রণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে চলতি অর্থবছরে এডিপির আওতায় বাস্তবায়নাধীন কম গুরুত্বপূর্ণ ও মধ্যম অগ্রাধিকারের উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থ খরচ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। তবে ‘মধ্যম অগ্রাধিকার’ প্রকল্পের যেসব খাতে অর্থ ব্যয় না করলেই নয়, সেক্ষেত্রে খরচের বিষয়টি ‘কঠোর’ বিবেচনায় নিতে বলা হয়েছে। কিন্তু সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রকল্পের অর্থ ব্যয় অব্যাহত রাখতে বলা হয়েছে। ফলে সরকারের খরচ বেশ কমেছে।

তিনি আরো বলেন, যেসব প্রকল্পে অর্থ খরচে কোনো বাধা নেই করোনার কারণে সেসব প্রকল্প স্বাভাবিক গতিতে এগোচ্ছে না। তাই সরকারের খরচ কম হচ্ছে। এছাড়া খরচ কমাতে সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে নতুন গাড়ি কেনায় নিষেধাজ্ঞা ৩১ ডিসেম্বর থেকে বাড়িয়ে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত করা হয়েছে। সরকারি চাকরিজীবীদের ভ্রমণ ব্যয়ও অর্ধেক কমিয়ে দিয়েছে সরকার।

করোনায় সবকিছুতে এ ধরনের স্থবিরতায় কেবল সরকারের ব্যয় কমেছে তা নয় আয়ও কমেছে। অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে সরকার রাজস্ব আয় হয়েছে ৯৬ হাজার ৩৭১ কোটি টাকা। গত বছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ৯৯ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। এক্ষেত্রে আয় কমেছে ৩ হাজার ৪২৯ কোটি টাকা। পাঁচ মাসে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) রাজস্ব আহরণ করেছে ৮৭ হাজার ৯২ কোটি ৭১ লাখ টাকা। রাজস্ব আহরণের এ পরিমাণ গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৩ দশমিক ১৯ শতাংশ বা ২ হাজার ৬৮৮ কোটি টাকা বেশি। তবে চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আহরণ হয়েছে ২৩ শতাংশ কম। এ পাঁচ মাসে সরকারের আয়ের বাকি ৮ হাজার ৪৪৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা এসেছে এনবিআর-বহির্ভূত রাজস্ব থেকে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে মোট বাজেট ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ২২০ কোটি টাকা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৩৫ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। অর্থবছরের পাঁচ মাসের ঘাটতি মেটাতে সরকার অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ৭ হাজার ৫৭২ কোটি ও বৈদেশিক উৎস থেকে ২ হাজার ৬৫০ কোটি টাকা নিট ঋণ গ্রহণ করেছে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে সরকার উন্নয়নকাজে যা ব্যয় করেছে তা ১১ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম। জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত এডিপি বাস্তবায়নে যে অর্থ সরকার ব্যয় করেছে তা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৭ শতাংশ কম। এ অবস্থায় শতভাগ এডিপি বাস্তবায়ন করতে হলে শেষ সাত মাসে প্রায় ৮২ শতাংশ বা ১ লাখ ৭৬ হাজার ১৩৮ কোটি টাকা ব্যয় করতে হবে।

শুরুতে কাজে গতি না এলে শেষ মুহূর্তে এডিপি বাস্তবায়নে বড় ধরনের চাপ পড়বে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাড়াহুড়োর কাজে গুণগত মান নিশ্চিত করা কঠিন হবে বলে মন্তব্য করে তারা সরকারি অর্থ অপচয়েরও আশঙ্কা প্রকাশ করেন। এমনকি প্রকল্পের মেয়াদ বাড়িয়ে মূল্য বাড়ানোর শঙ্কাও রয়েছে।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল