মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বক্তব্যের খণ্ড অংশ প্রচার করা হয়েছে, দাবি আবদুল কাদেরের

news-image

নোয়াখালী সংবাদদাতা : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, আমার বক্তব্যের খণ্ড অংশ প্রচার করে মিডিয়া বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছে।

আবদুল কাদের মির্জার সাম্প্রতিক এ বক্তব্যের ভিডিওটি ফেসবুক ও ইউটিউবে ভাইরাল হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে আবদুল কাদের মির্জা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রেরণ করা হয়। তাতে এই দাবি জানানো হয় ‘সাম্প্রতিক সময়ে বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে বিভিন্ন সভায় আমার দেওয়া বক্তব্য নিয়ে একটি কুচক্রী মহল নানা ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। নির্বাচন নিয়ে নানা বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে সাধারণ মানুষের মাঝে।’

তিনি বলেন, ‘আমি শুধুমাত্র একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপনের উদ্দেশ্যে ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচন অবাধ, গ্রহণযোগ্য ও প্রভাবমুক্ত নিরপেক্ষ নির্বাচন যেন হয় এ জন্য আমি নানা নির্বাচনী সভায় কিছু কথা বলেছি। কিন্তু কোন কোন গণমাধ্যম সেগুলো বিস্তারিত উল্লেখ না করে বিভ্রান্তি সৃষ্টির উদ্দেশ্যে আমার বক্তব্যের খণ্ড অংশ বিশেষ প্রচার করেছে। আমি শুধুমাত্র বৃহত্তর নোয়াখালীর আঞ্চলিক রাজনীতি নিয়ে নানা অনিয়মের কথা বলেছিলাম। জাতীয় ইস্যুতে আমি কোনো বক্তব্য রাখিনি।’

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তিনি আরও জানান, ‘বিগত এক যুগ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে, সে বিষয়গুলো আমি আমার বক্তব্যে উল্লেখ করেছিলাম। বৃহত্তর নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগের কিছু চামচা নেতা আছে। যারা বলেন, ওমুক নেতা, তমুক নেতার নেতৃত্বে বিএনপির দুর্গ ভেঙেছেন, সত্যি কথা হলো সাধারণ মানুষ বলে শেখ হাসিনা একলা কি করবে, এতে প্রতীয়মান হয় যে শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তার কারণে বৃহত্তর নোয়াখালীতে বিএনপির দুর্গ ভেঙে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা বেড়েছে।’

সেতুমন্ত্রীর ভাই বলেন, ‘১৯৯৬ সালে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন, তখন অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন করেন। ২০০৮ সাল থেকে অদ্যাবধি বাংলাদেশে যে সকল উন্নয়ন অর্জন হয়েছে ও হচ্ছে তার সবকিছু দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে হচ্ছে।’

বর্তমান সরকারের সময়কালে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা উল্লেখ করে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়-‘পদ্মাসেতু, মেট্রো রেল, কর্ণফুলী টানেল সহ সকল মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়ন হতে চলেছে। এ ছাড়া সমুদ্র সীমানা বিজয়, গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ, স্থলবন্দর স্থাপন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ, রেমিট্যান্স বৃদ্ধি, বৈদেশিক রিজার্ভ বৃদ্ধি, বড় বড় শহরগুলো ও জেলায় ফোরলেন নির্মাণ, মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি সার্বিকভাবে জাতীয় প্রবৃদ্ধি, বড় বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ সহ করোনাকালীন সময়ে দুর্যোগ মোকাবিলা করে দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ করার মানসে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি নিজ নির্বাচনী এলাকা ছাড়াও বৃহত্তর নোয়াখালীর উন্নয়ন ও সারা দেশে উন্নয়নের ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন।’

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা সম্প্রতি এক সভায় বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বৃহত্তর নোয়াখালীতে তিন-চারটা আসন ছাড়া বাকি আসনে আমাদের এমপিরা পালানোর জন্য দরজা খুঁজে পাবে না। এটাই হলো সত্য কথা। সত্য কথা বলতে হবে। আমি সাহস করে সত্য কথা বলছি।

আগামী ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় দ্বিতীয় ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে আবদুল কাদের মির্জা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র পদে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন। এ উপলক্ষে ৩১ ডিসেম্বর সকালে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট পৌরভবন চত্বরে ইশতেহার ঘোষণাকালে ওই বক্তব্য দেন তিনি।

তিনি নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির সহসভাপতি। এ নিয়ে টানা তৃতীয়বার বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেলেন।