বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কৃষকদের মূল দাবি না মেনে মোদি সরকারের ‘নরম সুর’

news-image

অনলাইন ডেস্ক : নয়া কৃষি আইন নিয়ে চলমান কৃষক আন্দোলনে নতুন মোড় নিয়েছে। সরকারের পদক্ষেপকে ‘নরম সুর’ হিসেবে বর্ণনা করছে ভারতের সংবাদমাধ্যম। তবে এও বলা হচ্ছে, মূল দাবি কৃষি আইন প্রত্যাহার নিয়ে কোনো প্রতিশ্রুতি মেলেনি।

এত দিন বৈঠকের সময় গুরুদ্বারার লঙ্গর থেকেই কৃষকদের জন্য চা-ডাল-রুটি পাঠানো হচ্ছিল বিজ্ঞান ভবনে। বুধবার কৃষক নেতাদের সঙ্গে সরকারের বৈঠকের সময় নরেন্দ্র সিং তোমার, পীযূষ গয়ালের মতো মন্ত্রীরা সেই লঙ্গরের খাবারই প্লেটে তুলেন। দ্বিতীয়বার চা-পানের বিরতিতে কৃষক নেতারাও নরম হন। তারা সরকারি চায়ের কাপ হাতে নেন।

আন্দোলনের চাপের মুখে কৃষকদের চারটি দাবির মধ্যে কেন্দ্র দুটি দাবি মেনে নেয়। তবে কৃষকদের মূল দাবি— তিন কৃষি আইনের প্রত্যাহার ও ফসলের দাম বা এমএসপি-র আইনি গ্যারান্টি নিয়ে বুধবারের বৈঠকেও সমাধানসূত্র মেলেনি। কৃষক নেতারা আইন প্রত্যাহারের দাবিতে অনড় থাকাতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা তাদের কাছেই এই জট কাটানোর সূত্র জানতে চায়।

বৈঠকে মন্ত্রীরা কৃষক নেতাদের অনুরোধ করেন, আইন প্রত্যাহার ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প থাকলে তা জানান। আইনে আরও সংশোধন দরকার হলে, তা-ও জানান। ৪ জানুয়ারি ফের বৈঠক হবে বলে ঠিক হয়েছে।

বুধবার কৃষক সংগঠনের সঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের পাঁচ ঘণ্টার বৈঠকে দুটি বিষয়ে ঐকমত্য হয়েছে। এক, দিল্লির দূষণ কমাতে রাজধানী ও সংলগ্ন রাজ্যে খড় পোড়ানোর দায়ে ৫ বছর পর্যন্ত জেল ও ১ কোটি টাকা পর্যন্ত জরিমানার ব্যবস্থা করে যে অধ্যাদেশ জারি হয়েছিল, কৃষকদের তার আওতার বাইরে রাখা হবে। দুই, বিদ্যুৎ আইনে প্রস্তাবিত সংশোধনী বিলে কৃষকদের দাবি ছিল, আগে সেচের জন্য যেভাবে বিদ্যুতে ভর্তুকি মিলত, সেভাবেই ভর্তুকি বজায় রাখতে হবে। সরকার সেই দাবিও মেনে নেয়। আদতে সরকারের প্রস্তাব ছিল, বিদ্যুৎ বণ্টন সংস্থা পুরো মাশুলই নেবে। রাজ্য চাইলে কৃষকদের অ্যাকাউন্টে ভর্তুকি দিতে পারে।

মোদি সরকার আগেই তিন কৃষি আইনে একগুচ্ছ সংশোধন করতে রাজি হয়েছিল। এ দিনের বৈঠকে মন্ত্রীরা জানান, সরকার আইনে আরও সংশোধন করতে রাজি। এমএসপি-তে ফসল কেনার ব্যবস্থা কীভাবে আরও ভালো করা যায়, তাও সরকার দেখবে। তবে কৃষি সংস্কারের আইন প্রত্যাহার নিয়ে মন্ত্রীরা জানায়, এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

তবে চারটি দাবির মধ্যে অন্তত দুটি বিষয়ে সরকার রাজি হওয়ায়, ৩১ ডিসেম্বর দিল্লির সীমানায় রিং রোডে যে ট্রাক্টর মিছিলের ডাক দেওয়া হয়েছিল, তা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে আন্দোলন যেমন চলছিল, তেমনই চলবে।

বৈঠকের পরে কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার অনুরোধ করেন, শৈত্যপ্রবাহের কথা মাথায় রেখে বয়স্ক ও নারীদের যেন আন্দোলন থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়। কৃষক নেতারা রাজি হননি। গত এক মাসের আন্দোলনে ৪০ জনের বেশি কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। কেন্দ্রের কাছে তাদের পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণ দাবি করেছেন কৃষক নেতারা।

বৈঠকের পরে কৃষক সভার নেতা হান্নান মোল্লা বলেন, ‘‘মন্ত্রীরা আজ প্রথম থেকেই নরম সুর নিয়েছিলেন। তারা বলেছেন, আপনাদের কথা মানতে আমরা রাজি। কিন্তু আমাদের সমস্যাটাও আপনারা বুঝুন।’’

কৃষক নেতাদের মতে, সরকারের ‘সমস্যা’ হলো প্রধানমন্ত্রী এতবার তিন কৃষি আইনের পক্ষে কথা বলেছেন যে, তা প্রত্যাহার করলে তার মুখ পুড়বে। সরকার ফের তিন কৃষি আইন খতিয়ে দেখতে দু’পক্ষের কমিটি বা আমলা-গোষ্ঠী তৈরির প্রস্তাব দেয়। কিন্তু কৃষক নেতারা তা খারিজ করে দেন। তবে এমএসপি-র বিষয়ে লিখিত প্রতিশ্রুতি দিতে রাজি বলে কৃষিমন্ত্রী ফের কৃষকদের জানান।

কিন্তু কৃষক নেতারা জানিয়ে দেন, মাত্র ছয় শতাংশ কৃষক এমএসপি-তে ফসল বেচতে পারেন। মোদি সরকার যতই স্বামীনাথন কমিশনের সুপারিশ মেনে চাষের খরচের দেড় গুণ ফসলের দাম দেওয়া হচ্ছে বলে দাবি করুক, আসলে সরকার স্বামীনাথনের কথা মতো সব খরচ হিসেব করছে না। হান্নান বলেন, ‘‘আমরা মন্ত্রীদের প্রশ্ন করেছি, আপনারা কি এমএসপি-র আইনি গ্যারান্টির বিষয়ে নীতিগতভাবে রাজি? মন্ত্রীরা জানিয়েছেন, এমন কথা তারা বলতে পারছেন না। তবে কৃষকদের প্রস্তাব মেনে এমএসপি ব্যবস্থা আরও লোল করা যায়।’’

আন্দোলনরত কৃষকেরা যেভাবে সংযম বজায় রেখেছেন, কৃষিমন্ত্রী তার প্রশংসা করেছেন। উল্টো দিকে আন্দোলনের দিকে বিজেপির নেতা-মন্ত্রীরা যে-ভাবে কাদা ছুড়ছেন, তার কড়া নিন্দা করেছেন কৃষক নেতারা।

এ জাতীয় আরও খবর