বৃহস্পতিবার, ২১শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে সরকার নজর দিচ্ছে

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীসহ সারা দেশে প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে বায়ুদূষণ। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সংস্থার গবেষণা অনুযায়ী বায়ুদূষণের কারণে বাংলাদেশে বছরে এক লাখেরও বেশি মৃত্যু হচ্ছে। এমন পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ চায় সরকার।

এজন্য দূষণ নিয়ন্ত্রণে নতুন প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বিশ্বব্যাংক ওই প্রকল্পের জন্য ৮০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (প্রায় ৬ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা) বরাদ্দের ঘোষণা দিয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের পাশাপাশি উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনারও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

পরিবেশ বন ও জলবায়ু মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীসহ সারা দেশে শীত মৌসুমে বায়ুদূষণ উর্ধ্বমুখী থাকে। বিশেষ করে শীত মৌসুমের কয়েক মাস ঢাকাসহ শিল্প কারখানাসমৃদ্ধ এলাকাগুলোতে বায়ু দূষণ অব্যাহত থাকে। ফলে দূষণ নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দিয়েছে পরিবেশ বন ও জলবায়ু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। আর মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বায়ুদূষণ রোধে নতুন প্রকল্প গ্রহণের কথা সংসদীয় কমিটিকে জানানো হয়েছে। সংসদীয় কমিটির সুপারিশ ও বিশ্বব্যাংকের পরামর্শ অনুযায়ী ‘বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্টাল সাসটেইনেবল ট্রান্সফরমেশন (বেস্ট)’ শীর্ষক একটি প্রকল্প প্রণয়ন করা হয়েছে।

জানা গেছে, চলতি অর্থবছরেই প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। তাছাড়া বায়ুদূষণ রোধে পরিবেশ অধিদপ্তরকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নির্দেশও দিয়েছেন হাইকোর্ট। নভেম্বর, ডিসেম্বর, জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে বাংলাদেশের মানুষ সবচেয়ে ক্ষতিকর বাতাসে বাস করে। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ওই সময়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশে নির্মলবায়ূ ও টেকসই পরিবেশ (কেইস) প্রকল্পে অর্থায়ন করেছে। ওই প্রকল্পে বরাদ্দ ছিল ৮০২ কোটি টাকা। কেইস প্রকল্পে মূলত প্রাতিষ্ঠানিক অবকাঠামো ও কারিগরি জ্ঞান বৃদ্ধির বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর, ঢাকা সিটি কর্পোরেশন, ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ) সহায়তা করা হয়। ওই প্রকল্পটির ধারাবাহিকতা রক্ষায় বেস্ট প্রকল্পের জন্য ৬ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। আর প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে রাজধানী ঢাকা ও উপ-শহরগুলোর দূষণ নিয়ন্ত্রণে আনা হবে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) যুগ্ম সম্পাদক মিহির বিশ্বাস গণমাধ্যমকে বলেন, রাজধানীতে বায়ুদূষণ উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে। বায়ুদূষণের কারণে মানুষের শরীরে নানা রোগবালাই যেমন বাসা বাঁধছে, তেমনি মনের মধ্যেও রোগশোকের জন্ম দিচ্ছে। দূষণ রোধে ইতোপূর্বে বিভিন্ন প্রকল্প নেয়া হলেও তার সুফল পাওয়া যায়নি। প্রকল্প বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সংসদীয় কমিটির বৈঠকেও সেটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আগামীতে প্রকল্প বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।

পরিবেশ অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক ড. এস এম মনজুরুল হান্নান খান বলেন, কেইস প্রকল্পের মাধ্যমে বায়ুদূষণ রোধে সারা দেশে ১৬টি স্থায়ী সার্বক্ষণিক বায়ুমান নির্ধারণী কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে, ১৫টি মোবাইল বায়ুমান নির্ধারণী কেন্দ্রসহ ৩১টি বায়ুমান নির্ধারণী কেন্দ্রে করা হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের জন্য ১৪ তলাবিশিষ্ট একটি আধুনিক ভবন, আন্তর্জাতিক মানের একটি অডিটোরিয়াম ও একটি আধুনিক ল্যাবরেটরি তৈরি করা হয়েছে।