বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাবার আত্মজীবনী নিয়ে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ছেলে-মেয়ের প্রকাশ্য বিরোধ

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দুজনেই স্বনামধন্য পিতার সন্তান হলেও তাদের নিজস্ব রাজনৈতিক পরিচয়ও আছে। একজন অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়, কংগ্রেসের নেতা ও বাবার ছেড়ে যাওয়া জঙ্গিপুর লোকসভা আসন থেকে দুইবারের এমপি, যদিও এখন সাবেক। দ্বিতীয়জন তারই ছোট বোন শর্মিষ্ঠা, তিনি দিল্লিতে কংগ্রেসের মুখপাত্র এবং দক্ষিণ দিল্লির একটি আসন থেকে ওই দলের হয়ে ভোটেও লড়েছেন।

কিন্তু ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি, বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু তথা ‘নড়াইলের জামাতা’ প্রণব মুখোপাধ্যায়ের এই দুই ছেলেমেয়ে এখন বাবার প্রকাশ হতে যাওয়া আত্মজীবনী নিয়ে যেভাবে নিজেদের মধ্যে প্রকাশ্য ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েছেন তা কার্যত নজিরবিহীন। বোনের বক্তব্য, তার দাদা ‘সস্তা প্রচার’পেতে চাইছেন। অন্যদিকে দাদা বলছেন, ‘যার-তার কথায়’ কান দেওয়ার দরকার নেই!

বিতর্কের সূত্রপাত প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আত্মজীবনীর চতুর্থ পর্ব ‘মাই প্রেসিডেন্সিয়াল ইয়ার্স’-এর কিছু অংশ সম্প্রতি সামনে আসার পর।

ওই বইটি আগামী বছরের জানুয়ারিতে প্রকাশ হওয়ার কথা। তার আগে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে সেটির সংক্ষিপ্ত কিছু অংশ বের হয়েছে। আর তাতে দেখা যাচ্ছে, ২০১৪ সালে ভারতের নির্বাচনে (যাতে জিতে নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন) কংগ্রেসের ভরাডুবির জন্য প্রণব মুখোপাধ্যায় পরোক্ষভাবে সোনিয়া গান্ধী ও মনমোহন সিংকে দায়ী করেছেন।

১১ ডিসেম্বর প্রণব মুখোপাধ্যায়ের জন্মদিনে প্রকাশিত ওই সারাংশে দেখা যাচ্ছে, তিনি লিখেছেন, ‘কংগ্রেসের বেশ কিছু সদস্যের ধারণা ছিল ২০০৪ সালে আমি প্রধানমন্ত্রী হলে ২০১৪’-এর বিপর্যয় হয়তো এড়ানো যেত। আমি নিজে যদিও ওই মতে বিশ্বাস করি না, কিন্তু এটা মানি যে আমি রাষ্ট্রপতি পদে উন্নীত হওয়ার পর দলীয় নেতৃত্বের ফোকাস অবশ্যই সরে গিয়েছিল। সোনিয়া গান্ধী তখন দলের কাজকর্ম সামলাতে অক্ষম ছিলেন, আর পার্লামেন্টে মনমোহন সিংয়ের দীর্ঘ অনুপস্থিতির কারণে অন্য এমপিদের সঙ্গে তার সম্পর্ক নষ্ট হয়ে গিয়েছিল।’ রীতিমতো বিতর্ক তৈরি করার মতো মন্তব্য, কোনও সন্দেহ নেই।

এই বইটি বের করছে ভারতের প্রকাশনা সংস্থা রূপা পাবলিকেশনস। তারা চারটি খণ্ডে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আত্মজীবনী বের করার জন্য ২০১৩ সালেই তার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিল। এর প্রথম তিনটি পর্ব প্রকাশিত হয়েছে প্রণব মুখোপাধ্যায় জীবিত থাকাকালীনই। তবে চতুর্থ তথা শেষ পর্বটি বের হবে সেপ্টেম্বর মাসে তার প্রয়াণের মাস চারেক পর।

কিন্তু বইটির প্রকাশ নিয়ে এখন ঘোরতর আপত্তি তুলেছেন প্রণবের ছেলে ও প্রাক্তন কংগ্রেস এমপি অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। তিনি গতকাল মঙ্গলবার টুইট করে দাবি জানিয়েছেন, ‘প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ছেলে হিসেবে দাবি করছি, আমি পুরো বইটা পড়ে ছাড়পত্র দেওয়া না পর্যন্ত এটির প্রকাশনা যেন বন্ধ রাখা হয়। আমার বিশ্বাস, বাবা আজ বেঁচে থাকলে তিনিও ঠিক এটাই করতেন।’ সেই টুইটে প্রকাশনা সংস্থা রূপা পাবলিকেশনসকেও ট্যাগ করেন তিনি।

শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায় ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই টুইটারে পাল্টা প্রতিক্রিয়া জানান। তিনি লেখেন, ‘প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মেয়ে হিসেবে আমি বলবো, আমার ভাই অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় যেন বইটির প্রকাশনায় কোনও অনাবশ্যক বাধা সৃষ্টি না করেন। মনে রাখতে হবে, আমার বাবা অসুস্থ হওয়ার আগেই কিন্তু বইটির পান্ডুলিপির কাজ শেষ করে গিয়েছিলেন।’ নিছক ‘সস্তা প্রচার’ পাওয়ার জন্য কেউ যাতে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ব্যক্তিগত ও স্বাধীন মতামত প্রকাশে বাধা না-দেয়, সে ব্যাপারেও সতর্ক করে দেন শর্মিষ্ঠা।

টুইটার-ঝগড়া এতেই থামেনি। এদিন (বুধবার) সকালে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় বোনের নাম উল্লেখ না করে আবার লেখেন, ‘কারও কারও ধারণা আমি বাবার আত্মজীবনীর প্রকাশ ঠেকাতে চাইছি। মোটেই না। আমি শুধু চাইছি প্রকাশের পুরো বইটা আমাকে পড়তে দেওয়া হোক, যেটা লেখকের ছেলে হিসেবে আমার অধিকার!’

বোনকে ‘কারও কারও’ বলা থেকেই পরিষ্কার, প্রণব মুখার্জির দুই ছেলেমেয়ের মধ্যে মতবিরোধ কোন পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে।

ভারতের ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি রাইটস বা মেধাস্বত্বের বিশেষজ্ঞরা অবশ্য বলছেন, যখন কোনও প্রকাশনা সংস্থা ও লেখকের মধ্যে কোনও বই নিয়ে চুক্তি থাকে–তখন লেখকের মৃত্যুর পর সেই বইয়ের বিষয়বস্তু নিয়ে তার উত্তরাধিকারীরা কোনও প্রশ্ন তুলতে পারেন না।

তবে হ্যাঁ, রয়্যালটির প্রশ্নে অভিজিৎ বা শর্মিষ্ঠার কোনও বক্তব্য থাকলে তারা প্রকাশনা সংস্থার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে পারেন। কিন্তু বইয়ে কী লেখা হয়েছে সেটাতে আপত্তি জানানোর অধিকার তাদের কারোরই নেই বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝগড়া করার অধিকার তাদের অবশ্যই আছে, এবং দুই ভাইবোন এখন ঠিক সেটাই করে চলেছেন।