বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রেল পরিচালনায় কর্মকর্তাদের ভুল সিদ্ধান্তে বাড়ছে ঝুঁকি

news-image

অনলাইন ডেস্ক : চট্টগ্রাম: রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলে পরিবহন কর্মকর্তাদের ভুল সিদ্ধান্তে বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে রেল পরিচালনায়। গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনে অনভিজ্ঞ স্টেশন মাস্টার পদায়ন, অকারণে গুরুত্বপূর্ণ মেইন লাইন স্টেশন মাস্টারদের বদলি এবং নতুন স্টেশন মাস্টারদের ওপরের পদে পদায়নের কারণে স্টেশন বন্ধের উপক্রম হয়েছে।

গত ২২ নভেম্বর পরিবহন বিভাগ থেকে ২১ জন স্টেশন মাস্টারের একটি বদলি আদেশ জারি করা হয়। ওই আদেশে ঢাকা-চট্টগ্রাম মেইন লাইনের সদর রসুলপুর স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার রাকিবুল ইসলামকে পাহাড়তলী স্টেশনে বদলি করা হয়। এতে দুইজন মাস্টার দিয়ে ওই স্টেশন পরিচালনা অসম্ভব হয়ে পড়ে। ফলে সেটি বন্ধ করে দেওয়ার প্রস্তাব দেন প্রধান মাস্টার প্রসেনজিৎ।

স্টেশন বন্ধের বিষয়টি জানালে বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) স্নেহাশীষ দাশ গুপ্ত দুজন দিয়ে কাজ চালিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেন। অন্যথায় তাকে বরখাস্তের হুমকিও দেন। কিন্তু প্রসেনজিৎ তার সিদ্ধান্তে অটল থাকায় শেষ পর্যন্ত রাজাপুর স্টেশনের কার্যক্রম ৮ ঘণ্টা বন্ধ রেখে সেখানের একজন মাস্টারকে সদর রসুলপুরে পাঠালে স্টেশনের অপারেশন থাকলেও রাজাপুর স্টেশন বন্ধের উপক্রম হয়েছে।

প্রসেনজিৎ বলেন, স্টেশনের পাশে থাকার কোনো কোয়ার্টারও নেই। তিনজন হলে শিফটিং ডিউটি করা যায়। কিন্তু দুজন দিয়ে কোনোভাবেই স্টেশন পরিচালনা করা সম্ভব নয়। আমার স্টেশনে ডিটিও সাহেব দুজন দিয়ে কাজ চালিয়ে নেওয়ার জন্য চাপ দেন। আমি না মানতে চাইলে বরখাস্তের হুমকি দেন।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, চাকরির বিধি অনুযায়ী একজন সহকারী স্টেশন মাস্টার চাকরিতে যোগ দেওয়ার পর তিন বছরের মধ্যে বদলির সুযোগ নেই। স্টেশন মাস্টার গ্রেড-৪ বা গ্রেড-৩ এ পদায়নেরও সুযোগ নেই। কারণ সহকারী স্টেশন মাস্টার থেকে স্টেশন মাস্টার গ্রেড-৩ পদে যেতে ১৫ বছরের অভিজ্ঞতার প্রয়োজন। এই পদের মাস্টারদের গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনগুলোতে পদায়নের বিধান রয়েছে।

এছাড়া রেলের ১৯৮২ সালের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে-কাউকে হয়রানিমূলক বদলি করা যাবে না। অথচ এসবের তোয়াক্কা না করেই ইচ্ছে মতো বদলি করা হচ্ছে।

জানা যায়, ২০০৫ সালে চাকরিতে যোগ দেওয়া নীতিশ চাকমা চট্টগ্রাম জংশন কেবিনে দায়িত্ব পালন করছিলেন এসএম গ্রেড-৪ হিসেবে। তিনি হেপাটাইটিস-বি রোগী হওয়ায় মানবিক কারণে দূরে বদলি করেনি প্রশাসন। কারণ তিন মাস অন্তর তাকে চেকআপে যেতে হয়। বর্তমান আদেশে তাকে রাজাপুর স্টেশনে পাঠানো হয়েছে। এতে জীবন ঝুঁকিতে পড়েছেন তিনি। মানবিক বিষয়টি ডিটিওকে অবহিত করা হলেও তা আমলে নেওয়া হয়নি।

নীতিশ চাকমা বলেন, বদলির আদেশের পর রোগের বিষয়টি ডিটিওকে জানাই। কিন্তু তিনি এরপরও বদলির আদেশ বাতিল করেননি। বর্তমানে আমাকে যেখানে বদলি করা হয়েছে সে জায়গায় যোগ দিয়েছি।

অন্যদিকে ২০১৯ সালে যোগ দেওয়া এএসএম রাকিবুল ইসলামকে পাহাড়তলী, আতিকুর রহমানকে মহুরীগঞ্জের রাজাপুর থেকে চট্টগ্রাম জংশন কেবিনে এবং শফিকুল ইসলাম রনিকে কসবা থেকে ফৌজদারহাট স্টেশনে পদায়ন করা হয়েছে।

পাহাড়তলী স্টেশনের পদটি হলো এসএম গ্রেড-৩ সমমানের। ফলে এএসএম দিয়ে স্টেশন পরিচালনা করলে বড় ধরনের ঝুঁকির আশঙ্কা রয়েছে। আবার বিধি অনুযায়ী উপরের পদে দেওয়ার সুযোগ নেই। অন্যদিকে কসবা থেকে ফৌজদারহাট স্টেশন ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় সেখানে সিনিয়র মাস্টার দেওয়া হয়।

সর্বশেষ ৫ ডিসেম্বর পাহাড়তলী স্টেশনে স্টেশন মাস্টার রাকিবুল ইসলামের ভুলে সাগরিকা এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনায় পতিত হয়। এ ঘটনায় তাকেসহ দুজনকে বরখাস্তও করা হয়।

এদিকে মেইন লাইনে স্টেশন মাস্টার সংকট হলেও অপ্রয়োজনীয় স্টেশনে চাহিদার বেশি মাস্টার পদায়ন করা হয়েছে। চট্টগ্রামের জ্বালানি হাট ও পটিয়া স্টেশনে রাত ৮টার পর কোনো ট্রেন নেই। কিন্তু সেখানে তিনজন করে মাস্টার দায়িত্ব পালন করছেন। অথচ স্টেশন দুজন হলেই চলাচল স্বাভাবিক থাকে। একইভাবে পাহাড়তলী কন্ট্রোল রুমেও প্রয়োজনের বেশি লোক কাজ করছে। তিন ভাগে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১২ জন হলে কাজ চলে। কিন্তু সেখানে ১৬ জনকে পদায়ন করা হয়েছে।

বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা স্নেহাশীষ দাশ গুপ্ত বলেন, আগে তারা স্টেশনে দুজন করে এক সপ্তাহ করে ডিউটি করতো। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর, এটি বন্ধ করতে চট্টগ্রাম থেকে গঙ্গাসাগর স্টেশন পর্যন্ত তিনজন করে দায়িত্ব দিয়েছি।

অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, মূলত তারা এক সপ্তাহ ডিউটি করতো বাকি এক সপ্তাহ ঘরে বসে থাকতো। আমি এগুলো বন্ধ করছি, তাই তারা প্রশ্ন তুলছে। বদলির ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম হয়নি। নিয়মের মধ্যে থেকে ২১ জনকে বদলি করা হয়েছে। সূত্র : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম