সোমবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

স্বপ্নের ‘বিনিয়োগ রাজধানী’ হচ্ছে চরাঞ্চলে

news-image

অনলাইন ডেস্ক : শুধু মিরসরাই উপকূলীয় অঞ্চলের পাঁচ হাজার একর জমি ঘিরে দেশের প্রথম অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার স্বপ্ন ছিল বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা)। সময়ের ব্যবধানে সেই স্বপ্ন প্রতিবেশী উপজেলা সীতাকুণ্ড থেকে পাশের জেলা ফেনীর সোনাগাজী উপজেলা পর্যন্ত বিস্তৃত হয়ে এখন ৩০ হাজার একরের ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর’ হিসেবে প্রস্তুত হচ্ছে। বঙ্গোপসাগরের তীর ঘেঁষে জেগে ওঠা বিশাল চরাঞ্চলটি একসময় ছিল মাছ চাষ আর গবাদি পশুর বিচরণক্ষেত্র। কিন্তু লবণাক্ততার কারণে আপাত ব্যবহার অনুপযোগী এই ধু ধু চরাঞ্চলজুড়ে এখন চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। অদূর ভবিষ্যতে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ আর সন্দ্বীপের জেগে ওঠা চর সংযুক্ত হয়ে ৫০ হাজার একরের এশিয়ার সর্ববৃহৎ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার স্বপ্ন বুনছে বেজা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরকে (বিএসএমএসএন) একটি সবুজ শিল্পনগর হিসেবে গড়ে তুলতে নতুন প্রকল্পের আওতায় চার হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে যাচ্ছে বেজা। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৫ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে চায় সংস্থাটি। এর মাধ্যমে এই শিল্পনগরে টেকসই বেসরকারি বিনিয়োগ পরিবেশ গড়ে তোলা হবে। প্রাইভেট ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড ডিজিটাল এন্টারপ্রেনারশিপ (প্রাইড) প্রকল্পের অধীনে বিশ্বব্যাংক এ উদ্যোগে ৪৬৭ মিলিয়ন ডলার (প্রায় তিন হাজার ৯৭০ কোটি টাকা) অর্থায়ন করবে।

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, ‘বেজার কর্মকাণ্ডে খুশি হয়ে বিশ্বব্যাংক তাদের সহায়তা অব্যাহত রেখেছে। নতুন এ উদ্যোগের ফলে দেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে আরো বেশি বিদেশি বিনিয়োগ আসবে।’

এ প্রকল্পের অধীনে এই শিল্পনগরের ভেতরে ৩০ কিলোমিটার সড়ক তৈরি করবে। সেই সঙ্গে একটি কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার, লবাণাক্ততা দূর করার প্লান্ট, সৌরবিদ্যুৎ ব্যবস্থাসহ অবকাঠামোগত অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা গড়ে তোলা হবে।

এ প্রসঙ্গে পবন চৌধুরী বলেন, ‘আমরা শিগগিরই দক্ষিণে সীতাকুণ্ডের সীমানা চূড়ান্ত করব। এ ছাড়া পশ্চিমে সন্দ্বীপ এবং উত্তর-পশ্চিমে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ পর্যন্ত এর আওতা বাড়তে পারে। সন্দ্বীপে ১৩ হাজার একর এবং কোম্পানীগঞ্জে ১৫ হাজার একর জমি বেজার আওতায় আনা হচ্ছে।’

বর্তমানে প্রায় ১৫টি কম্পানি প্রকল্প এলাকায় নির্মাণকাজ করছে। প্রকল্প এলাকায় ইতিমধ্যে গ্যাস-বিদ্যুতের সংস্থান হয়েছে। সড়ক যোগাযোগ তৈরির কাজ চলছে। চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে পৃথক রোড নেটওয়ার্কের আওতায় সাগরপারে নির্মিত হচ্ছে উপকূলীয় বেড়িবাঁধ-কাম সড়ক। ইতিমধ্যে বেজার অংশে তিন কিলোমিটার দীর্ঘ এলাকায় বাঁধ নির্মাণের কাজ শেষ। এখন বেজার শেষ প্রান্ত থেকে সাগরপার হয়ে ফৌজদারহাট পর্যন্ত হবে উপকূলীয় বেড়িবাঁধ-কাম সড়ক।

মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে পোশাক কারখানা, জাহাজ নির্মাণ শিল্প, ইস্পাত, অটোমোবাইল, বস্ত্র কারখানা, রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানা, স্টিল কারখানা গড়ে উঠবে।

বেজার তথ্য অনুসারে, এ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে দেশ-বিদেশের মোট ১৯ বিলিয়ন ডলার বা এক লাখ ৬১ হাজার কোটি টাকা সমমূল্যের বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছে। এর মধ্যে সিঙ্গাপুরের উইলমার, ভারতের আদানি গ্রুপ ও জাপানের নিপ্পন স্টিলের মতো বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলার। বিনিয়োগে পিছিয়ে নেই বাংলাদেশি শিল্প গ্রুপগুলোও। প্রায় দুই হাজার একর জমিতে বিনিয়োগ করতে চায় দেশের অন্যতম শীর্ষ শিল্প গ্রুপ বসুন্ধরা, পিএইচপি, কেএসআরএম, বিএসআরএমসহ বিভিন্ন গ্রুপ। ৯ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগের প্রস্তাব স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে এসেছে। এর মধ্যে ১২০টি প্রতিষ্ঠানের এক লাখ চার হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ নিশ্চিত হয়েছে, যার মাধ্যমে ১৫ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে। ইতিমধ্যে ১৫টি প্রতিষ্ঠান কারখানা নির্মাণের কাজ শুরু করেছে। ২০২১ সালের মধ্যে আরো ২০টি কম্পানির কারখানা স্থাপনের কাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

বঙ্গোপসাগরের সন্দ্বীপ চ্যানেলের কোল ঘেঁষে ৫৫০ একর জায়গাজুড়ে গড়ে ওঠা বসুন্ধরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইকোনমিক জোনের ভিত্তিপ্রস্তর গত মার্চে স্থাপন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ২৫০ একর জমি ভরাট করে বিনিয়োগ উপযোগী করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে বসুন্ধরা কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড নামের কারখানা তৈরির কাজ চলছে। আগামী দুই বছরের মধ্যে চালু হলে এই কারখানায় প্রায় পাঁচ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে। এই প্রকল্পে কেমিক্যাল, সোডা অ্যাশ ও ইস্পাত কারখানা হবে। এর মধ্যে সোডা অ্যাশ কারখানাটি হবে বাংলাদেশে প্রথম।

প্রকল্পে বড় বিনিয়োগ প্রস্তাব করেছে পিএইচপি গ্রুপ। বিদেশি কম্পানির সঙ্গে যৌথ বিনিয়োগে পিএইচপি স্টিল ওয়ার্কস সেখানে স্টিলমিল স্থাপন করবে। গ্রুপটি ৫৬৪ একর জমিতে ৩৪ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের প্রস্তাব দিয়েছে।

শিগগিরই উৎপাদনে আসবে দেশীয় প্রতিষ্ঠান মডার্ন সিনটেক্স। এ ছাড়া এশিয়ান পেইন্টস, অনন্ত এবং বিদেশি বিখ্যাত কম্পানি জোজো, ম্যাকডোনাল্ড ও জাপানি কম্পানি সুজিতসু কারখানা নির্মাণের কাজ করছে। সাগরপারে একটি বন্দর নির্মাণেরও উদ্যোগ নিয়েছে জাপানি কম্পানিটি।

এই শিল্পনগরে এক হাজার ৫৪ একর জমিতে গড়ে উঠবে ‘ইন্ডিয়ান ইকোনমিক জোন’। পাশাপাশি একটি আইটি পার্ক করতে ৭২০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে ভারত। এ ছাড়া সিঙ্গাপুর, সৌদি আরব, অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়ার বিভিন্ন কম্পানিও এখানে বিনিয়োগ করবে। খ্যাতনামা গ্রুপ ইয়াবাং একাই ১০০ একর এলাকায় বিনিয়োগ করবে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার। জানা গেছে, চারটি চীনা কম্পানিকেও বিনিয়োগের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরে ইতিমধ্যে সাত হাজার একর জায়গা শিল্প স্থাপনের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আরো এক হাজার একর জমি বরাদ্দের প্রক্রিয়া চলছে। বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেপজা) এক হাজার ১৫০ একর জায়গাজুড়ে গড়ে তুলছে ‘বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চল’। ভূমি উন্নয়নের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। আগামী বছরের শুরুর দিকে প্লট বরাদ্দ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন বেপজার মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) নাজমা বিনতে আলমগীর। এ ছাড়া পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর জন্য ‘পোশাক পল্লী’ নির্মাণ করতে ৫০০ একর জমি ভরাট ও উন্নয়নের কাজ শেষ হয়েছে বলে জানা গেছে।

বিজিএমইএর সাবেক পরিচালক ও বিজিএমইএ গার্মেন্ট জোনের প্রজেক্ট ইনচার্জ সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমাদের ৩২১ একর জমি ঢাকা ও চট্টগ্রামের ৬১টি প্রতিষ্ঠান বরাদ্দ নিয়েছে। আশা করছি আগামী বছরের জুন নাগাদ বরাদ্দ বুঝে পাব। এই জোনে অন্তত এক বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের পাশাপাশি দেড় লাখ বাংলাদেশির কর্মসংস্থান হবে।’ সূত্র : কালের কণ্ঠ