[bangla_day], [english_date] [bangla_date]

ছুটির দিনে সড়কে ঝরল ২৪ প্রাণ

news-image

অনলাইন ডেস্ক : কয়েকদিন ধরে ডায়রিয়ার ভুগছিল চার বছরের রাধা মনিদাশ। অবস্থা খারাপ হওয়ায় শুক্রবার দুপুরে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় তাকে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছিলেন বাবা গোবিন্দ মনিদাশ। সঙ্গে ছিলেন শিশুটির মাসহ পরিবারের আরও চার সদস্য। তবে হাসপাতালে আর পৌছানো হয়নি তাদের। পথেই দৌলতপুর উপজেলার মুলকান্দি এলাকায় তাদের বহনকারী অটোরিকশার সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় বিপরীত দিক থেকে আসা যাত্রীবাহী একটি বাসের। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান ওই পরিবারের ছয় সদস্য। মারা যান অটোরিকশা চালকও। তাদের হাসাপাতালযাত্রা রূপ নেয় শবযাত্রায়।

এছাড়াও শুক্রবার সড়ক দুর্ঘটনায় রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আরও ১৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এরমধ্যে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারিয়েছেন যাত্রীবাহী একটি বাসের ছয়জন। রাজধানীতে পৃথক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেছে এক শিশু ও এক কলেজছাত্রের। এছাড়া মাগুরায় তিনজন এবং ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল, নাটোর, নরসিংদীর শিবপুর ও হবিগঞ্জের বাহুবলে শিশুসহ ছয়জন সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন।

বিস্তারিত সমকাল প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের খবরে-

মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে নিহত এক পরিবারের ছয়জন হলেন- টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার চাষাভাদ্রা গ্রামের গোবিন্দ মনিদাশ (২৮), তার স্ত্রী ববিতা মনিদাশ (২৫) ও মেয়ে রাধা মনিদাশ এবং গোবিন্দর বাবা হরেকৃষ্ণ মনিদাশ (৫৫), ঠাকুমা খুশি বালা (৭২) ও চাচাতো ভাই রামপ্রসাদ মনিদাশ (৩২)। এ দুর্ঘটনায় নিহত অপরজন অটোরিকশা চালক জামাল শেখ (৩০)। তার বাড়ি দৌলতপুর উপজেলার সমেতপুর গ্রামে।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করীম জানান, দুপুর আড়াইটার দিকে ঘিওর-দৌলতপুর আঞ্চলিক সড়কের মুলকান্দি এলাকায় ওই অটোরিকশার সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা ভিলেজ লাইন পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসের সংঘর্ষ হয়। দুর্ঘটনার পর বাসের চালক ও তার সহকারী পালিয়ে যান।

সন্ধ্যায় চাষাভাদ্রা গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, একমাত্র ছেলে, স্বামী, পুত্রবধু ও নাতনিকে হারিয়ে নির্বাক হয়ে পড়েছেন গোবিন্দর মা ঝর্ণা মনিদাশ। প্রতিবেশী ও স্বজনরা সান্ত্বনা দিলেও কান্না থামছে না তার।

প্রতিবেশী রেনু বালা জানান, পেশায় নরসুন্দরের কাজ করতেন গোবিন্দ। তার বাবা হরেকৃষ্ণ অটোরিকশা চালক ছিলেন। অসুস্থ রাধাকে নিয়ে বাড়ি থেকে মানিকগঞ্জ হাসপাতালে যাচ্ছিলেন তারা। এ দুঘর্টনায় গোবিন্দর মা ছাড়া বাড়ির সবাই মারা গেছেন। তাদের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এদিকে শুক্রবার সকালে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার কুর্নি এলাকায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে বিকল হয়ে পড়া যাত্রীবাহী একটি বাসকে মেরামতের জন্য দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। সেবা ক্লাসিক পরিবহনের ওই বাসটি রংপুর থেকে ঢাকা যাচ্ছিল। সকাল সাড়ে সাতটার দিকে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা বাসটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয় ঢাকামুখী সবজিবাহী একটি ট্রাক। এতে নিহত হন বাসযাত্রীসহ ছয়জন। তারা হলেন- বাসযাত্রী রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার ধরলাকান্দি গ্রামের জয়নাল হোসেনের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (৩৪), পারভেজ হোসেনের ছেলে সিরাজুল ইসলাম (৩১), ইসহাক মন্ডলের ছেলে হান্নান মন্ডল (৫০), হরিরামসাহাপুরের রাজাকপুর গ্রামের মৃত নুলু খানের মেয়ে নুরুন নাহার লুহানা (১৬) ও সোবহান খানের ছেলে সৈকত খান (১২) এবং বাসচালকের সহকারী পীরগঞ্জ উপজেলার সানের হাট গ্রামের রতন মিয়ার ছেলে চুন্নু মিয়া (৩২)।

রাজধানীর মতিঝিলের বক চত্বর এলাকায় শুক্রবার সকালে আল মক্কা পরিবহনের একটি বাস ও সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশার সংঘর্ষ হয়। এতে মারা যায় অটোরিকশায় পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে থাকা শিশু নুসাইবা আক্তার (১০)। আহত হন নুসাইবার ভাই জাকির হোসেন, তার স্ত্রী শিউলী আক্তার, জাকিরের নানী রওশন আরা ও অটোরিকশা চালক হাফিজ। জাকিরদের বাড়ি ঢাকার কেরানীগঞ্জের আমিনপাড়া এলাকায়। এছাড়া যাত্রাবাড়ীর মানিকদিয়া এলাকায় সকালে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী কলেজছাত্র ইফতিখার খলিল ইফতি (১৮) নিহত হন। এ ঘটনায় মোটরসাইকেলে থাকা ইফতির বন্ধু অনন্দ বড়ূয়াও আহত হন। রাজারবাগ পুলিশ লাইন স্কুল অ্যান্ড কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ইফতির বাসা বাসাবোর কদমতলা এলাকায়। তার বাবার নাম মো. খলিল। ইফতি মোটরসাইকেলটি চালাচ্ছিলেন।

মাগুরা সদরের ঠাকুরবাড়ী এলাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে বিকেলে সবজিবাহী ট্রাকচাপায় নিহত হন শালিখা উপজেলার থৈয়পাড়া গ্রামের মিল্টন মজুমদারের স্ত্রী ব্র্যাক কর্মী স্বর্ণা মজুমদার এবং ভাই সুব্রত মজুমদারের স্ত্রী সাথী মজুমদার। এছাড়া মহম্মদপুর উপজেলার রাজাপুর এলাকায় ইজিবাইকের ধাক্কায় প্রাণ হারান মোটরসাইকেলে থাকা পল্লী চিকিৎসক আহাদ আলী। তার বাড়ি নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার কলিনগর গ্রামে।

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলায় বানা ইউনিয়নের বানা বাজার এলাকায় দুপুরে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আলী হামজা (০২) নামে এক শিশু নিহত হয়। সে বেলবানা গ্রামের মমিনুর রহমানের ছেলে। বাড়ির সামনে খেলার সময় মোটরসাইকেলের সঙ্গে শিশুটির ধাক্কা লাগে।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের গালা ইউনিয়নের চরবর্ণিয়া গ্রামে সকালে রাস্তা পার হওয়ার সময় করিমন চাপায় নিহত হয় চার বছরের তোয়া খাতুন। সে ওই গ্রামের আলী আকবরের মেয়ে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের ইসলামাবাদ এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সন্ধ্যায় রাস্তা পার হওয়ার সময় টিআর পরিবহনের বাসচাপায় নিহত হন বাহা মিয়া (৭০) নামে এক পথচারী।

নাটোর-ঢাকা মহাসড়কের হয়বতপুর এলাকায় রাস্তা পারাপারের সময় সকালে ট্রাকচাপায় আলাল ফকির (৬৫) নামে এক পথচারী মারা যান। তিনি ওই এলাকার মৃত মাসুম ফকিরের ছেলে।

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার ইটাখোলা-মঠখোলা আঞ্চলিক সড়কের জামতলা এলাকায় দুপুরে পিকআপ-নসিমন-সিএনজিচালিত অটোরিকশার ত্রিমুখী সংঘর্ষে নসিমন চালক ইউসুফ আলী (৬০) নিহত হন। তিনি উপজেলার পোরান্দিয়া এলাকার মৃত হাসান আলীর ছেলে।

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার মিরপুর এলাকার চারগাঁওয়ে সকালে মাইক্রোবাস চাপায় আরশাদ আলী (৬০) নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়। তিনি চারগাঁও গ্রামের মৃত সফর আলীর ছেলে। সূত্র : সমকাল

 

এ জাতীয় আরও খবর

কাকরাইলে সংঘর্ষে ৩ মামলা, আসামি ৪ হাজারের বেশি

বড় জয় পেল লিভারপুল

কখনো পাপিয়া, কখনো পরীমনি, কখনো সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা : মান্না

‘পুলিশ-র‌্যাবের সামনে ভাঙচুর করল সন্ত্রাসীরা, আর মামলা আমাদের বিরুদ্ধে’

ঢাকামুখী অভিবাসন রোধ করতে হবে : তাপস

সৌদিতে বিধিনিষেধ শিথিল, মাস্ক পরতে হবে না

কারাগারের ক্যান্টিনে যা খাচ্ছেন আরিয়ান

ইয়েমেনে সৌদি জোটের হামলা, নিহত ১৬০

অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলার মন্ত্র জানল বাংলাদেশ

মেয়েকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে মৌসুমী, যেতে পারেনি সানী

প্রথম বল থেকেই ম্যাচ আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে : মাহমুদউল্লাহ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ করে ‘ইমামতি’ করা উচিত : কাদের মির্জা