বুধবার, ১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতার ব্যাখ্যা দিলেন মামুনুল

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতা করে আগের দেওয়া বক্তব্যের ব্যাখ্যা হাজির করেছেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক। তিনি বলেন, ভাস্কর্যের বিরোধিতা মানে বঙ্গবন্ধুর বিরোধিতা নয়। একটি মহল তাকে সরকারের মুখোমুখি দাঁড় করানোর অপচেষ্টা করছে।

রোববার রাজধানীর পল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মামুনুল হক। রাজধানীর ধোলাইপাড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতা করায় তাকে গ্রেপ্তার করার দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে ছাত্রলীগ ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চসহ বিভিন্ন সংগঠন।

ওয়াজ মাহফিলের বক্তা মামুনুল হককে দেশের বিভিন্ন স্থানে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে প্রতিহতের ডাক দিয়েছে ছাত্রলীগ। মামুনুল হক খেলাফত মজলিশের প্রতিষ্ঠাতা শায়খুল হাদিস আজিজুল হকের ছেলে। এক সময়ে বিএনপির জোটে থাকা খেলাফত ২০০৬ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটে যোগ দিয়েছিল।

মামুনুল হক সংবাদ সম্মেলনে তার বাবার সঙ্গে আওয়ামী লীগের সম্পর্কের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, শায়খুল হাদিস যুগপৎভাবে ধর্মীয় ও রাজনৈতিক ধারার প্রতিনিধি করেছেন। তিনি নিজেও সেই ধারার একজন কর্মী। খেলাফত মজলিশ বর্তমানে কোনো জোটে নেই। কোনো ষড়যন্ত্র বা গোপন আঁতাতের মাধ্যমে সরকারবিরোধী কর্মসূচিতেও নেই।

মামুনুল হক বলেন, ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে প্রাণীর ভাস্কর্য নির্মাণ অনৈসলামিক। আলেম সমাজ এর প্রতিবাদ করেছে। তিনিও একই সূত্রে ভাস্কর্যবিরোধী বক্তব্য দিয়েছেন। কিন্তু ভাস্কর্যবিরোধিতাকে বঙ্গবন্ধুর বিরোধিতা হিসেবে আখ্যায়িত করার অপচেষ্টা করছে একটি মহল।

বঙ্গবন্ধুকে স্বাধীনতা সংগ্রামের মহান নেতা আখ্যা দিয়ে মামুনুল হক বলেন, শেখ মুজিবুর রহমানকে একজন মরহুম মুসলিম নেতা হিসেবে তিনি পরিপূর্ণ শ্রদ্ধা করেন। তার রুহের মাগফেরাত কামনা করেন।

মামুনুল হক আরও বলেন, ভাস্কর্যবিরোধী অবস্থানের কারণে একটি মহল প্রশাসনকে তার বিরুদ্ধে উস্কে দিচ্ছে। তিনি একে জামায়াত-শিবিরের এজেন্ডা বলে আখ্যা দেন। তাকে সরকারের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে জামায়াত-শিবিরের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নে অমূলক ও কল্পিত অভিযোগ তোলা হচ্ছে তার বিরুদ্ধে।