বুধবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সিঙ্গাপুরে সাকা চৌধুরীর নামে ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ‘শত কোটি টাকা’

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ফাঁসি কার্যকর হওয়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর (সাকা চৌধুরী) নামে সিঙ্গাপুরের বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে শত কোটি টাকা থাকার তথ্য জানিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একটি সূত্র।

সংস্থাটির আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বৃহস্পতিবার দেশ রূপান্তরকে বলেন, এ অর্থ ফেরত আনার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘শত কোটি টাকা থাকার তথ্য আমরা পেয়েছি। এটি আমাদের তথ্য অনুসন্ধানের মাধ্যমে পাওয়া গেছে। তবে, কীভাবে পেয়েছি সেটি এই মুহূর্তে বলা যাবে না। কারণ সংশ্লিষ্ট বিধান অনুযায়ী, এক দেশের তথ্য অন্য দেশে দেওয়া যায় না। তথ্য যদি প্রকাশ পায় তাহলে ওরা (সিঙ্গাপুর) তদন্ত অনুসন্ধানের বিষয়ে প্রতিবেদন আমাদের সাবমিট করবে না।’

তিনি বলেন, ‘টাকা ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে উদ্যোগ চলছে। অচিরেই এ ব্যাপারে জানা যাবে।’

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ও উচ্চ আদালতের রায়ের পর ২০১৫ সালের ২১ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে সাকা চৌধুরীর ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

বিএনপির এই শীর্ষ নেতা ও সাবেক মন্ত্রির বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ২৬ জুলাই মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার তদন্ত শুরু হওয়ার পর নাশকতার একটি মামলায় ওই বছরের ১৬ ডিসেম্বর তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে ওই বছরের ১৯ ডিসেম্বর মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ২০১২ সালের ৪ এপ্রিল তার বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের ৭২টি ঘটনায় ২৩টি অভিযোগে অভিযোগ গঠন করা হয়।

২০১৩ সালের ১ অক্টোবর সাকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেয় ট্রাইব্যুনাল-১। মুক্তিযুদ্ধের সময় গণহত্যায় অংশ নেয়া, চট্টগ্রামের রাউজান, রাঙ্গুনিয়া, হাটহাজারী, বোয়ালখালী ও চট্টগ্রাম নগরীতে হত্যা, লুটপাট, হিন্দুদের বাড়ি দখল এবং দেশান্তরে বাধ্য করাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের বিভিন্ন তথ্য উঠে আসে রায়ে। প্রসিকিউশনের আনা ২৩টি অভিযোগের মধ্যে নয়টি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়। ট্রাইব্যুনালের রায়ের পর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে ২০১৫ সালের ২৯ জুলাই আপিলের শুনানি শেষে সাকা চৌধুরীকে ট্রাইব্যুনালের দেয়া প্রাণদণ্ডের রায় বহাল থাকে।

৩০ সেপ্টেম্বর আপিলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর মৃত্যু পরোয়ানা জারি হয় তার বিরুদ্ধে। ওই বছরের ১৮ নভেম্বর রিভিউ (রায় পুনর্বিবেচনা) শুনানি শেষে সাকা চৌধুরীর আবেদন সর্বোচ্চ আদালত খারিজ করে দিলে তার মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকে।