মঙ্গলবার, ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ইসলামে অপছন্দনীয় তালাক

news-image

ফিরোজ আহমাদ : বিয়ে আল্লাহতায়ালার নেয়ামত। বিয়ের মাধ্যমে নারী-পুরুষের মধ্যে একটি নতুন সম্পর্কের বন্ধন তৈরি হয়। দুটি পরিবারের আত্মীয়তার বন্ধন তৈরি হয়। নারী-পুরুষ উভয়ের মধ্যে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে একের অন্যের ওপর নানান অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আমি তোমাদের জোড়া জোড়া সৃষ্টি করেছি।’ (সুরা নাবা, আয়াত : ০৮)

নারী-পুরুষ উভয়কে আল্লাহতায়ালা বিয়ের মাধ্যমে বিশেষ অনুগ্রহ করে থাকেন। আল্লাহতায়ালা নারী-পুরুষ পরস্পরকে বিয়ে করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘তোমাদের মধ্যে যারা অবিবাহিত, তাদের বিবাহ সম্পাদন করে দাও এবং তোমাদের দাস ও দাসীদের মধ্যে যারা সৎকর্মপরায়ণ, যদি তারা অভাবী হয়, আল্লাহ তায়ালা তার অনুগ্রহ দিয়ে তাদের অভাবমুক্ত করে দেবেন; আল্লাহতায়ালা প্রাচুর্যময় ও সর্বজ্ঞ।’ (সুরা নুর, আয়াত : ৩২)

বিয়ে করা বা দেওয়া রাসুল (সা.)-এর সুন্নত। বিয়ে নারী-পুরুষ উভয়ের চরিত্রকে হিফাজত করে। জাহান্নাম থেকে দূরে রাখে। জান্নাতের পথ সুগম করে দেয়। মানুষকে অশ্লীল যৌনাচার, জিনা-ব্যভিচারের মতো মন্দ কাজ থেকে দূরে রাখে। উভয়ের জীবনে প্রশান্তি দান করে, যার মাধ্যমে পারস্পরিক প্রীতি ও ভালোবাসা তৈরি হয়। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘তিনি তোমাদের জন্য তোমাদের থেকেই স্ত্রীদের সৃষ্টি করেছেন, যাতে তোমরা প্রশান্তি পাও। আর তিনি তোমাদের মধ্যে ভালোবাসা ও দয়া সৃষ্টি করেছেন।’ (সুরা রুম, আয়াত : ২১)

বিয়ের মাধ্যমে আল্লাহতায়ালা নারী-পুরুষের ওপর যেমন অনুগ্রহ করে থাকেন। তেমনি বিয়ে পরবর্তী সময়ে তালাক বা বিচ্ছেদের কারণে তালাকদাতা ব্যক্তি বা পরিবার আল্লাহতায়ালার কাছে ঘৃণ্য হয়ে যায়। কারণ তালাকের মাধ্যমে দুটি পরিবারের মধ্যে সম্পর্কচ্ছেদ বা দূরত্ব তৈরি হয়। আল্লাহতায়ালা পারস্পরিক বিবাদ সৃষ্টিকারী ব্যক্তিকে কখনো পছন্দ করেন না। আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তালাক হচ্ছে হালাল বস্তুর মধ্যে আল্লাহর কাছে সর্বাপেক্ষা ঘৃণ্য।’ (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২০১৮)।

ছোটখাটো সামান্য বিষয়কে কেন্দ্র করে প্রায়শই বিয়ে-বিচ্ছেদের মতো ঘটনা ঘটে। বিয়ে-বিচ্ছেদের হার বর্তমানে প্রতিনিয়তই বৃদ্ধি পাচ্ছে। দাম্পত্য জীবনে পারস্পরিক হতাশা, সন্দেহ, সংশয়, যৌতুক, বন্ধ্যত্ব, দারিদ্র্য, পছন্দ-অপছন্দ, মাদকাসক্তি, বহু বিবাহ ও পরকীয়ার মতো ঘৃণ্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনেক পরিবারে দাম্পত্য কলহ লেগেই থাকে। পরবর্তী সময়ে সেটি বিয়ে-বিচ্ছেদ পর্যন্ত গড়ায়। আলী (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘তোমরা বিয়ে করো, কিন্তু তালাক দিয়ো না। কেননা তালাক দিলে তার দরুন আল্লাহর আরশ কেঁপে ওঠে।’ (আকামুল কুরআন, ৩৯ খ-, পৃষ্ঠা : ১৩৩)

বিয়ে-বিচ্ছেদ সমাজ ও পরিবারের ওপর দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। বাবা-মায়ের বিচ্ছেদের ফলে সন্তানরা পারিবারিক স্নেহ ও ভালোবাসার অভাবে হতাশা হয়ে বিভিন্ন অসামাজিক অপকর্মে জড়িয়ে পড়ছে। এ অবস্থা থেকে আমাদের এখনই বেরিয়ে আসার উদ্যোগ নিতে হবে। নতুবা সমাজ ও পরিবারকে ভবিষ্যতে চরম মাশুল দিতে হবে। প্রয়োজনে সাপ্তাহিক জুমার খুতবায় পারিবারিক সুখশান্তি ও বিয়েবিচ্ছেদের কুফল নিয়ে আলোচনা করা যেতে পারে। আল্লাহতায়ালা পুরুষদের নির্দেশ দিয়েছেন ‘তাদের সঙ্গে সৎভাবে জীবনযাপন করবে।’ (সুরা নিসা, আয়াত : ১৯) মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘তোমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তিই সর্বোত্তম, যে তার স্ত্রীর কাছে সর্বোত্তম।’ (মিশকাত, পৃষ্ঠা : ২৮১)।

আল্লাহতায়ালার দেওয়া নির্দেশ আর রাসুল (সা.)-এর সুন্নত বৈবাহিক বন্ধনকে অটুট রাখতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। বিয়ে-বিচ্ছেদ থেকে বিরত থাকার জন্য আল্লাহর কাছে সাহায্য চাইতে হবে। সামাজিকভাবেও উদ্যোগ অব্যাহত রাখতে হবে। ফলে রাসুল (সা.) সুন্নতের মর্যাদা যেমন সমুন্নত থাকবে, তেমনি পারিবারিক, সামাজিক ও আত্মীয়তার বন্ধনও অটুট থাকবে। আল্লাহতায়ালা তৌফিক দান করুন।