বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

যেভাবে রাইড শেয়ারিংয়ে নিরাপদ থাকবেন

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ দেরিতে হলেও এ দেশের অর্থনীতিতে এর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম) এর জরিপ অনুযায়ী, মহামারি শুরুর আগে বাংলাদেশে যে দারিদ্র্যের হার ছিল তা মহামারির পরে দ্বিগুণ হয়ে ৪০.৯ শতাংশ হতে পারে। তাই এই পরিস্থিতিতে বেঁচে থাকার তাগিদেই মানুষ আবার তাদের দৈনন্দিন কাজে অভ্যস্ত হতে শুরু করেছে।

চলাচলই জীবনের নিয়ম। তবে যেহেতু এখনো করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে এবং স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে শীতের সময় করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা আসতে পারে তাই বাইরে চলাফেরা করার সময় নিরাপদ থাকা জরুরি।

সংশ্লিষ্টদের মতে, পর্যাপ্ত বায়ু চলাচল, জীবাণুমুক্ত গাড়ি, মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার কারণে গণপরিবহনের চেয়ে রাইড শেয়ারিং নিরাপদ।

যাত্রী ও চালকদের নিরাপদ রাখতে রাইড শেয়ারিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো কিছু নিরাপত্তা ফিচার চালু করেছে। এই ফিচারগুলো কোভিড পরিস্থিতিতে সবাইকে নিরাপদ রাখতে সহায়তা করবে। যেমন –

‘গো অনলাইন চেকলিস্ট’: চালক যাত্রা শুরু করার আগে তাদের একটি নতুন গো অনলাইন চেকলিস্টের মাধ্যমে জানতে চাওয়া হবে তারা সুরক্ষা নিশ্চিত করতে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছেন কি না এবং মাস্ক পরেছেন কি না। একইভাবে যাত্রীদের জন্যও একটি চেকলিস্ট তৈরি করা হয়েছে। প্রতিটি যাত্রা শুরুর আগে তাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে তারা মাস্ক ব্যবহার করছেন কি না এবং তারা হাত ধুয়েছেন কিংবা স্যানিটাইজার ব্যবহার করেছেন কি না।

মাস্ক যাচাইকরণ: চালকরা কোনো ট্রিপ গ্রহণ করার আগে তাদের মাস্ক পড়ে একটি সেলফি তুলতে বলা হবে। এই নতুন প্রযুক্তি যাচাই করবে চালক মাস্ক পড়েছেন কি না।

সবার জন্য জবাবদিহি: কোনো যাত্রী বা চালক মাস্ক পড়েছেন কি না সে সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানাতে নতুন অপশন যুক্ত করা হয়েছে।

যাত্রা বাতিল করার নীতিমালা: চালক বা যাত্রী যে কেউই অনিরাপদ বোধ করলে যেমন- কেউ মাস্ক ব্যবহার না করলে এমন ক্ষেত্রে তাৎক্ষণিক যাত্রা বাতিল করতে পারবেন।

সীমিত আসন ব্যবস্থা: উবার ট্রিপে থাকাকালীন চালক ও যাত্রীদের মধ্যে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে চালক ব্যতীত গাড়িতে শুধুমাত্র দুজন যাত্রী বসতে পারবেন।

এই ফিচারগুলোর পাশাপাশি উবারে কিছু ইন-অ্যাপ সেফটি ফিচার আছে, যেমন- জিপিএস-ট্র্যাকিং, যার ফলে যাত্রাকালীন সময়ে যাত্রীরা অ্যাপে তাদের রুট এবং গাড়ির অবস্থান দেখতে পারেন। এ ছাড়া সার্বক্ষণিক সহযোগিতার জন্য আছে একটি নিয়োজিত দল, ল এনফোর্সমেন্ট রেসপন্স টিম (এলইআরটি), সেফটি টুলকিট যাতে যুক্ত আছে ইমার্জেন্সি বাটন, ‘ট্রাস্টেড কন্ট্যাক্টস’ এবং ‘শেয়ার ইয়োর ট্রিপ ফিচার’।