বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কোভিড-১৯ : একদিনে এক লাখের বেশি রোগী শনাক্ত যুক্তরাষ্ট্রে

news-image

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে আগে দেশটির অনেকগুলো রাজ্যে নতুন প্রাদুর্ভাব বিশেষজ্ঞদের উদ্বেগও বাড়িয়ে দিচ্ছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

শুক্রবার দৈনিক শনাক্ত লাখ ছাড়ানোর আগের দিন বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রে ৯১ হাজারের বেশি রোগীর দেহে প্রাণঘাতী ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছিল।

মহামারী শুরুর পর থেকে একদিনে এক লাখের বেশি রোগী আর কোনো দেশেই শনাক্ত হয়নি। সেপ্টেম্বরে ভারতে একদিনে সর্বোচ্চ ৯৭ হাজার ৮৯৪ জনের দেহে ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছিল। শুক্রবারের সংখ্যা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে সরকারি হিসাবেই আক্রান্তের মোট সংখ্যা ৯০ লাখ ছাড়িয়ে গেল বলে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের টালিতে দেখা যাচ্ছে।

জো বাইডেন- ডনাল্ড ট্রাম্প মহারণের আগে ভাইরাসের এমন প্রাদুর্ভাব নির্বাচনে বড় ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে বলেও ধারণা অনেকের।

বেশ কয়েকটি হাসপাতাল তাদের যৌথ বিবৃতিতে বলেছে, “অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে এখনই ভিড় এড়িয়ে চলা বেশি গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে উইসকনসিনের গ্রিন বে’তে, যেখানে আমরা যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সবচেয়ে দ্রুতগতিতে ভাইরাসের বিস্তৃতি দেখছি।”

শুক্রবার উইসকনসিনে  সমাবেশের আগে টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে ট্রাম্প ভাইরাস মোকাবেলায় তার প্রশাসনের ভূমিকার প্রশংসা করেছেন।

“বেশি শনাক্তকরণ পরীক্ষায় বেশি রোগী। আমাদের আছে সেরা শনাক্তকরণ পরীক্ষা। মৃত্যুও অনেক কমে গেছে,” বলেছেন তিনি।

ট্রাম্পের সাম্প্রতিক সমাবেশগুলোতে এখন উপস্থিতদের গায়ের তাপমাত্রা শনাক্ত ও মাস্ক দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

মহামারী নিয়ে সতর্কতার কারণে সমাবেশগুলো চার দেয়ালের বাইরেও হচ্ছে, যদিও সেখানে সামাজিক দূরত্বের নির্দেশনা মানা হচ্ছে না। ট্রাম্পের সমর্থকদের অনেকে এখনও মাস্ক পরতে রাজি নন।

অন্যদিকে বাইডেনের সমাবেশগুলো সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার উপরই সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়া হচ্ছে।ট্রাম্পের বড় ছেলে ডনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র বৃহস্পতিবার ফক্স নিউজে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বাবার মতোই মহামারী যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে আছে বলে দাবি করেছেন।

“আমি সিডিসির তথ্য খুঁটিয়ে দেখেছি, কেননা বারবার নতুন সংক্রমণের কথা শুনছিলাম। আমার মনে হল, কেন তারা মৃত্যুর কথা বলছে না? কারণ ওই সংখ্যা প্রায় কিছুই না। আমরা এটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি; এটি কীভাবে কাজ করে আমরা তা বুঝতে পেরেছি,” বলেছেন তিনি।

জনস হপকিন্স বিশ্বদ্যালয়ের টালি অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে মোট মৃত্যু এরই মধ্যে ২ লাখ ২৯ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। চলতি মাসের তিনদিন দেশটি ভাইরাসে ১ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যুও দেখেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, ফ্লু মৌসুমের মধ্যে সংক্রমণের এমন ঊর্ধ্বগতি থাকলে যুক্তরাষ্ট্রে শনাক্ত রোগী ও মৃত্যুর পরিমাণ বাড়তেই থাকবে।

সিএনবিসিকে বুধবার দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দেশটির শীর্ষ সংক্রামক বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাউচি বলেছেন, ভাইরাস মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্র ‘ভুল পথে হাঁটছে’।

“যদি পরিস্থিত না বদলায়, যদি এখন যেমন আছে, তেমনই অব্যাহতভাবে বাড়তে থাকে, তাহলে তা আমাদের জন্য ভয়াবহ কষ্ট নিয়ে আসবে। শনাক্ত রোগী, হাসপাতালে ভর্তি, মৃত্যু বাড়বে,” বলেছেন তিনি।

বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের ২১টি রাজ্যে এখন সংক্রমণের ব্যাপক ঊর্ধ্বগতি দেখা যাচ্ছে। রাজ্যগুলোর মধ্যে যে কয়েকটির প্রাদুর্ভাব নিয়ে শঙ্কা সবচেয়ে বেশি, সেগুলোর হাতেই মঙ্গলবারের নির্বাচনে কে প্রেসিডেন্ট হতে যাচ্ছেন, তার চাবিকাঠি।

‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’ খ্যাত উইসকনসিনে শুক্রবার ট্রাম্পের সমাবেশের কারণে সেখানকার সংক্রমণ পরিস্থিতির ভয়াবহ অবস্থায় চলে যেতে পারে বলে সতর্ক করেছে গ্রিন বে’র হাসপাতালগুলো।