রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সিঙ্গাপুরে নানা আয়োজনে একুশে উদযাপন

n-1_103069ডেস্ক রিপোর্ট : একুশে ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে ভাষাশহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন সিঙ্গাপুরের প্রবাসী বাঙালিরা। সিঙ্গাপুরে অবস্থান করা বিভিন্ন পেশাজীবী বাঙালিরা ভাষাশহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করেন দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বাংলা কাগজ ‘বাংলার কণ্ঠে’র অস্থায়ী শহীদ মিনারে।

গত শনিবার সন্ধ্যা থেকে বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনায় রাজনৈতিক, সামাজিক, সাহিত্য, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা ফুলের ডালি সাজান। এরপর পরম শ্রদ্ধায় শহীদ বেদীতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।

ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বাংলার কণ্ঠ পত্রিকা, বাংলার কণ্ঠ সাহিত্য পরিষদ, কালচারাল ফাউন্ডেশন, প্রবাসী সাংবাদিক সমিতি (প্রসাস), বাংলাদেশ কবি পরিষদ সিঙ্গাপুর, সিঙ্গাপুর আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, প্রচার লীগ সমর্থক অভিবাসী, সিঙ্গাপুর জাতীয়তাবাদী দল, যুবদল সমর্থক অভিবাসী, ঢাকা জেলা ছাত্রদল সমর্থক অভিবাসী, কিশোরগঞ্জ প্রবাসী কল্যাণ পরিষদ, খান প্রডাক্ট প্রাইভেট লিমিটেড,প্রাইম একচেঞ্জ প্রাইভেট লিমিটেড, মাদার কেয়ার সমবায় সমিতি, ব্রাইট জেনারেশন প্রাইভেট লিমিটেডসহ আরও অনেক সংগঠন।

শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় বাজানো হয় একুশের গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’। পরে একুশে ফেব্রুয়ারির ওপর লেখা কবিতা পাঠ অনুষ্ঠিত হয়।

সন্ধ্যায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাংলার কণ্ঠ কার্যালয়ে আয়োজন করা হয় কবিতা পাঠ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

শ্রমিক মনিরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের প্রথমে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বাংলার কণ্ঠ পত্রিকা সম্পাদক এ কে এম মোহসীন মালহার।

এরপরে কবিতা পাঠ করেন বাংলার কণ্ঠ সাহিত্য পরিষদের সদস্য কাজী শিহাব উদ্দিন লিটন, জহিরুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম, ফরহাদ রহমান মুন্না, শরিফ উদ্দিন, তারেক হাসান, জাহাঙ্গীর আলম বাবু, কিশোরগঞ্জ প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি জহিরুল ইসলাম জহির।

কবিতা পাঠের পর মঞ্চায়িত হয় নাটক ‘অবাঞ্ছিত।’ নাটকটি রচনা ও মূল চরিত্র বাবর আলীর ভূমিকায় অভিনয় করেন মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বাবু ও সাংবাদিক চরিত্রে অভিনয় করেন কাজী শিহাব উদ্দিন লিটন।

এ ছাড়া সিঙ্গাপুরের বিভিন্ন স্থানে ছোটবড় পরিসরে পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।

আন্তর্জাতিক মহান মাতৃভাষা দিবসকে সামনে রেখে প্রতিবছরের মতো এ বছরও সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি প্রবাসীদের জনপ্রিয় ব্যান্ড ‘সুর’-এর পক্ষ থেকে স্যামবাওয়াং পার্কে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে ফুলেল শ্রদ্ধা জানানো হয়। এখানে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানান স্যামবাওয়াং গোবিন্দ সম্প্রদায়, অনলাইনভিত্তিক ফেসবুক সংগঠন প্রবাস বিনোদন পরিষদসহ প্রবাসী বাঙালিরা।

দিবসটি উপলক্ষে ওই এলাকায় শনিবার সন্ধ্যা থেকে জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ও গিটারিস্ট রাইসুল ইসলাম জনির সঞ্চালনায় পরিবেশিত হয় বৃন্দ আবৃত্তি প্রযোজনা ‘অতঃপর বাংলাদেশ’, যার রচনা ও নির্দেশনায় ছিলেন কবি ও গীতিকার রাজীব শীল জীবন।

অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন কবি রাজীব শীল জীবন,আশিকুর রহমান আশিক, বিকাশ নাথ এবং সংগীত পরিবেশন করেন সিংগাপুরের ‘সুর’, ব্যান্ডের দলের কণ্ঠশিল্পী জনি, হিমেল, রেজা, আশিক, উদ্দীপন, বিকাশ, সেলিম, নবেল, মামুন তরিকুলসহ আরও অনেকে।

বাংলাদেশ হাইকমিশনের উদ্যোগেও পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। সিঙ্গাপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অডিটোরিয়ামে বিএলসিএফ বাংলা স্কুলের শিক্ষিকা ও ছাত্রছাত্রীরা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে মহান একুশে ফেব্রুয়ারির ভাষাসৈনিকদের প্রতি সম্মান জানান।

বাংলাদেশ হাইকমিশনের উদ্যোগ

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ হাইকমিশন আয়োজন করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সকালে সিঙ্গাপুর পলিটেকনিক অডিটোরিয়ামে অস্থায়ী শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন ও পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সিলর নাজিম উদ দৌলার উপস্থাপনায় সূচনা বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রদূত মাহবুব উজ জামান। তিনি শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করেন সব ভাষা শহীদ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ফখরুল আলম।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বের নাম করণ হয় “রোদন ভরা বসন্ত” এই পর্বে আবৃত্তি ও শহীদের স্মরণে গান পরিবেশিত হয়।