মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গরমের তাপ থেকে ত্বক রক্ষার কার্যকর সাত উপায়

news-image

গরমের তাপে ত্বকের নানা সমস্যা হয়। তবে কিছু সহজ উপায়ে ত্বককে খরতাপ থেকে রক্ষা করা সম্ভব। এ লেখায় থাকছে তেমন কয়েকটি উপায়।

১. পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা
গরমে সুস্থ ত্বকের জন্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিকল্প নেই। গ্রীষ্মে ত্বকের ওপর সেলুলারের পাতলা আবরণ তৈরি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে কোনো একটি মানসম্মত পিএইচ ব্যালেন্সড স্ক্র্যাব ব্যবহার করে তা তুলে ফেলতে হবে। এ ছাড়া বাড়িতেও বানিয়ে নেওয়া যায় মানসম্মত স্ক্র্যাব। এ জন্য ব্যবহার করতে পারেন কমলার খোসার সঙ্গে ওটমিল ও বেসন মিশ্রণ।
২. মৌসুমি উপাদান ব্যবহার
গ্রীষ্মকালে পানি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। তবে পানি যদি ত্বককে শুষ্ক করে তোলে তাহলে ক্রিমভিত্তিক ময়েশচারাইজার ব্যবহার করতে পারেন। এটি আপনার ত্বককে যথাযথভাবে আর্দ্র রাখতে সহায়তা করবে। এ জন্য অলিভ অয়েলও ব্যবহার করতে পারেন।
গরমের তাপ থেকে ত্বক রক্ষার কার্যকর সাত উপায়
৩. হাত ও নখের যত্ন
গ্রীষ্মে হাতের ত্বক ও নখ রুক্ষ হয়ে যেতে পারে। তাই মুখের পাশাপাশি হাত ও নখের যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। এ ছাড়া সামান্য চিনি ও লেবুর রস মিশিয়ে হাতের তালু ঘষে নিতে পারেন।
৪. পায়ের যত্ন
গ্রীষ্মে পায়েরও যথাযথ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। এ জন্য পায়ের ত্বক থেকে দূর করতে হবে মৃত কোষ। এ ক্ষেত্রে সপ্তাহে একবার ফুট স্ক্র্যাব হতে পারে আদর্শ। এ ছাড়া পেট্রোলিয়াম জেলি ও ময়েশচারাইজিং ফুট ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। পায়ের ফাটা দূর করার জন্য নারকেল তেল বা গ্লিসারিন মাখতে পারেন।
গরমের তাপ থেকে ত্বক রক্ষার কার্যকর সাত উপায়

৫. লিপ বাম
গ্রীষ্মে ঠোঁটের রুক্ষতা দূর করতে লিপ বাম ব্যবহার করতে পারেন। এ ছাড়া নিজেই লিপ বাম বানানোর জন্য নারকেল তেল, মধু ও ভিটামিন-ই ক্যাপসুল মিশিয়ে নিতে পারেন।
৬. সূর্যতাপ এড়িয়ে চলুন
সূর্যতাপ গ্রহণ ত্বকের জন্য ভালো নয়। যতটা সম্ভব সূর্যতাপ এড়িয়ে চলতে হবে। রোদে কোনো কাজ করতে হলে ত্বকে মেখে নিন সানস্ক্রিন। এসপিএফ ১৫ থেকে ৪০ পর্যন্ত মাত্রার সানস্ক্রিন বাজারে পাওয়া যায়। এ ক্ষেত্রে পণ্যটি যেন ভালো ব্র্যান্ডের হয় সেটি খেয়াল রাখবেন।
গরমের তাপ থেকে ত্বক রক্ষার কার্যকর সাত উপায়
image_270871_1.1374048183_1

৭. স্বাস্থ্যকর খাবার
গ্রীষ্মকালে ত্বক রক্ষার জন্য প্রয়োজন প্রচুর পানিসমৃদ্ধ খাবার খাওয়া। মৌসুমি রসালো ফলমূল কিংবা সবজি এ ক্ষেত্রে সালাদ হিসেবে খাওয়া যেতে পারে। ভিটামিন, মিনারেল ও প্রোটিনযুক্ত খাবারও বাদ দেওয়া যাবে না। এ ছাড়া দুধ, ডিম, বাদাম, মাশরুম, ডাল, গাজর, বিটমূল, পালং শাক ও কমলার মতো ফলমূল বেশি করে খেতে হবে।

 

এ জাতীয় আরও খবর