মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপের উত্তাপে টিভি কেনার ধুম

বিশ্বকাপের উন্মাদনা এখন দুনিয়াজুড়ে। এ দেশের অগণিত ফুটবলপ্রেমীর মনেও তা উষ্ণতা ছড়াচ্ছে। অনেকে ছুটছেন ইলেকট্রনিক সামগ্রীর দোকানের দিকে, নতুন টিভি কিনতে।

ঘরে বসে সরাসরি ব্রাজিলের মাঠে গিয়ে খেলা দেখার এ ছাড়া আর উপায় কী?

সাধ্যের সঙ্গে সাধের মিল রেখে ক্রেতারা যাঁর যাঁর পছন্দমতো বিভিন্ন কোম্পানির, বিভিন্ন মডেলের টিভি সেট কিনে ঘরে ফিরছেন। এ কেনাকাটার ধুমে এখন টেলিভিশনের বাজার বেশ রমরমা।

এর মধ্যে বিশ্বকাপ উপলক্ষে বিভিন্ন টিভি নির্মাতাপ্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে দামের ক্ষেত্রে লোভনীয় ছাড়া ও পুরস্কার দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছে।

সম্প্রতি রাজধানীর বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম মার্কেটের সনি ব্রাভিয়া, স্যামসাং, ট্রান্সটেক, সনি র্যাংগস, কনকা, এলজি বাটারফ্লাই, টিসিএল, ওয়ালটন, প্যানাসনিক, মাই ওয়ানের শো রুম এবং পাইকারি ও খুচরা দোকান ঘুরে এ চিত্র পাওয়া গেছে।

মার্কেটের ৩০ নম্বর দোকান ট্রান্সটেক ইলেকট্রনিকস লিমিটেডের শো-রুম। বিক্রির কথা বলতেই শো-রুম কর্মকর্তা মো. রাসেদুল ইসলামের মুখে চওড়া হাসি। তিনি বলেন, ‘আমরা স্যামসাং ও ট্রান্সটেক এই দুই ব্র্যান্ডের টেলিভিশন বিক্রি করি। বিশ্বকাপ উপলক্ষে দামের ওপর নানা ধরনের ছাড় দিচ্ছি। বিক্রিও অনেক বেড়েছে।’ কতটুকু বেড়েছে—জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আগে তিনটি হলে এখন হচ্ছে ১০টি, যা গত মাসের এই সময় থেকে তিন গুণেরও বেশি।’

রাজধানীর খিলগাঁও এলাকা থেকে ওই শো-রুমে টিভি সেট কিনতে আসা মো. জসীমউদ্দিন বলেন, ‘নতুন টিভিতে খেলা দেখার মজাই আলাদা!’ তিনি জানান, বিশ্বকাপ উপলক্ষে টেলিভিশন কিনতে এসেছেন। এলইডি মনিটরের ৩২ ইঞ্চি টেলিভিশন কিনবেন। তাঁর বাজেট ৪০ হাজার টাকা বলে জানান।

সনি ব্রাভিয়ার বিভিন্ন শোরুমে ঘুরে একই চিত্র দেখা যায়। ক্রেতারা ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন দামের ও মডেলের টেলিভিশন দেখছেন। পছন্দমতো কিনে নিচ্ছেন। এমন এক ক্রেতা চাঁদপুর থেকে আসা মামুন ভূঁইয়া। তিনি জানান, বিশ্বকাপ ফুটবল সামনে রেখেই নতুন টিভি কিনতে এসেছেন। তিনি বলেন, ‘নতুন মডেলের একটি এলইডি টেলিভিশন কিনব। তার আগে অবশ্যই মার্কেট ঘুরে দেখব।’

৫০ নম্বর দোকানে রয়েছে সনি ব্রাভিয়ার আরেকটি শোরুম। এর কর্মকর্তা আবদুল বাসেদ বলেন, ‘বিশ্বকাপ উপলক্ষে বিক্রি বেড়েছে। বাজারে ক্রেতারা আসতে শুরু করেছে। ১০-১২ তারিখের মধ্যে আরও বাড়বে।’

দেশি টেলিভিশন ওয়ালটন ও মাই ওয়ানের শোরুমে গিয়ে জানা যায়, তাদেরও বিক্রি বেড়েছে। টেলিভিশন বিক্রি আগের চেয়ে দ্বিগুণ হয়েছে দাবি করেন ওয়ালটন শোরুম কর্মকর্তা এরশাদুল হাসান। তাঁর দাবি, গত মাসে প্রতিদিন গড়ে তিন-চারটি করে টিভি সেট বিক্রি হয়েছে। এখন বিক্রি হচ্ছে আট-নয়টি করে। তাঁর প্রত্যাশা বিক্রি আরও বেশি হবে। তিনি বলেন, ‘সবে তো মাত্র মাসের শুরু, লোকজনের হাতে টাকা এলে ক্রেতা বাড়তে পারে।’

রাজধানীর বাসাবো থেকে সিআরটি মনিটরের মাই ওয়ান ব্র্যান্ডের টেলিভিশন কিনতে আসা মো. আমিনুল ইসলাম জানান, বাসার টেলিভিশন অকেজো হওয়ায় নতুন টিভি কিনতে এসেছেন। সামনে বিশ্বকাপ থাকায় এত তাড়া।

বিভিন্ন পাইকারি ও খুচরা দোকান ঘুরে টেলিভিশন বিক্রি বেড়ে যাওয়ার আভাস পাওয়া যায়।

হাবিব ইলেকট্রনিকসের মালিক পাইকারি ও খুচরা টেলিভিশন ব্যবসায়ী হাবিব মিয়ার ভাষ্যমতে, বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে বিক্রি বেড়েছে। বিশ্বকাপে সেরা দলগুলো যেন সেমিফাইনাল পর্যন্ত টিকে থাকে, এটাই তাঁর কাম্য। তিনি মনে করেন, টিভি সেটের বিক্রি বেড়ে যাওয়ার বিষয় অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে। আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল জিতলে বিক্রি বাড়ে। সাকিব কলকাতার আইপিএল খেললে বিক্রি বাড়ে।

খুচরা টেলিভিশন ব্যবসায়ী রুহি ইলেকট্রনিকসের মালিক মো. ইমাম হোসেন জানান, তিনি চায়না টেলিভিশন বিক্রি করেন। বিক্রি আগের থেকে বেড়েছে বলে দাবি করেন ইমাম।

ইমাম জানান, চার হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন দামের টেলিভিশন রয়েছে তাঁর দোকানে। দাম কম হওয়ায় অপেক্ষাকৃত নিম্নআয়ের ক্রেতারা এসব টিভি কিনতে পারেন।

এ সপ্তাহেই বিক্রি আরও বাড়বে—এমনটি প্রত্যাশা করে প্যানাসনিক সামগ্রীর ব্যবসায়ী কবির ভূঁইয়া বলেন, খেলা শুরু হওয়া থেকে ২৫ জুলাইয়ের মধ্যে জানা যাবে প্রিয় দলের খবর। তখন বিক্রি অনেক বাড়বে বলে তিনি আশা করছেন।

ভিন্নমত পোষণ করলেন টিসিএলের শোরুম ব্যবস্থাপক ফয়জুল হক ও কনকার শোরুম ব্যবস্থাপক মো. আমজাদ হোসেন। তাঁদের দাবি, বিক্রি আশানুরূপ বাড়েনি।

বাজারে সিআরটি, এলইডি, এলসিডি ও থ্রি-ডি—এসব মনিটরের টেলিভিশন পাওয়া যায়।

বিক্রেতাদের তথ্যমতে, এলইডি টিভিই বেশি বিক্রি হচ্ছে। চার হাজার টাকা থেকে শুরু করে সাড়ে চার লাখ টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন মডেলের টেলিভিশন পাওয়া যাচ্ছে।

এ জাতীয় আরও খবর