সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফেসবুককে তিশার গুডবাই, কিন্তু কেন?

nusrat-imroz-tisha_0।।বিনোদন ডেস্ক।। তারকাদের সম্পর্কে ভক্তদের আগ্রহের শেষ নেই। কিন্তু বেশ কয়েকবছর আগেও সংবাদমাধ্যম ছাড়াও তারকার সম্পর্কে জানার ব্যাপারটি একেবারেই অসম্ভব হলেও ফেসবুক যেন সেই দূরত্বটুকু কমিয়ে এনেছে। ভক্ত এবং শ্রোতাদের মাঝে যেন সেতুবন্ধনের কাজটি করে আসছে ফেসবুক। কিন্তু দুঃখ জনক হলেও সত্য যে এই ফেসবুকের কারণে বরাবরই অনেক তারকাকে বিতর্ক এবং সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয়েছে।

এদিকে বিয়ের আগেই সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ফেসবুককে গুডবাই জানান জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী তিশা। অথচ এখনো তাঁর নামে ফেসবুকে অসংখ্য অ্যাকাউন্ট রয়েছে। কিন্তু এগুলোর একটিও তাঁর নয় বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন তিশা।

এ প্রসঙ্গে তিশা বলেন, ‘২০১০ সালের শুরুতে আমি ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট চালু করি। কিছুদিন ব্যবহার করার পর সেভাবে কোনো আগ্রহ পাইনি। সে বছরের জুলাইতে আমার বিয়ে হয়। আর বিয়ের আগে পুরোপুরিভাবে ফেসবুক থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নিই। বন্ধ করার পর এখন পর্যন্ত ফেসবুক নিয়ে সে ধরনের কোনো আগ্রহ জন্মায়নি। তাই এটা নিয়ে খুব একটা মাথাব্যথাও নেই।’

ফেসবুকে অনাগ্রহের কারণ হিসেবে তিশা বলেন, ‘বেশ কয়েকটি কারণে আমি ফেসবুক থেকে দূরে সরে আছি। অনেকের মতে, পারস্পরিক যোগাযোগের অন্যতম একটি মাধ্যম ফেসবুক। আমি এ বিষয়টির সঙ্গে পুরোপুরি একমত নই। আমার মতে, একজন মানুষের সবচেয়ে আপন হচ্ছে তাঁর পরিবার, বন্ধুবান্ধব ও প্রতিবেশী। এঁরা সব সময় আমার পাশে ছিলেন এবং থাকছেন। তাই যোগাযোগ রক্ষার জন্য আমার ফেসবুক ব্যবহারের কোনো প্রয়োজনীয়তা দেখছি না।’

তিশা আরও বলেন, ‘প্রচার-প্রচারণার ক্ষেত্রে ফেসবুক নাকি বেশ সহায়ক ভূমিকা পালন করে। আমি যে মাধ্যমে কাজ করি সেখানে প্রচার-প্রচারণার দরকার আছে ঠিকই। কিন্তু আমি যেসব কাজ করে থাকি সেগুলোর প্রচার-প্রচারণা পরিচালক, প্রযোজক থেকে শুরু করে সাংবাদিকেরা নিজ দায়িত্বে করে থাকেন। তাই বাড়তি প্রচারের আশাটা আমার কাছে খুব একটা প্রাধান্য পায় না।’

তিশা এও বলেন, ‘আমার মতে ফেসবুকে অনেক সময় অপচয় হয়। এই সময়ে একজন মানুষ যদি অন্য কোনো কাজে মন দেয় তাহলে তা অনেক বেশি কাজে দেবে। সময় অপচয়ের কথা ভেবেও আমি ফেসবুক ব্যবহারে আগ্রহ পাই না।’

এ জাতীয় আরও খবর