বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এরশাদের আমলে একটাও গুম-খুন হয়নি!

সাম্প্রতিক গুম, অপহরণ ও খুনের ঘটনায় সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। তিনি বলেন, ‘আমার আমলে একটাও গুম-খুন হয়নি। এখন মানুষ শান্তিতে ঘুমাতে পারছে না, কখন কে গুম হয়ে যায়, এ চিন্তায়।’



আজ শনিবার বিকেলে রাজধানীর কাকরাইলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাপার সহযোগী সংগঠন জাতীয় যুবসংহতির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সভায় এরশাদ এসব কথা বলেন।



প্রধানমন্ত্রীর এই বিশেষ দূত বলেন, গুম, খুন ও অপহরণ বন্ধে সরকার দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছে। এখন অন্যকে দোষারোপ করছে। দেশ এখন হিটলার-মুসুলিনীর শাসনের মতো চলছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।



সভায় তাঁকে ‘খুনি’ বলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সমালোচনা করেন এরশাদ। তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া বলেছেন আমি জিয়ার খুনি। জিয়া যখন খুন হন, জাস্টিস সাত্তার তখন ক্ষমতায়। তিনি বিএনপির। তখন তিনি (সাত্তার) এর বিচার করেননি। বরং তিনি আমাকে চিঠি দিয়ে সেনা বিদ্রোহ দমন করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন। খুনিকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য পাঁচ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেন। তাহলে কে জিয়ার খুনি? এত দিন পর এই কথা কেন?’

দেশবাসী জানে, জিয়ার খুনি কে?



খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে এরশাদ বলেন, ‘ইট মারলে পাটকেল খেতে হয়। আমি খুনি হলে তখন তো বলেননি, এখন কেন বলছেন?’ আসলে বিএনপির কোনো ভবিষ্যত্ নেই। বিএনপি এখন সংসদে নেই, রাজপথেও নেই। সরকার পরিবর্তনের, সংবিধান পরিবর্তনের মতো শক্তিও বিএনপির নেই। তাই খালেদা জিয়া ব্লেইমগেম করছেন।’



এরশাদ বলেন, ‘আমি জানি, দেশবাসী জানে, জিয়ার খুনি কে? জিয়ার পাশের কক্ষে কে ছিলেন। তাঁর সঙ্গে তিনি (খালেদা জিয়া) ২০ বছর রাজনীতি করেছেন, কিন্তু বিচার করেননি।’



সভায় জাপার মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহম্মেদ বাবলু গত বছরের সেপ্টেম্বর-নভেম্বর মাসে সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময় ১৯ পুলিশ ও ২৬ বাসযাত্রীকে দগ্ধ করে মারা এবং বিএনপির সরকারের সময় ১৭ জন কৃষক হত্যার জন্য খালেদা জিয়াকে দায়ী করে ‘খুনি’ বলে আখ্যায়িত করেন। এসব হত্যার জন্য খালেদা জিয়ার বিচার দাবি করেন তিনি।

সভায় যুবসংহতির সভাপতি রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেনসহ অন্যরা বক্তব্য দেন।