মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টেন্ডুলকারকে লতার উপহার

লতা মঙ্গেশকরের গানের বরাবরই ভক্ত শচীন টেন্ডুলকার। ক্রিকেটের শত ব্যস্ততার মাঝে যখনই একটু সময় মিলত, লতার গান শুনতেন লিটল মাস্টার। টেন্ডুলকারের নতুন বাড়িতে তাঁর প্রিয় সংগীতশিল্পীর কোনো স্মারক থাকবে না, তা কী হয়!



লতা গেয়েছেন বা ব্যবহার করেছেন—এমন কিছু নতুন বাড়ির মিউজিক কক্ষে রাখতে চেয়েছিলেন টেন্ডুলকার। সুরসম্রাজ্ঞী তাঁকে বিমুখ করেননি। টেন্ডুলকার নতুন বাড়িতে ওঠার আগেই নিজের গাওয়া দুটি গানের কথা ফ্রেমবন্দী করে উপহার দিয়েছেন তাঁকে।



মুম্বাইয়ে গত রোববার মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনার (এমএনএস) প্রধান রাজ থেকারে তাঁর বাসভবনে এক পার্টি দেন। সেখানে আমন্ত্রিত ছিলেন দুই ‘ভারতরত্ন’ লতা ও টেন্ডুলকার। সেখানেই টেন্ডুলকারের হাতে তুলে দেওয়া হয় লতার গাওয়া ‘তু জাহা জাহা চলে গা’ ও ‘পিয়া তোসে নেনা লাগে রে’—এই দুই জনপ্রিয় গানের কথা। আর টেন্ডুলকার তাঁর প্রিয় শিল্পীকে উপহার দেন নিজের সই করা একটি শার্ট।



টেন্ডুলকার বলেন, ‘আমি নতুন বাড়িতে উঠতে যাচ্ছি। তাই লতা দিদি গেয়েছেন বা ব্যবহার করেছেন, এমন কিছু আমার মিউজিক কক্ষে রাখতে চেয়েছিলাম। হতে পারে সেটা তাঁর রুমাল। ক্রিকেটের জন্য নানা দেশে আমাকে ভ্রমণ করতে হয়েছে। সেই ভ্রমণ সময়ে আমি গান শোনায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ি, বিশেষ করে লতা দিদির গান। তিনি ছিলেন আমার নীরব সঙ্গী।’নিজের সই করা একটি শার্ট লতা মঙ্গেশকরের হাতে তুলে দেন টেন্ডুলকার।



লতাকে ‘মায়ের মতো’ দেখেন বলেও জানালেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সবচেয়ে বেশি রান ও সেঞ্চুরির মালিক। তিনি বলেন, ‘আমি যখনই তাঁর কাছে যাই, তিনি আমাকে মায়ের মতোই আশীর্বাদ করেন। আমি তাঁর ছেলের মতো।’



টেন্ডুলকার যেমন লতার গানের ভক্ত, একইভাবে টেন্ডুলকারের খেলার বড় ভক্ত লতা। তাই তো লতার কণ্ঠেও টেন্ডুলকার-বন্দনা, ‘টেন্ডুলকারের খেলা খুব পছন্দ করি আমি। মানুষ হিসেবেও সে অনন্য। অনেক সময় আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তের কারণে সে আউট হয়ে গেছে। কিন্তু ওই সিদ্ধান্তের বিষয়ে কখনোই কোনো আপত্তি তোলেনি। সে ক্রিকেট থেকে বিদায় নেওয়ায় আমি কষ্ট পেয়েছি। আরও কিছুদিন ওর খেলা চালিয়ে যাওয়া উচিত ছিল।’ সূত্র: পিটিআই।