শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কেন তীরে এসে তরি ডুবছে বাংলাদেশের?

53171a1f791eb-Bulbult১২ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ হারল ২ রানে। ১৪ ফেব্রুয়ারি সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে হারল ৩ উইকেটে। দুটি ম্যাচেরই নিষ্পত্তি হয়েছে শেষ বলে। একই দলকে মিরপুরে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে ১৮০ রানে অলআউট করেও ১৩ রানের পরাজয়ের যাতনা সইতে হয়েছে।
এরপর এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে মুশফিকের দুর্দান্ত সেঞ্চুরির সুবাদে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েও বাংলাদেশকে হারতে হয়েছে ৬ উইকেটে। ৯০ রানের মধ্যে আফগানিস্তানের ৫ উইকেট ফেলে দিয়েও ম্যাচের লাগাম ফসকে গেল হাত থেকে। অবশেষে গতকাল ৩২৬ করেও হারতে হলো পাকিস্তানের কাছে।

বাংলাদেশ টানা পরাজয়ের বৃত্তে আছে ঠিকই, কিন্তু বেশির ভাগ ম্যাচেই একটা সময় পর্যন্ত ম্যাচে আধিপত্য ধরে রেখেছে কিন্তু মুশফিকের দলই। একটা-দুটো মুহূর্ত, একটা-দুটো ইনিংস কিংবা জুটি বাংলাদেশের সব আশা খুন করে ফেলছে। শেষ মুহূর্তে গিয়ে ম্যাচ হারার যন্ত্রণাও সইতে হচ্ছে। কেন এমনটা হচ্ছে বার বার?
পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বশেষ এবং একমাত্র জয় হয়ে আছে সেই ১৯৯৯ বিশ্বকাপের ম্যাচটি। গতকাল প্রায় ১৫ বছর পর জিততে জিততে ম্যাচটি হেরে যেতে দেখার পর ওই বিশ্বকাপের অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম অভিজ্ঞ চোখ দিয়ে বিশ্লেষণ করলেন, কোথায় কোথায় সমস্যা হচ্ছে বাংলাদেশের। কিছু সমাধানও বাতলালেন। শুনুন তাঁর মুখেই:

চাপে ভেঙে পড়া
আমরা বেশ কিছু ক্লোজ ম্যাচে হেরে যাচ্ছি। এর পেছনে কিছু ক্রিকেটীয় ব্যাখ্যা আছে। এ ধরনের উইন-উইন সিচুয়েশনে আমাদের খেলোয়াড়দের স্নায়ু যে পর্যায়ে থাকার কথা, সেখানে থাকছে না। অর্থাত্ খেলোয়াড়েরা প্রচণ্ড স্নায়ুচাপে ভুগছে। ওই সময় যে ধরনের পরিকল্পনা করে খেলার কথা, সেটা হচ্ছে না। আরেকটি কারণ হচ্ছে, আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেটের দুর্বলতা। আগে আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচ মানেই ছিল খেলোয়াড়দের ওপর প্রচণ্ড চাপ। এখন সেই চাপটা নেই। ফলে ঘরোয়া ক্রিকেটে চাপে খেলে খেলে অভ্যস্ত হয়ে সেটার সুফল আন্তর্জাতিক ম্যাচে নেওয়ার সুযোগ এখন আর থাকছে না। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এমন চাপ সৃষ্টি হলেই ভেঙে পড়ছে আমাদের দল।আমিনুল ইসলাম বুলবুল

সাহসের ঘাটতি
ক্রিকেট পুরোটাই মনস্তাত্ত্বিক খেলা। এ পরিস্থিতিতে ম্যাচ জেতার যে সাহস কিংবা চিন্তার প্রয়োজন, কেন যেন সেটার ঘাটতি আমাদের দলের। যদি এই ম্যাচগুলো আমরা জিততে পারতাম, তাহলে কোথায় চলে যেতাম! পরিস্থিতি অন্য রকম হতো তখন।

অভিজ্ঞতার অভাব
সাম্প্রতিক সময়ে প্রতিটি বিভাগে আমরা ভালো ক্রিকেট খেলছিলাম। গতকালও ৩০০-এর বেশি স্কোর গড়লাম। কিন্তু মনস্তাত্ত্বিক জায়গায় আমরা পিছিয়ে পড়ছি। কেন পিছিয়ে পড়ছি? কারণ এ ধরনের তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ খুব একটা খেলি না। ফলে এ ধরনের পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার অভিজ্ঞতা আমাদের নেই।

ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা
দলের ব্যবস্থাপনায় যাঁরা রয়েছেন, তাঁদের উচিত এমন কিছু ম্যাচের আয়োজন করা যেগুলোতে তীব্র লড়াই হবে। স্নায়বিক চাপের খেলা হবে। ঘরোয়া ক্রিকেটে যদি চাপের ম্যাচ আয়োজন করা যায়, তাহলে এ অবস্থা থেকে উত্তরণ ঘটবে। শুধু গত চার-পাঁচটি ম্যাচই নয়, দেখবেন গত চার-পাঁচ বছরে অনেক ম্যাচে উইন-উইন সিচুয়েশনে আমরা হেরে গিয়েছি। মুত্তিয়া মুরালিধরনের মতো লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যান এ পরিস্থিতিতে ৩০-৪০ রান করে ম্যাচ জিতিয়ে দিয়েছে। অর্থাত্ এ ধরনের কঠিন পরিস্থিতি সামলানোর অভিজ্ঞতা কম। ঘরোয়া ক্রিকেটে স্নায়ুচাপপূর্ণ ম্যাচ বেশি করে আয়োজন করা জরুরি।

হাতে সময় খুবই কম
এই ধ্বংসস্তূপ থেকে দলকে তুলে আনা বা সামনে এগিয়ে নেওয়া একজন কোচ কিংবা অধিনায়কের জন্য খুব কঠিন কাজ। এ সময় সব এলোমেলো হয়ে যায়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি কিংবা ওয়ানডেতে এমনটাই হয়েছে। সামনে রয়েছে এশিয়া কাপের একটি ম্যাচ (শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে) এরপর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এমন পরিস্থিতি কাটিয়ে ওঠার বেশি সময় কিন্তু নেই আমাদের হাতে।


থেকেই যাচ্ছে সংশয়ের মেঘ
বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের অবস্থা এবং জাতীয় দলের অবস্থা একই। জেতা ম্যাচ শেষ মুহূর্তে হেরে সবাই ভেঙে পড়েছে। এখান থেকে উঠে আসতে হয়তো আরও কয়েকটা ম্যাচ লেগে যাবে। সামনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্ট (টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ)। তার আগে এ পরিস্থিতি আমরা কাটিয়ে উঠতে পারব কি না, সে সংশয় থেকেই যাচ্ছে।


যা করতেই হবে
এখন যে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি দেখা যাচ্ছে, টি-টোয়েন্টির আগে তা অবশ্যই কাটিয়ে ওঠা উচিত। তবে ইতিবাচক দিক হচ্ছে, গতকাল বাংলাদেশের যে ব্যাটিং দেখা গেল, এমন ব্যাটিং করলে যেকোনো দলকেই আমরা হারিয়ে দিতে পারব। আরেকটি জায়গায় আমাদের খুবই মনোযোগ দেওয়া দরকার, সেটি হচ্ছে দলের ফিল্ডিং। এই বিভাগে গত কয়েক ম্যাচে যে দুর্বলতা দেখা গেল, সেটি কিছুতেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমাদের দলের খেলোয়াড়দের যে বয়স, তাতে বিশ্বের অন্যতম সেরা ফিল্ডিং দল হওয়া উচিত। ফিল্ডিং বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ফিটনেসের ওপর নির্ভর করে। ফলে ফিল্ডিং কোচ, খেলোয়াড়দের এই বিভাগে আলাদা করে মনোযোগ দিতে হবে। এ ছাড়া ঠিক সময়ে ঠিক বোলারকে ব্যবহার করার ক্ষেত্রে আরও ভালো করতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

রংপুরে করোনা শনাক্তের হার বাড়ছে  : একদিনে সর্বোচ্চ  ৪৩৮ জন

রংপুর নগরীর প্রধান সড়কগুলো চার্জার ও অটো রিকশার দখলে

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফল

ইতালিতে হাইপোথার্মিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সাত বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে : দূতাবাস

সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর পোশাক কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত বলেই ষড়যন্ত্র-অপপ্রচারে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী

কাদের টাকায় লবিষ্ট নিয়োগ, ফখরুলকে কাদের

শাবিপ্রবি উপাচার্য ক্যাম্পাস ত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলনের ঘোষণা

রাতে তাপমাত্রা কমতে পারে

ফল ঘোষণা হয়নি, বাইরে বিজয়ের গুজব

রাত ৮টার পর রাজশাহীতে বন্ধ থাকবে সব দোকান

জোড়া সেঞ্চুরির ম্যাচে ঢাকার মধুর প্রতিশোধ