মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বক্তব্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়বে : বেসিক ব্যাংক

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : বেসিক ব্যাংক নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুখপাত্রের ‘নেতিবাচক’ মন্তব্যে গ্রাহকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছে ব্যাংকটি।

বৃহম্পতিবার (১৮ এপ্রিল) বেসিক ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক ও জনসংযোগ প্রধান মোহাম্মদ ইশতিয়াক আজাদের পাঠানো এক বিবৃতিতে এমন আশঙ্কার কথা জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ১৭ এপ্রিল বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেসিক ব্যাংক লিমিটেডকে সরকারি ব্যাংক হিসেবে গণ্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক— এমন খবর প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র এর বরাত দিয়ে দেশের বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল এবং প্রিন্ট মিডিয়ায় এ তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদে বলা হয়েছে ‘বেসিক ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সরকারি বলে স্বীকারই করছে না কেন্দ্রীয় ব্যাংক’।

সংবাদের আরেকটি অংশে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্রের বরাত দিয়ে বলা হয়, ‘বেসিক ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সরকারি নন। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মেজবাউল হক বলেন, বেসিক সরকারের কোনো ব্যাংক অর্ডারের দ্বারা স্থাপিত ব্যাংক নয়। সোনালী ব্যাংকের যেমন ব্যাংক অর্ডার আছে, বেসিকের তেমন নেই। একটা আইন দ্বারা কিন্তু সোনালী, রূপালী ও অগ্রণী ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত। বেসিক ব্যাংক কোনো আইন দিয়ে প্রতিষ্ঠিত নয়। সরকার যেমন বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের শেয়ার হোল্ড করে, তেমনি বেসিকেরও শেয়ার হোল্ড করে।

তিনি আরও বলেন, সরকারি আর বেসিকের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে সরকার যেটা রেভিনিউ থেকে দেয় সেটাই কিন্তু সরকারি প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আছে সরকারের কমার্শিয়াল কাজের জন্য স্টাবলিস্ট করা। বেসিকও তেমন একটা প্রতিষ্ঠান। বেসিক স্পেশালাইজড একটা ব্যাংক ছিল, যেটা একটা বিশেষ উদ্দেশ্যে গঠন করা হয়েছিল। এটা কিন্তু ব্যাংক হিসেবে সরকারের আইন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত নয়।

এ বিষয়ে আমাদের বক্তব্য হলো— নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে এরূপ বক্তব্য বেসিক ব্যাংকের বিষয়ে জনমনে নেতিবাচক ধারণা তৈরি করতে পারে এবং ব্যাংকের গ্রাহকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে আমরা মনে করি। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের গেজেট, বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিপত্রের মাধ্যমে বেসিক ব্যাংক লি. কে শতভাগ রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে গণ্য করা হয়েছে এবং মহামান্য আদালতের রায়ে বেসিক ব্যাংকের কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সরকারি কর্মচারী হিসেবে সাব্যস্ত করেছে। বর্তমানে দেশে কার্যরত রাষ্ট্র মালিকানাধীন অন্যান্য ব্যাংকগুলো যে বিধিমালা ও নীতিমালার আওতায় পরিচালিত হচ্ছে শতভাগ রাষ্ট্র মালিকানাধীন বেসিক ব্যাংক লিমিটেডও একই বিধিমালা ও নীতিমালার আওতায় পরিচালিত হচ্ছে। রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালী, বিডিবিএল যে সাংগঠনিক কাঠামোর আওতায় (অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ কর্তৃক অনুমোদিত) পরিচালিত হচ্ছে; শতভাগ রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে বেসিক ব্যাংক লিমিটেডও একই সাংগঠনিক কাঠামোর আওতায় (অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ কর্তৃক অনুমোদিত) পরিচালিত হচ্ছে।

সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের বার্ষিক প্রতিবেদনে রাষ্ট্র মালিকানাধীন ০৬টি বাণিজ্যিক ব্যাংকের তালিকায় বেসিক ব্যাংকের নাম রয়েছে। এছাড়া, বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েব সাইটে রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকের তালিকায় বেসিক ব্যাংকের নাম উল্লেখ রয়েছে।

বেসিক ব্যাংকের কার্যক্রম শুরুর প্রেক্ষাপট বিশ্লেষণে দেখা যায় যে, দেশের ক্ষুদ্র শিল্পে অর্থায়নের লক্ষ্যে ১৯৮৯ সালে বেসিক ব্যাংক লিমিটেডের কার্যক্রম শুরু হয়, যা ১৯৯২ সালে শতভাগ রাষ্ট্র মালিকানাধীন ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর থেকে একটি রাষ্ট্র মালিকাধীন বিশেষায়িত ব্যাংক হিসেবে সরকারি আর্থিক সেবা প্রদান করে আসছে, যা ২০১৫ সালে পুরোপুরি রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে রূপান্তরিত হয়। (বাংলাদেশ গেজেট, জুন ২৫, ১৯৯২), (বিআরপিডি (পি-৩)৭৪৫/২০১৫-১৭১৯, মার্চ ০৩, ২০১৫)।

দেশের অন্যান্য রাষ্ট্রমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকের ন্যায় শতভাগ রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে বেসিক ব্যাংক লিমিটেডও একই শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত।