মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদ ভ্রমণে থাকুন ব্যথামুক্ত

news-image

ঈদে পরিবারের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে বেশির ভাগ মানুষই নাড়ির টানে গ্রামের বাড়ি যান। দীর্ঘ ভ্রমণে বাস, ট্রেন, লঞ্চ, রাস্তাঘাটে অনেক সময় পোহাতে হয় দুর্ভোগ আর বিড়ম্বনা। যানজট, ফেরিস্বল্পতা ও ভিড়ের মধ্যে অনেকেরই দীর্ঘ সময় বসে বা দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এসব ধকল আমাদের শরীরকে অসুস্থ করে তোলে। অনেকেই দীর্ঘ সময় বসে থাকার পর ঘাড়, কোমর, হাঁটু ও গোড়ালি এবং অন্যান্য জয়েন্টে ব্যথার সম্মুখীন হন। ব্যথামুক্ত ঈদ ভ্রমণে কিছু পরামর্শ–

১. দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে বা বসে থাকবেন না। মাঝেমধ্যে ভঙ্গি পরিবর্তন করুন। যাত্রাপথে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে আবার যাত্রা শুরু করেন।

২. সামনের দিকে ঝুঁকে লাগেজ বা ভারী ব্যাগ ওঠাবেন না। অনেকেই বাসে বা গাড়িতে বসে ঘাড় ঝুঁকিয়ে মোবাইল ব্যবহার করে থাকেন। সে ক্ষেত্রে মোবাইল আই লেভেলে, অর্থাৎ চোখ বরাবর রেখে ব্যবহার করুন।

৩. অনেকে ভ্রমণের সময় ঘুমিয়ে যান ও ঘুম থেকে উঠে ঘাড় ঘোরাতে পারেন না। সে ক্ষেত্রে ঘুমানোর সময় ঘাড়ের অবস্থান ঠিক রেখে ঘুমান। যারা আগে থেকেই ঘাড়, কোমর ও অন্যান্য জয়েন্ট ব্যথায় ভুগছেন, তারা মাস্কুলোস্কেলিটাল বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ভ্রমণ করুন।

৪. বাসে বা ট্রেনে বেশিক্ষণ হাঁটু ঝুলিয়ে বসবেন না। মাঝেমধ্যে হাঁটু ভাঁজ ও সোজা করুন। হাঁটু সোজা রেখে পায়ের পাতা ওপরের দিকে টেনে ৫ সেকেন্ড ধরে রাখুন। এভাবে ১০-১৫ বার করুন। একইভাবে পায়ের পাতা নিচের দিকে নিন। এতে আপনার হাঁটু ব্যথামুক্ত থাকবে এবং পায়ের পাতা ফুলবে না।

৫. অন্তঃসত্ত্বা নারীদের অবশ্যই ভ্রমণের আগে একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। ভ্রমণের সময় অনেকক্ষণ বসে থাকার কারণে পা ঝিঁ ঝিঁ ধরে ও পায়ে অসাড়তা আসে এবং রক্ত চলাচল কমে যায়। তাই সম্ভব হলে যাত্রাবিরতিতে কিছুক্ষণ হাঁটাচলা করে নিন। ঘাড় ও কোমরের পেছনে দেওয়ার জন্য বালিশ অথবা কুশন সঙ্গে রাখতে হবে। কোনো ধরনের ভারী জিনিস বহন করা যাবে না। অন্তঃসত্ত্বা নারীরা ভ্রমণের সময় একজন সহযোগী সঙ্গে রাখবেন।

যারা আগে থেকেই ঘাড়, কোমর ও অন্যান্য জয়েন্ট ব্যথায় ভুগছেন, তারা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ভ্রমণ করুন। এ ছাড়া ভ্রমণের সময় বিশুদ্ধ পানি সঙ্গে রাখুন। বাইরের ভাজাপোড়া কিংবা অপরিচিত কারও দেওয়া খাবার খাবেন না। দীর্ঘ ভ্রমণে ঢিলা, আরামদায়ক পোশাক পরিধান করুন। আশা করি, এই ঈদে আপনার ভ্রমণ হোক ব্যথামুক্ত, স্বস্তিদায়ক এবং নিরাপদ।
লেখক : মাস্কুলোস্কেলিটাল ডিজঅর্ডারস বিশেষজ্ঞ।