বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরিষার হলুদ ফুলে রাঙ্গিয়েছে দিগন্তজোড়া মাঠ

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল,ব্রাহ্মণবাড়িয়া : যতদুর চোখ যায় কেবল হলুদ আর হলুদ চোখে পড়ে। সরিষার ক্ষেত যেন বাতাসে দুলছে। হলুদ ফুলে ফুলে মৌ মাছিরাও যেন মধু সংগ্রহ করতে ব্যস্ত সময় পার করছে। হলুদের সমারোহে সজ্জিত সরিষার প্রতিটি ফুলে দুলছে কৃষকের রঙ্গিন স্বপ্ন। জেলার আখাউড়া ও বিজয়নগর উপজেলায় চলতি মৌসুমে বিস্তৃর্ণ এলাকা জুড়ে সরিষার আবাদ করা হয়েছে। সরিষার হলুদ ফুলে যেন রাঙ্গিয়ে দিয়েছে দিগন্তজোড়া মাঠ। সবুজ শ্যামল প্রকৃতি ও ষড় ঋতুর এই দেশে ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে বদলে দিয়েছে ফসলের মাঠের চিত্রও। সেইসাথে সরিষা ফুলের নয়নাভিরাম দৃশ্য পাল্টে দিয়েছে আখাউড়া ও বিজয়নগরের কিছু গ্রামের দৃশ্য। কিছু দিন পরেই মাড়াই করে তৈলের জন্য প্রস্তুত করা হবে এসব সরিষা। সরিষার ব্যাপক ফলনে গ্রামীন অর্থনীতিতে এক সম্ভাবনার হাতছানি দিচ্ছে।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, জেলার বিজয়নগরের চর ইসলামপুর, চান্দুরা, পত্তন ও  আখাউড়া উপজেলার মোগড়া, মনিয়ন্দ ও ধরখার এলাকায় গিয়ে গিয়ে দেখা যায়, বিস্তৃর্ণএলাকাজুড়ে সরিষা ক্ষেত হলুদ ফুলে একাকার হয়ে আছে। স্থানীয় কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। প্রতি বছর সরিষার ফলন ভাল হওয়ায় বাড়ছে জমির পরিমান। মৌ মৌ শব্দে পুরো মাঠ মুখরিত হয়ে উঠছে। কম খরচে বেশী লাভের আশায় স্থানীয় কৃষকরা আগাম জাতের ও অধিক ফলনশীল এই ফসলের আবাদ করেছেন। তবে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে সরিষার বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকরা।
চরইসলামপুরের কৃষক মো: রফিক মিয়া বলেন, এ মৌসুমে তিনি এক বিঘা জমিতে সরিষা আবাদ করেছেন। এরপরও ক্ষেতের অবস্থা বর্তমানে অনেক ভালো রয়েছে। এক বিঘা জমি আবাদ করতে তার প্রায় ২২শ টাকার উপর খরচ হয়েছে । সরিষার মাঠের যে অবস্থা দেখা যাচ্ছে তিনি আশা করছেন লাভবান হবেন। গত মৌসুমে সরিষা আবাদ করে খরচ বাদে ১০ হাজার টাকা আয় হয়েছে বলে জানায়।
কৃষক মো. ছিদ্দিক মিয়া বলেন, এ মৌসুমে প্রায় দেড়  বিঘা জমিতে সরিষা আবাদ করেছি। বর্তমানে সরিষার ক্ষেতের অবস্থা খুবই ভালো।  সরিষা আবাদে খরচ কম ফলন বেশী হয়। তাছাড়া উৎপাদন সার কম প্রয়োগ করতে হয়। সেই সাথে সেচ, কীটনাশক ও নিড়ানির প্রয়োজন হয় না। তিনি আশা করছেন বিঘা প্রতি ৫/৬ মণের উপর সরিষা পাবেন। এক মণ সরিষা বর্তমান বাজার মূল্য রয়েছে ৩ হাজার টাকা। সরিষা চাষে যে সার আমরা ব্যবহার করি। তা পরবর্তীতে বোরো ধান রোপণের সময় কাজে লাগে। এতে আমাদের খরচ কিছুটা কম হয়।
কৃষি অফিস জানায়, সরিষা একটি লাভ জনক ফসল। বেশীভাগ ক্ষেত্রে সরিষাচাষ ঝুঁকিমুক্ত। তবে প্রতি বছর সরিষা চাষের আবাদ বাড়ছে। অফিস সব সময় ফলন ভালো করতে কৃষকদেরকে সার্বিক ভাবে সহযোগিতা করে আসছে। সরিষা চাষে কৃষকদের প্রশিক্ষণ, প্রদর্শনী, বিনামূল্যে বীজ-সার সরবারহসহ সর্বদা নানা রকম পরামর্শ ও সহযোগিতা দিয়ে আসছে। তৈল জাতীয় শস্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে সরিষা চাষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এ বছর সরিষার বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা হচ্ছে।