বুধবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কোন খাবারে কতটুকু পুষ্টি

news-image

স্বাস্থ্য ডেস্ক : খাবার শুধু পেটভরা বা ক্ষুধা নিবারণের জন্য নয়; সুস্থ হয়ে বেঁচে থাকার জন্য। সর্বোপরি শারীরিক পুষ্টির চাহিদা মেটাতে সুষম খাবার প্রয়োজন। তবে কিছু পুষ্টিকর খাবার প্রয়োজনের চাইতে বেশি খেলে তা শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব সৃষ্টি করে। অপরিমিত এসব খাবার খেলে নানা রকম স্বাস্থ্যঝুঁকিও দেখা দেয়।

কমলা বা টমেটো : ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ কমলা কিংবা টমেটো স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। তবে যুক্তরাষ্ট্রের মাউন্ট সিনাই গেস্ট্রোইন্টেস্টিনাল মটিলিটি সেন্টারের গবেষক জিনা স্যামের মতে, অতিরিক্ত টমেটো কিংবা কমলা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী তো নয়ই বরং ক্ষতিকর।

এগুলোর অতিরিক্ত এসিডিক উপাদান শরীরে নানা রকম সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। বিশেষ করে যারা কিডনি রোগে আক্রান্ত, তাদের এ ধরনের রসালো ফল খাওয়া নিষেধ। এমনকি সুস্থ শরীরেও দিনে দুটি টমেটো ও দুটির বেশি কমলা খাওয়া উচিত নয়।

পালংশাক: পালংশাকে আছে প্রচুর প্রোটিন, ভিটামিন, খনিজ ও ফাইবার। তাই পালংশাক স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। কিন্তু পালংশাক অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে নানা রকম শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। পালংশাকে আছে অক্সালেট নামের একটি উপাদান, যা কিডনির পাথর সৃষ্টি করতে পারে। শুধু পালংশাক নয়, মাটির ওপরের সবজি বাঁধাকপি, ফুলকপি, মুলা, ওলকপি এসবও অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া উচিত নয়।

কম ফ্যাটযুক্ত প্রাণিজ প্রোটিন: প্রোটিন শরীরের জন্য একটি জরুরি উপাদান। বিশেষ করে চিকেন ব্রেস্ট, ডিমের সাদা অংশ ইত্যাদি কম ফ্যাটযুক্ত প্রাণিজ প্রোটিন শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী। কিন্তু এ ধরনের প্রাণিজ প্রোটিন অতিরিক্ত খেলে শরীরে গ্রোথ ফ্যাক্টর ১ নামের একটি হরমোন উৎপন্ন হয়, যা দ্রুত বয়স বাড়িয়ে দেয় এবং এ অবস্থায় ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।

করলা: করলা খেতে ভীষণ তিতা, অথচ পুষ্টিগুণে ভরপুর। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, অপছন্দনীয় এ সবজিটিই দূর করতে পারে ক্যান্সার, ডায়াবেটিস বা বহুমূত্র রোগ। দ্য ইউনিভার্সিটি অব কলোরাডোর একটি গবেষণায় দেখা যায়, করলা অগ্ন্যাশয়ের টিউমার প্রায় ৬৪ শতাংশ কমিয়ে আনতে সক্ষম। গবেষণায় আরও দেখা গেছে, উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা, অ্যাজমা, ত্বকের ইনফেকশন, ডায়াবেটিস এবং পাকস্থলীর নানা সমস্যা প্রতিরোধ করতে পারে শুধু এই একটি সবজি ‘করলা’।

কম ক্যালরিসমৃদ্ধ করলায় রয়েছে– পটাশিয়াম, বিটা ক্যারোটিন, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, হাই ডায়াটেরি ফাইবার, ভিটামিন বি১, বি২, বি৩ ও সি, ফোলায়েট, জিঙ্ক এবং ফসফরাস। করলা পাতার রস খুবই উপকারী। এনার্জি ও স্টেমিনা বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। সে ক্ষেত্রে করলা পাতার রসে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন।