মঙ্গলবার, ১৬ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী টমটম

news-image

অনলাইন ডেস্ক : পুরান ঢাকার বাংলাবাজার এলাকার ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলের সামনে থেকে হাঁকডাক আসছে, ‘গুলিস্তান ৩০, গুলিস্তান ৩০’। পাশেই দাঁড়িয়ে আছে দুই ঘোড়ায় বানানো টমটম গাড়ি; অনেকে ‘ঠিকা গাড়ি’ও বলে। হাঁকডাক যতটা, যাত্রীদের সাড়া ততটা নেই। শেষমেশ ১৫ আসনের গাড়িতে ৫-৭ জন যাত্রী তুলেই রওনা দিচ্ছে গুলিস্তানের দিকে। কোচওয়ান (চালক) ও মালিকরা বলছেন, টমটমের জনপ্রিয়তা দিন দিন কমছে। এভাবে কমতে থাকলে টমটম এক সময় রাজধানীর সড়ক থেকে হারিয়ে যাবে।

টমটমের একাধিক মালিক জানান, আধুনিক পরিবহন, যানজট ও ঘোড়া পোষার খরচ বাড়ায় টমটম গুরুত্ব হারিয়েছে। ফলে এ পেশার লোকজনের আর্থিক দুরবস্থা বেড়েছে। বাধ্য হয়ে পেশা পরিবর্তন করেছেন অনেকে।

১৯৭৬ সাল থেকে ঘোড়ায় টানা এই টমটম সদরঘাট থেকে গুলিস্তান পর্যন্ত যাত্রী পরিবহন পরিবহন করছে। রাজধানীর নিমতলী এলাকার বাসিদা মো. মুমিনুল। তারা তিন পুরুষ ধরে টমটম ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। পোষাতে না পেরে সম্প্রতি তিনি টমটম ছেড়ে মোটরপার্টসের দোকানে কাজ নিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘একটা গাড়ির পেছনে দিনে এক হাজার টাকা খরচ হয়। অথচ যানজট বাড়ায় এখন দিনে তিনবারের বেশি যাওয়া-আসা করা যায় না। আগে ছয়-সাতবার করা যেত। আয়ের চেয়ে ব্যয়ই বেশি। তাই বাধ্য হয়ে পারিবারিক এ ব্যবসার ইতি টেনেছি।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১৮৩০ সালে পুরান ঢাকায় ঘোড়ার গাড়ির প্রচলন শুরু। কারও কারও মতে, শাঁখারীবাজারে আর্মেনীয় বণিকদের প্রতিষ্ঠান ‘সিরকো অ্যান্ড সন্স’ ১৮৫৬ সালে ঘোড়ার গাড়ির প্রচলন করে। জমিদারি বাহনের পাশাপাশি এটি তখন আর্মেনীয়দের ব্যবসার মাল টানার কাজেও ব্যবহৃত হতো। এরপর নবাবি শাসনামলেও ঘোড়ার গাড়ির প্রচলন ছিল। পরবর্তী সময়ে এর জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে। কয়েক বছর আগেও সদরঘাট ও গুলিস্তানের মধ্যে প্রায় ৫০টি টমটম চলত। কমতে কমতে এখন দাঁড়িয়েছে ২৫টিতে।

কোচওয়ানরা জানান, সময় বাঁচাতে মানুষ এখন বাস ও মোটরসাইকেলের মতো দ্রুতগতির যান বেছে নেয়। এ কারণেও টমটমের জনপ্রিয়তা কমছে।

আকবর নামে এক কোচওয়ান বলেন, ‘সব খরচ বাদ দিয়ে যে টাকাটা থাকে, সেটা দিয়ে দুজন কর্মীর বেতন এবং মালিককে টাকা দিতে হয়। আমি সারাদিন খেটে তিন-চারশর বেশি পাই না। এই টাকায় সংসার চালানো কষ্টকর।’

পারিবারিকভাবে টমটম ব্যবসায় যুক্ত এক ব্যক্তি বলেন, ‘ব্যবসাটা টিকে আছে দুটি কারণে। প্রথমটা হলোÑ বংশগত ব্যবসা ছাড়তে পারি না। দ্বিতীয়ত, শীতকাল এলে বিয়েশাদির সময় গাড়ির কিছু চাহিদা তৈরি হয়। এ সময় গাড়ি ভাড়া দিয়ে কিছু আয় হয়। তবে যেভাবে সবকিছুর খরচ বাড়ছে, তাতে অচিরেই হয়তো এই ব্যবসার ইতি টানতে হবে।’

এ জাতীয় আরও খবর

১৫০ উপজেলায় ১৮৯১ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল

ডিপিএলে এক ম্যাচে তিন সেঞ্চুরি

মুস্তাফিজের আইপিএলে খেলার ছুটি বাড়াল বিসিবি

আ’লীগ থেকে বড় মনিকে সাময়িক অব্যাহতি

পথে-ঘাটে-সচিবালয়ে, সর্বত্র ইসরায়েলে ইরানের হামলার প্রসঙ্গ

ইসরায়েলের আকাশে শক্তি প্রদর্শন ইরানের

নিজেদের রেকর্ড ভেঙে আইপিএলের সর্বোচ্চ রান হায়দরাবাদের

২৩ নাবিকসহ ২২ এপ্রিল দুবাইয়ে নোঙর করবে এমভি আবদুল্লাহ

এমভি আবদুল্লাহতে এখন কেন দেওয়া হলো কাঁটাতারের বেস্টনি?

সিলেটে বিদ্যুৎকেন্দ্রের আগুন নিয়ন্ত্রণে, ৭০ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন

আখাউড়া স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি শুরু

সিলেটে বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রে আগুন