বৃহস্পতিবার, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাজারে টাকা ঢালার পর সতর্ক মুদ্রানীতি

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাজারে বিপুল অঙ্কের টাকা সরবরাহের পর সতর্কমূলক মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ জন্য বাড়ানো হয়েছে নীতি সুদহার, সে সঙ্গে ভোক্তা ঋণের সুদহারও বাড়ানো হয়েছে। তবে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের স্বার্থে ঋণের সুদের সীমা তুলে নেওয়ার কোনো ঘোষণা আসেনি। যদিও উচ্চমূল্যস্ফীতির কারণে আমানতের সুদের সীমা তুলে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া বেসরকারি খাতের ঋণের প্রবৃদ্ধি অপরিবর্তিত রেখে বাড়ানো হয়েছে সরকারি খাতের ঋণের প্রবৃদ্ধি।

গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংকের কনফারেন্স রুমে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আগামী ছয় মাসের নতুন এই মুদ্রানীতি ঘোষণা করেন গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার। এ সময় তিনটি চ্যালেঞ্জের কথা তুলে ধরেন গভর্নর। এগুলো হলো- রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ দীর্ঘ হওয়া, যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের নীতি সুদহার বৃদ্ধির প্রবণতা ও চীনে করোনা পরিস্থিতি মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা। অনুষ্ঠানে ডেপুটি গভর্নর, চিফ ইকোনমিস্ট, মুদ্রানীতি বিভাগের নির্বাহী পরিচালক, পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য মুদ্রানীতি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মুদ্রানীতির মূল লক্ষ্য হলো মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রেখে জিডিপির প্রবৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করা, যাতে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়।

এ ছাড়া মুদ্রার বিনিময় হারের স্থিতিশীলতা বজায় রাখাও মুদ্রানীতির অন্যতম কাজ। মহামারী করোনায় স্থবির অর্থনীতিতে গতি ফেরাতে গত মুদ্রানীতিগুলো সম্প্রসারণমুখী করা হয়। বাজারে অর্থের জোগান বাড়াতে নেওয়া হয়ে নানা পদক্ষেপ। এসব পদক্ষেপের ফলে অর্থনৈতিক কর্মকা-ে বেশ গতিও আসে। তবে রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ সেই গতিতে চিড় ধরায়। একইসঙ্গে ব্যাংক খাত নিয়ে গুজব ও কয়েকটি শরিয়াহ ব্যাংকের অনিয়মের কারণে গত কয়েক মাসে ব্যাংক থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা তুলে নেন ব্যক্তি আমানতকারীরা। একই সময়ে আমদানিসহ বিভিন্ন প্রয়োজনে সরকারি আমানতও তুলে নেওয়ার পরিমাণ বেড়েছে। বাজেট ঘাটতিসহ বিভিন্ন ব্যয় মেটাতে সরকারও ব্যাংকব্যবস্থা থেকে বড় অঙ্কের ঋণ নিয়েছে। ফলে চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে বিপুল পরিমাণ রিজার্ভ মানির জোগান বেড়েছে। এই হাইপাওয়ারড মানি বাজারে গিয়ে মূল্যস্ফীতির ওপর আরও চাপ সৃষ্টি করছে। এমনিতেই করোনা-পরবর্তী চাহিদা ও ডলারের দাম বৃদ্ধি এবং রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রায় সব পণ্যের দামই ঊর্ধ্বমুখী থাকায় মূল্যস্ফীতি বেশ বেড়েছে। উচ্চমূল্যস্ফীতির কারণে দেশের নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষের কষ্ট বাড়ছে। তাই মূল্যস্ফীতি চাপ সামাল দিতে বিদ্যমান অর্থের সরবরাহে লাগাম টেনে চলতি অর্থবছরের আগামী ছয় মাসের জন্য সতর্ক মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে বাজারের তারল্য নিয়ন্ত্রণে নীতি সুদহার বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

নতুন মুদ্রানীতিতে রেপো রেট বা নীতি সুদহার ২৫ বেসিস বাড়িয়ে ৬ শতাংশ করার ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকের জন্য টাকা ধার নেওয়া আরও দামি হয়ে উঠল। সেই সঙ্গে রিভার্স রেপোর সুদহারও বাড়ানো হয়েছে। রিভার্স রেপোর সুদহার ৪ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৪ দশমিক ২৫ শতাংশ করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে নেওয়া অর্থে, ব্যাংকগুলোকে যে সুদ দিতে হয়, সেটি হলো রেপো রেট। আর বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যে অর্থ নিচ্ছে, তার ওপর যে সুদ, তাকে রিভার্স রেপো রেট বলা হয়। নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণার পর গতকাল সন্ধ্যায় বাংলাদেশ ব্যাংক এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে বিষয়টি ব্যাংকগুলোকে জানিয়ে দেয়।

নতুন মুদ্রানীতিতে রিজার্ভ মুদ্রার (এম১) ও ব্যাপক মুদ্রা (এম২) প্রবৃদ্ধি বেশখানিক বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এতে আগামী জুন পর্যন্ত রিজার্ভ মুদ্রা সরবরাহের বার্ষিক লক্ষ্য ধরা হয়েছে ১৪ শতাংশ। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ৯ শতাংশ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে বাজারে রিজার্ভ মুদ্রা সরবরাহে প্রবৃদ্ধি হয় ১৭ দশমিক ৪ শতাংশ। যদিও রিজার্ভ মুদ্রার প্রবৃদ্ধি বাড়লেও একই সময়ে ব্যাপক মুদ্রার প্রবৃদ্ধি কমেছে। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ১০ শতাংশ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ব্যাপক মুদ্রার প্রবৃদ্ধি হয় ৮ দশমিক ৪ শতাংশ। মূলত মানুষের টাকা ধরে রাখার প্রবণতায় রিজার্ভ মুদ্রার হাতবদল কম হওয়ায় ব্যাপক মুদ্রার সরবরাহ আশানুরূপ বাড়েনি। তারপরও নতুন মুদ্রানীতিতে এটি আরও বাড়ানোর ঘোষণা এসেছে। নতুন মুদ্রানীতিতে আগামী জুন পর্যন্ত ব্যাপক মুদ্রার বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১১ দশমিক ৫ শতাংশ। মুদ্রানীতির কর্মসূচি অনুযায়ী, আগামী জুন পর্যন্ত বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধির সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪ দশমিক ১ শতাংশ। চলতি মুদ্রানীতিতেও এই লক্ষ্যমাত্রাই ছিল, এর বিপরীতে ডিসেম্বর পর্যন্ত অর্জন হয়েছে ১২ দশমিক ৮ শতাংশ। তবে নতুন মুদ্রানীতিতে সংশোধিত বাজেট অনুযায়ী সরকারের লক্ষ্যমাত্রার ভিত্তিতে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ১ লাখ ১১ হাজার ৬০৮ কোটি টাকা ঋণ জোগানোর ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। তাতে সরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৩৭ দশমিক ৭ শতাংশ, যা চলতি মুদ্রানীতিতে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৩৩ দশমিক ৩ শতাংশ এবং জুন পর্যন্ত ছিল ৩৬ শতাংশ ছিল। এর বিপরীতে ডিসেম্বর পর্যন্ত অর্জন হয়েছে ২৬ দশমিক ৬ শতাংশ। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে সরকার ব্যাংকব্যবস্থা থেকে নিট ঋণ নিয়েছে ৩২ হাজার ২৪৯ কোটি টাকা। সবমিলে মুদ্রানীতিতে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণের প্রবৃদ্ধি কিছুটা বাড়িয়ে ধরা হয়েছে ১৮ দশমিক ৫ শতাংশ, যা চলতি মুদ্রানীতিতে জুন পর্যন্ত ধরা ছিল ১৮ দশমিক ২ শতাংশ।

নতুন মুদ্রানীতিতে আগামী ছয় মাসে নিট বৈদেশিক সম্পদ আরও কমবে বলে জানানো হয়েছে। এ জন্য কমানো হয়েছে লক্ষ্যমাত্রাও। এতে আগামী জুন পর্যন্ত নিট বৈদেশিক সম্পদের লক্ষ্যমাত্রা ঋণাত্মক ১১ দশমিক ৯ শতাংশ ধরা হয়েছে। চলতি মুদ্রানীতিতে জুন পর্যন্ত নিট বৈদেশিক সম্পদের লক্ষ্য ধরা ছিল ঋণাত্মক মাত্র ২ দশমিক ১ শতাংশ। আর ডিসেম্বর পর্যন্ত এই লক্ষ্যমাত্র ছিল ঋণাত্মক ১০ দশমিক ১ শতাংশ। এর বিপরীতে একই সময় পর্যন্ত নিট বৈদেশিক সম্পদের পরিমাণ অস্বাভাবিক কমে দাঁড়িয়েছে ২২ দশমিক ৬ শতাংশ।

এদিকে নতুন মুদ্রানীতিতে আমানতের সুদের সীমা তুলে নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ফরে এখন থেকে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো আমানতের সুদহার নিজেরাই নির্ধারণ করতে পারবে। নতুন মুদ্রানীতিতে বলা হয়েছে, বর্তমান বাজার পরিস্থিতি বিবেচনায় আমানতের সর্বনিম্ন সুদহার পুরোপুরি তুলে নেওয়া হলো। এ ছাড়া নতুন মুদ্রানীতিতে ভোক্তাঋণের সুদহার বাড়ানোরও ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, ভোক্তাঋণের ক্ষেত্রে সুদহার ৩ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। বর্তমানে ব্যাংকের সব ধরনের ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে বেঁধে রাখা হয়েছে। এখন সেখানে ভোক্তাঋণের সুদহার বাড়িয়ে ১২ শতাংশ পর্যন্ত করতে পারবে ব্যাংকগুলো। এর ফলে ব্যাংকগুলো এখন ভোক্তাঋণের সুদহার বাড়াতে পারবে। তবে শিল্পঋণসহ অন্যান্য ঋণের ক্ষেত্রে সুদহার বাড়ানোর সুনির্দিষ্ট কোনো ঘোষণা দেওয়া হয়নি। বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, অন্যান্য ঋণের বেঁধে দেওয়া সুদহার তুলে নেওয়ার বিষয়টি বিবেচনাধীন থাকবে।

অনুষ্ঠানে গভর্নর বলেন, দেশ থেকে বড় অঙ্কের অর্থপাচার হয়েছে। আন্ডার ইনভয়েসিং (পণ্যের দাম কম দেখিয়ে) এবং ওভার ইনভয়েসিংয়ের (পণ্যের দাম বেশি দেখিয়ে) মাধ্যমে একদিকে দেশের টাকা বিদেশে চলে গেছে। অন্যদিকে কর ফাঁকি দেওয়া হয়েছে। পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে চার ভাগের এক ভাগ দামে এলসি খুলেছেন অনেক গ্রাহক। এই কাজটা করেছেন ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়ার জন্য। তবে বাকি তিন ভাগ অর্থ নিশ্চয়ই হুন্ডির মাধ্যমে পরিশোধ করেছেন। বিষয়গুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনে উঠে এসেছে। ইতিমধ্যেই অনেকাংশে এই কাজগুলো নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছে। তিনি বলেন, ডলার সংকট প্রবল হয়ে উঠেছিল কয়েক মাস আগে। তাই প্রথম টার্গেট ছিল আমদানি কমানো। আমদানি যাতে রপ্তানি ও রেমিট্যান্সের সমান হয়। এ টার্গেট পূরণে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক যৌথভাবে অনেক পদক্ষেপ নিয়েছি। এর মধ্যে ওভার ইনভেয়েসিং ও আন্ডার ইনভেয়েসিং হয়েছে কিনা সেটা দেখেছি। এসব কাজ করে স্বচ্ছতা আনার চেষ্টা করা হয়। ফলে আমদানি কমে এসেছে। এখন দেখা যাচ্ছে আমদানির তুলনায় রপ্তানি ও রেমিট্যান্স বেশি এসেছে। ফলে ডলারের যে চাপ ছিল সেটা অনেকটা কমে এসেছে। সাম্প্রতিক সময়ে কয়েকটি শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক তারল্য সহায়তা দিয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে গভর্নর বলেন, কোনো ব্যাংক সমস্যায় পড়লে বাংলাদেশ ব্যাংক সহায়তা করে। তিনি উদহারণ দিয়ে বলেন, বর্তমানে ইসলামী ব্যাংকে মানুষের আমানত রয়েছে ১ লাখ ৫১ হাজার কোটি টাকা। ব্যাংকটির ১ কোটি ৯০ লাখ অ্যাকাউন্ট রয়েছে। এখানে শেয়ারহোল্ডারের চেয়ে বেশি টাকা রয়েছে সাধারণ মানুষের। ব্যাংক সমস্যায় পড়লে এসব মানুষের ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই সাধারণ মানুষের সময়ের চিন্তা করেই এই সহায়তা দেওয়া হয়েছে। ব্যাংকটিকে যেভাবে টাকা দেওয়া হয়, তাতে কোনো ঝুঁকি নেই। তিনি আরও বলেন, দেশের ইতিহাসে একটি ব্যাংকও বন্ধ হয়নি। ভবিষ্যতেও বন্ধ হবে না। কারণ কোনো ব্যাংক সমস্যায় পড়লে তা সমাধানে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক সর্বাত্মক সহায়তা করে থাকে। বাংলাদেশ ব্যাংক কোনো প্রভাবশালীর গোষ্ঠীর চাপে রয়েছে কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক কোনো চাপে নেই। এটা প্রথম দিনেই বলেছি। এর চেয়ে বড় চাপের জায়গায় থেকে কাজ করে এসেছি। সুতরাং কোনো চাপই এখন চাপ মনে হয় না। বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়ম অনুযায়ী কাজ করে। নিয়মের বাইরে কাউকে সুবিধা দেওয়া হয় না। কারণ কেন্দ্রীয় ব্যাংক সবাইকে গ্রাহক হিসেবে দেখে।

এ জাতীয় আরও খবর

সড়কে না করে মাঠে বৈধ কর্মসূচি করুন : বিএনপিকে ডিএমপি কমিশনার

বিধ্বস্ত প্রদেশগুলো এক বছরে পুনর্গঠনের প্রতিশ্রুতি এরদোয়ানের

টানা ষষ্ঠ জয়ে শীর্ষ দুইয়ে রংপুর

দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন রাষ্ট্রপতি : প্রধানমন্ত্রী

সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে তুরস্কে গেলো বিশেষ উদ্ধারকারী দল

এসেছে কয়লা, চালু হচ্ছে রামপাল

আওয়ামী লীগের আমলে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়: প্রধানমন্ত্রী

মওলানা ভাসানীকে সম্মান না করলে গুনাহ হবে: ডা. জাফরুল্লাহ

বিমানের ১৭ কর্মকর্তাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

দেশে খাদ্যের কোনো ঘাটতি নেই: খাদ্যমন্ত্রী

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বেলজিয়ামের সহযোগিতা চান রাষ্ট্রপতি

প্রধানমন্ত্রী জানালেন গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর কারণ