বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিনিয়োগের উত্তম জায়গা বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

news-image

আড়াইহাজার প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে বাংলাদেশ স্পেশাল ইকোনমিক জোনের (বাংলাদেশে জাপানের অর্থনৈতিক অঞ্চল) উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার সকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ অর্থনৈতিক অঞ্চলটি উদ্বোধন করেন তিনি।

উদ্বোধনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন ১৯৫৪ সালে প্রথম মন্ত্রী হয়েছিলেন তখনই এই অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো গড়ে তোলার উদ্যোগ নেন। পরবর্তীতে আবারও মন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়ে দেশব্যাপী ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প গড়ে তোলার ব্যবস্থা করেছিলেন। সে সময় তিনি শ্রম ও বাণিজ্যমন্ত্রী ছিলেন। স্বাধীনতার পর তিনি কলকারখানা জাতীয়করণ করে পুনরায় চালু করেছিলেন। জাতির পিতার লক্ষ্য ছিল আমাদের কৃষিপ্রধান দেশেও শিল্পায়ন ঘটবে।

শেখ হাসিনা বলেন, এ ক্ষেত্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু জাপানকে সবসময় দৃষ্টান্ত হিসেবেই উপস্থাপন করতেন। জাপান আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের সহযোগিতা করেছে। পরবর্তীতে জাতির পিতা যখন যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলতে শুরু করেন তখনও জাপান সবসময় আমাদের পাশে ছিল। এ দেশে কোনও ভালো হোটেল ছিল না। সোনারগাঁ হোটেল জাতির পিতার সম্মানে জাপানের প্রধানমন্ত্রী তৈরি করেন। আমাদের যমুনা সেতু, পদ্মা সেতু, রূপসা সেতুর নির্মাণেও জাপান সহায়তা করেছে। কাজেই জাপানের প্রধানমন্ত্রীকে, সরকারকে আমি ধন্যবাদ জানাই।

সরকারপ্রধান বলেন, আমরা যখন প্রথম ক্ষমতায় আসি তখন সৈয়দপুরে ইপিজেড গড়ে তুলি। বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ। আমাদের কৃষি জমি রক্ষা করতে হবে, পাশাপাশি শিল্পায়নও ঘটাতে হবে। দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর আমরা শিল্পাঞ্চল গড়ার সিদ্ধান্ত নিই। অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে দেশের ৬৪ জেলার যে সব জমিতে ফসল কম হয়, এমন ১০০টি জায়গা বেছে নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। এখানে আমাদের নারী উদ্যোক্তাদের জন্যও বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে। সব ধরনের সুযোগ সুবিধা রেখেই আমরা এ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো গড়ে তুলছি। ২০১৪ সালে আমি যখন জাপানে যাই তখনই জাপানের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়। এ ছাড়াও জাপান আমাদের আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে দিচ্ছে। আমাদের পঞ্চাশ বছরের বন্ধুত্বের এটি একটি নিদর্শন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বিশেষ সুবিধা দিচ্ছি। যারা এখানে উন্নয়ন করতে আসবে, তারা এই সুবিধা পাবে। আমাদের ডিপ সি পোর্ট হচ্ছে। নৌপথ এবং সড়কপথেও উন্নয়ন হয়েছে। ফলে বাংলাদেশে বর্তমানে বিনিয়োগের চমৎকার পরিবেশ বিরাজ করছে। তরুণরা যেন বিনিয়োগ করতে পারে সেজন্য আমরা নানা কর্মসূচি ও স্বল্প সুদে ঋণের ব্যবস্থা করছি। বিনিয়োগ বান্ধব আইন ও নীতিমালা করেছি। বিনিয়োগকারীদের জন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিসও চালু করা হয়েছে।

বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ জায়গা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারপরেও আমরা আমাদের জনগণের ক্রয়ক্ষমতা বাড়াতে পেরেছি। বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এমনকি পশ্চিমা দেশগুলোতেও পণ্য পরিবহনের সুযোগ সৃষ্টি হবে। বিনিয়োগের জন্য সবচেয়ে উত্তম জায়গা বাংলাদেশ। আমাদের দেশের মানুষ আরও বেশি নিজের দেশে বিনিয়োগ করতে উৎসাহিত হবে আশা করি।

সরকারপ্রধান বলেন, আমাদের শিল্পাঞ্চলগুলো যাতে পরিবেশবান্ধব হয় সে জন্য নানা ব্যবস্থা নিচ্ছি। বর্জ্য পরিশোধনের জন্য আমরা সেন্ট্রাল বর্জ্য পরিশোধনাগার করে দিচ্ছি। পাশাপাশি প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব বর্জ্য পরিশোধনগার রাখাও বাধ্যতামূলক করেছি। জাপানের এই উদ্যোগ অন্যান্য দেশকেও আমাদের দেশে বিনিয়োগ করতে উৎসাহিত করবে বলে আশা করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলবো।

এদিন আড়াইহাজার প্রান্ত থেকে বক্তব্য দেন জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি, জাপানের সুমিতমো করপোরেশনের প্রেসিডেন্ট ও সিইও মাসাইউকি হিওদো এবং বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন। এ সময় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাপান সফরের মাধ্যমে বাংলাদেশে জাপানের অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণের পথ চলা শুরু হয়। ২০১৬ সালে জাইকা বাংলাদেশে এর সম্ভাব্যতা সমীক্ষার কাজ হাতে নেয় এবং একই বছর জাপান সরকার বিশ্ববিখ্যাত প্রতিষ্ঠান সুমিতোমো করপোরেশনকে ডেভেলপার হিসেবে নিয়োগ করার জন্য সুপারিশ করে।

২০১৮ সালে সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শেষে জাইকা নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে জাপানের অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের পক্ষে মত দেয়। পরবর্তীতে ২০১৯ সালে জাপানের অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনে বেজা ও সুমিতোমো করপোরেশনের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।